চেহারা বদলে ফেলতে প্লাস্টিক সার্জারির পর এলো 'মৃণাল সার্জারি'

১৬৩৪০ পঠিত ... ১৮:২৮, জানুয়ারি ৩০, ২০১৯

প্লাস্টিক সার্জারির দিন শেষ। কারণ বাজারে এসেছে সম্পূর্ণ দেশি পদ্ধতিতে চেহারা বদলে ফেলার নতুন এক টেকনিক, নাম যার মৃণাল সার্জারি। একে অবশ্য চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় 'মৃণাল ভাস্কর্য সার্জারি'ও বলা হয়। সুপরিচিত চেহারার ব্যক্তিরা মুহুর্তে এই সার্জারির মাধ্যমে হয়ে যাচ্ছেন অপরিচিত।

'বিখ্যাত' বাংলাদেশি ভাস্কর মৃণাল হক তার ভাস্কর্য জীবনের শুরুতেই এই সার্জারি উদ্ভাবন করেন। কিন্তু সম্প্রতি ঢাকার গুলশানে 'সেলিব্রেটি গ্যালারি'র উদ্বোধন হওয়ার পর থেকে তার এই সার্জারির খ্যাতি ছড়িয়ে পড়েছে দেশ-বিদেশে! সেলিব্রেটি গ্যালারিতে থাকা শাহরুখ খান, মেসি, নজরুল ইত্যাদি বরেন্য ব্যক্তির ভাস্কর্য দেখার পর দলে দলে মানুষ তার কাছে ছুটে আসছে। উদ্দেশ্য একটাই, চেহারার পরিবর্তন। গবেষকদের দাবি, তিনি শিল্পী নন, তিনি ডাক্তার। ইট, বালু, সিমেন্ট পাথর দিয়ে তিনি শিল্প নয়, সার্জারি করেন। মানুষকে সাহায্য করেন চেহারা লুকাতে। হিন্দি ও কলকাতার বাংলা সিরিয়ালে যেসব চরিত্ররা বারবার প্লাস্টিক সার্জারির মাধ্যমে চেহারা পরিবর্তন করতেন, তারা এখন চান মৃণাল সার্জারি। তবে তার দরজায় বড় বড় সব অপরাধীরাও হানা দিচ্ছে। পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে দুইদিন আগেও যারা প্লাস্টিক সার্জারি করে চেহারা চেঞ্জ করতো তাদের এখন প্রধান ভরসা এই মৃণাল সার্জারি। যাদের ক্রাশ বা গার্লফ্রেন্ড রাগ করে বলছে, 'তোমার এই মুখ আমি আর দেখতে চাই না।' তারাও ভীড় করছে মৃণাল হকের কাছে। উদ্দেশ্য, এই মুখ পাল্টে নতুন মুখ করে ফেলা।'

অবশ্য গুণী ভাস্কর মৃণাল হকের এসব ছোটখাটো সার্জারিতে মন নেই একদম। তিনি সার্জারি করে থাকেন বিখ্যাত সব মানুষদের। যার মধ্যে রবীন্দ্রনাথ-নজরুল থেকে শুরু করে আছেন শাহরুখ খান, মেসি, শাকিরা আর মাইকেল জ্যাকসনও। সেলিব্রেটি গ্যালারিতে নিজের এহেন ভাস্কর্য দেখার পর মাইকেল জ্যাকসন প্লানচেটের মাধ্যমে আমাদের জানান, 'আগে জানলে শুধু শুধু এতবার প্লাস্টিক সার্জারি করে চেহারা পাল্টাতাম না। একবারেই মৃণাল ভাস্কর্য সার্জারি করে ফেলতাম।'

মেসি তার ভাস্কর্য দেখে অনেক্ষণ কথা বলতে পারেননি। ২০১৪ বিশ্বকাপের ফাইনালে হেরে যাওয়ার পর যেভাবে ট্রফির দিকে তাকিয়ে ছিলেন, সেভাবেই বাকরুদ্ধ হয়ে যান। স্বাভাবিক হতে সময় নেন ঘন্টাখানেক। তারপর ধরা গলায় বলেন, 'এত কষ্ট ফাইনালে ফ্রি কিক মিস করেও পাইনি।'

রবীন্দ্রনাথ ও নজরুল বেছে নিয়েছেন কবিতার ভাষা। কবিগুরু বলেন, 'আমাদের ছোট নদী চলে বাকে বাকে/ ভাস্কর্যে মৃণাল এটা বানাইছে কাকে? পার হয়ে যায় গরু পার হয় গাড়ি, ভাগ্য ভালো এটা দেখার আগেই গেছি মরি।'

নজরুল বজ্র কন্ঠে উচ্চারণ করেন, 'গাহি মৃণালের গান, ভাস্কর্য বানায়া যিনি মেরে দিলো মোর মান সম্মান।'

সবশেষে আমরা গিয়েছিলাম বলিউড কিং খান শাহরুখ খানের কাছে। তিনি বলেন, 'কখনো কেউ আমার এরকম ভাস্কর্য বানাবে জানলে আমি তিন যুগ আগে দিল্লি ছেড়ে মুম্বাই আসতাম না। সিনেমাতেও অভিনয় করতাম না।'

এদিকে নাম এবং চেহারা প্রকাশে অনিচ্ছুক চিকিৎসক এসোসিয়েশনের জনৈক সদস্য দাবি করেছেন, 'নতুন এই সার্জারি আবিস্কারের জন্য শীঘ্রই চিকিৎসাশাস্ত্রে নোবেল পেতে যাচ্ছেন মৃণাল হক।'

 

আরও পড়ুন-

১৬৩৪০ পঠিত ... ১৮:২৮, জানুয়ারি ৩০, ২০১৯

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top