জাপানের সাথে মাসব্যাপী ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করছে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন

১১৩৪ পঠিত ... ১৯:২৭, জুলাই ১১, ২০১৮

চার বছর ঘুরে রাশিয়ায় বসেছে ফুটবল বিশ্বকাপের আসর। এর উন্মাদনায় বাংলাদেশ অন্য কোন দেশ থেকে পিছিয়ে তো নেই, বরং উৎসাহ উৎযাপন কিংবা হারের শোক দেখে মনে হয় এ দেশ দুর্নীতিতে নয়- ফুটবল বিশ্বকাপেই পাঁচবার চ্যাম্পিয়ন! এই ফুটবলের ঋতুতে এশিয়ার দেশ হওয়ার পরেও বাংলাদেশে লাতিন আমেরিকা বা ইউরোপের দেশগুলোর পতাকার বাহার শোভা পায়। অন্যদিকে নানা ঘটন অঘটনের এই বিশ্বকাপে এশিয়ার দেশ জাপান খানিকটা ভিন্ন কারনেই আলোচনায় উঠে এসেছে।

ম্যাচশেষে অধিকাংশ দেশের সমর্থকরা যখন জয়ের উল্লাসে আত্নহারা হয়ে কিংবা হেরে গিয়ে শোকের গ্লানিতে সব ছুড়ে ফেলে গ্যালারি ত্যাগ করে- সেখানে জাপানের সমর্থকরা গ্যালারি ছাড়ার আগে সিটে কিংবা ফ্লোরে পড়ে থাকা সব আবর্জনা পরিষ্কার করতে ভোলেন না। জাপানি সংস্কৃতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত আছে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা। তাই ফুটবল সংস্কৃতির সাথে চলে এসেছে তাদের সবকিছু পরিচ্ছন্নভাবে পরিবেশন করার প্রবণতা!

এশিয়ার প্রতিবেশী এই দেশের পরিচ্ছন্নতার বিপরীত মেরুতে অবস্থান বাংলাদেশের। বিশেষ করে রাজধানী ঢাকার রাস্তাগুলোতে কোন উপলক্ষ ছাড়াই দেখা যায় আবর্জনার মহা আয়োজন। পলিথিন, বোতল, কাগজ থেকে শুরু করে প্রায় সব ধরনের ময়লার সমাহার দেখা যায় অলিগলিতে। দুর্গন্ধ, জলাবদ্ধতা আর নানা ধরনের রোগবালাইয়ের উপদ্রব লেগে থাকে বছরজুড়ে। সিটি কর্পোরেশন বিবিধ পদক্ষেপ নেয়ার পরেও কোনটিই উল্লেখযোগ্য সফলতা অর্জন করেনি।

অবশেষে বিশ্বকাপে জাপানি সমর্থকদের পরিষ্কার করার প্রবণতা দেখে আবর্জনা সমস্যা সমাধানে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন এবং বাফুফে এক অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে। বিশ্বকাপের আসরে পর্দা নামার পরেই জাপানের সাথে বাংলাদেশ ফুটবল দলের এক মাসব্যাপী ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র সাইদ খোকন এক সঙবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘এর আগে অনেকবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম, ঢাকা শহরকে একটি পরিচ্ছন্ন আর জলাবদ্ধতামুক্ত শহরে পরিণত করবো। শেষবার বলেছিলাম, “আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ জিতলে আর এমন জলাবদ্ধতা দেখবেন না” (সুত্র: eআরকি সঙবাদ, মে ২৫, ২০১৮)। কিন্তু সেই প্রতিশ্রুতিতে অনেকেই অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। কিন্তু এবার আপনারা বিশ্বাস রাখতে পারেন জাপানি প্রযুক্তিতে।'

তিনি আরও বলেন, 'বাফুফে ও ডিসিসির সম্মিলিত উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জাপান-বাংলাদেশ প্রীতি ফুটবল টুর্নামেন্ট। মাসব্যাপি ঢাকার আনাচে কানাচে সবখানে শতাধিক ফুটবল ম্যাচের আয়োজন করা হচ্ছে। নিশ্চই ভাবছেন খেলার সাথে আবর্জনার সম্পর্ক কী? আপনাদের মনে করিয়ে দিতে চাই বিশ্বকাপে জাপানের ম্যাচগুলোর কথা। খেলা শেষে জাপানি সমর্থকরা গ্যালারি যেভাবে পরিষ্কার করে বের হয়েছেন, আমাদের কোটি টাকা বাজেটের কর্মসূচীতেও আমরা কখনো করতে পারি নি। তাই আমরা এবার তাদের আমন্ত্রন জানাচ্ছি বাংলাদেশ ফুটবল দলের সাথে খেলা দেখার। বিশ্বকাপে দূর্ভাগ্যজনকভাবে বেলজিয়ামের সাথে হেরে যাওয়ার পর তাদের মনে যেই গ্লানির সৃষ্টি হয়েছিল, তা সহজেই দূর হবে আমাদের দেশের সাথে খেলার পর। কারণ বাংলাদেশ ফুটবল দল অন্য কিছুর নিশ্চয়তা দিতে না পারলেও পরাজয়ের শতভাগ গ্যারান্টি দিচ্ছে। বাফুফে সভাপতি সালাউদ্দিন সাহেবের সাথে কথা বলে আমি এ ব্যপারটি নিশ্চিত করেছি।

কী কী বিশেষ আয়োজন থাকছে এই টুর্নামেন্টে, এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে মেয়র বলেন, খেলা উপভোগ করতে জাপানি দর্শকদের বসার ব্যবস্থা রাখা হবে বিভিন্ন আবর্জনাপ্রবণ রাস্তাগুলোতে। ম্যাচশেষে হাসিমুখে জাপানি সমর্থকরা তাদের আবর্জনার সাথে সাথে আমাদের আবর্জনার স্তুপও পরিষ্কার করে ঢাকাকে একটি নির্মল শহরে পরিচ্ছন্ন করবে। বোনাস হিসেবে জাপান দলের অনবদ্য খেলাও আপনারা উপভোগ করতে পারবেন।  আবর্জনা বা জলাবদ্ধতার সমস্যা এবার কাটবেই, আমি কথা দিলাম!’

eআরকি অনুসন্ধান দল এ ব্যপারে বাফুফের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,  ‘আমাদের দলটি দীর্ঘদিন যাবত টানা হারের রেকর্ড অক্ষুণ্ণ রেখেছে। পরবর্তীতে মাননীয় মেয়র সাইদ খোকনের সাথে আলোচনার পর তিনি আমাকে জাপান ফুটবল দলের সাথে এই টুর্নামেন্ট আয়োজনের দায়িত্ব দেন। আমরা হারতে পারদর্শী, আর জাপানি সমর্থকরা পরিষ্কার করতে পারদর্শী। জাপানিরাও খুশিমনে তাদের দলের জয় উদযাপন করতে রাস্তাঘাটের ময়লা পরিষ্কার করবেন, আর আমরাও জলাবদ্ধতামুক্ত ঢাকা উপভোগ করবো। হার থেকে যদি ভালো কিছু হয়, তবে হারই ভালো!’

মেয়র সাইদ খোকনের সাথে আলোচনার পর আমরা আরো জানতে পারি, এই উদ্যোগ সফল হলে জাপানের সাথে বাংলাদেশের নদীগুলোতে ওয়াটার পোলো খেলার আয়োজন করা হতে পারে। এতে করে শিল্পকারখানা ও অন্যান্য ময়লার দূষণ সহজেই কাটিয়ে উঠা যাবে।

১১৩৪ পঠিত ... ১৯:২৭, জুলাই ১১, ২০১৮

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top