বড় হয়ে সালমান এফ ভাইয়ের মত হতে চাই : একান্ত সাক্ষাৎকারে বিল গেটস

৬৫২২০ পঠিত ... ১৬:৫৯, মার্চ ১১, ২০১৭

ঝলমলে এক দুপুর। আমরা পৌঁছেছি ওয়াশিংটনের মেডিনার ৬৬০০০ স্কয়ার ফিট আয়তনের স্বপ্নের মত সুন্দর সেই বাড়িতে। বাড়ি, নাকি অন্য এক জগৎ! সাজসজ্জায় অপূর্ব রুচিশীলতার ছাপ। আর থাকবেই না বা কেন, এই বিরাট ভুবনের স্রষ্টা যে আর কেউ নন, বিশ্বের শীর্ষ ধনী বিল গেটস।


দরজার পাশে কলিংবেল বাজানোর পর কোনো গৃহভৃত্যের মুখ দেখার অপেক্ষায় ছিলাম। অথচ কি অদ্ভুত, কাজের লোক নয়, ইউনুস সাহেবের প্রিয় গ্রামীণ চেকের ট্রাউজার আর বাসায় পরা গলা বড় হয়ে যাওয়া গেঞ্জি পরে বিল গেটস নিজেই খুললেন দরজা। বিনয়ের সঙ্গে বসতে বললেন, দরজা খুলতে যে আধ মিনিট দেরি হয়েছে সেজন্য বারবার লজ্জিত হলেন। নিজ থেকেই বললেন, 'ইয়ে, ল্যাপটপে উইন্ডোজ সেটাপ দিচ্ছিলাম, বড় প্যাড়ার কাজ। নেট থেকে ক্র্যাক ভার্সন নামালাম। কিন্তু সিরিয়াল নাম্বার কাজ করছে না। কী যে ফাউল একটা জিনিস বানাইছি ইউন্ডোজ টেন!' নিজের প্রতিষ্ঠানের পণ্য সম্পর্কে এমন বিনয়ী উক্তি আমাদের আরও একবার মুগ্ধ করলো!


আমাদের মুগ্ধতা তুঙ্গে তুলে তিনি খাঁটি বাঙালি অতিথি আপ্যায়নসূচক বাক্যটিও বলে ফেললেন, 'বসেন ভাই, গরীবের বাড়ি, গরীবী ঘরদোর। তেমন আপ্যায়ন হয়ত করতে পারব না, কিছু মনে করবেন না!'

আমরা গৃহসজ্জায় চোখ বুলালাম। উন্নত রুচি আর মনশীলতার ছাপ চারদিকে। পুরো ঘরে একটা বালুর সমান ময়লা নেই, অথচ এক কোনায় ময়লা ফেলার একটা বাস্কেট। বাস্কেটে লেখা, Throw your Apple here!

তবে এত কিছু থাকতেও আমাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করল ধবধবে সাদা দেয়ালে পাশাপাশি ঝুলতে থাকা দুটি ছবি। একটি তার নিজের, অন্যটি যার, তার ব্যাপারেই শুরু করতে যাচ্ছিলাম প্রশ্নোত্তর। বিল নিজেই শুরু করলেন, 'ছবিটি ব্যাপারে প্রশ্ন করতে চাচ্ছেন তো? উনি আমার নায়ক। আইডল, গুরু। অবশ্য আমার সৌভাগ্য, আমি তাকে বড় ভাই বলে ডাকতে পারি। তিনি আমার বড় ভাই সালমান ভাই।'

বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের তালিকায় এবারই স্থান করে নিয়েছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ী এবং বেক্সিমকো গ্রুপের চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান। অথচ এই তালিকায় প্রতি বছরের মত এবারও শীর্ষে থাকা পৃথিবীর এক নম্বর ধনী বিল গেটস সালমান এফ রহমানের প্রতি তার ভীষণ মুগ্ধতা প্রকাশ করে জানালেন, সেই ছোট্টটি যখন ছিলেন, সেই তখন থেকেই সালমান ভাই তার অনুসরণীয় আদর্শ। ব্যবসার শুরুর দিনগুলো থেকেই তিনি তার মত হতে চেয়েছেন বলে জানান, 'ছোটবেলা থেকেই আমি ভাইয়ের মত হতে চেয়েছি। আসলে উনার পর্যায়ে যাওয়া তো এত সহজ না। সবাই পারে না।'

আমরা কিঞ্চিৎ বিস্মিতই হলাম, আমাদের প্রশ্ন: আপনার সমসাময়িক বা ধনীদের তালিকায় থাকা আর কেউ নেই যে আপনাকে মুগ্ধ করেছে?

গেটসের উত্তর, 'আরেন্নাহ! কী যে বলেন! সালমান ভাই তো লিজেন্ড, উনার ব্যবসার ফর্মুলার লেভেলে আমাদের এইদিককার কেউ নাই। বাফেট বলেন, জুকা বলেন, কেউ এতটা না।'

আমাদের জিজ্ঞাসু চোখ দেখেই বোধ হয় বিল আমাদেরকে আগের চেয়েও আন্তরিক ভাষায় ব্যাখ্যা করে বোঝালেন, 'ভাইয়ের ফর্মুলাটা দেখেন, ব্যবসা করছেন, ইনকাম করছেন, ব্যাংক থেকে লোন নিচ্ছেন কিন্তু লোন ফেরত দেওয়ার কোনো সিস্টেম নাই। টাকা নিব, জাস্ট ওয়ান ওয়ে।'

তিনি ধনীর তালিকায় শীর্ষে, অথচ ব্যবসাপাতির এত বড় কিংবদন্তি হওয়ার পরেও বড় ভাই ধনীদের লিস্টে সিরিয়াল এত পেছনে কেন, এমন প্রশ্ন করা হলে বিল প্রচন্ড আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন। 'আই এম এক্সট্রিমলি সরি' বলে আশেপাশে টিস্যু না পেয়ে পকেট থেকে ১০০ ডলারের একটা নোট বের করে চোখ মুছে ফেলেন তিনি। এরপর ধীর গলায় বলেন, 'শোনেন, ভাই তো ভাই! ছোট ভাই ফার্স্ট হইলেই কী, আর বড় ভাই লাস্ট হইলেই কী! ভাই কি কোনোদিন সম্মানে ছোট হয়ে যায়? আর কেউ না জানুক, আমি তো জানি উনার কি আছে, না আছে! ভাই তো আমার, নাকি? ভাই না, উনি আমার অভিভাবক! উনি তো লিস্টে আসার পর সরাসরি বলেই দিছেন, এত টাকা উনার নাই। কী বিনয় একটা মানুষের, কত বড় মানুষ হলে এত বিনয়ী হওয়া যায়! এ ট্রু লিজেন্ড, ইনডিড! দেখতেই দরবেশের মত না তিনি, তিনি একজন সত্যিকারের দরবেশ!'

তিনি আরও যোগ করেন, 'শোনেন, পজিশনেই যদি বড়-ছোট নির্ধারণ করত, তাহলে কি আর আমার ক্লাসের ফার্স্ট বয় মাইক্রোসফটে চাকরি করে আর আমি শ্লা ব্যাকবেঞ্চার সেই কোম্পানির মালিক হই? বড় ছোট অন্য জিনিস! আমি এক নম্বর, এইটা ব্যাপার না। যাকে দেখে শিখেছি, যার মত হতে চেয়েছি এতগুলো বছর, সেই সালমান ভাই, তার সঙ্গে একই লিস্টে থাকা! এ যে কী সম্মান রে ভাই...' আবারও আবেগপ্রবণ হয়ে পড়লেন বিল গেটস। এত বড় মানুষ, অথচ কি অসাধারণ শিশুর মত আবেগ তাঁর! বিল আবারও চোখ মুছতে মানিব্যাগের দিকে হাত বাড়ালেন।


তাহলে কি জীবনে এত বড় হওয়ার পথে সালমান এফ রহমানই তার একমাত্র আদর্শ, এ পর্যায়ে এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি একটু উত্তেজিত হয়ে পড়েন, 'আরে এতক্ষণ ধরে কী বললাম তাহলে! পাঁচ সিজন গেমন অব থ্রোনস দেখে সার্সি কার বোন! সালমান নামের লোকরা আইডল না, নায়ক হয় নায়ক! উনার কাছে সালমান শাহ, খান এরা কিছুই না। অনলি এফ ইজ রিয়াল! সালমান ভাইয়ের মত আমি বিল, ট্যাক্স, লোন এইগুলা কিছুই না পরিশোধ করার প্র্যাকটিস করতে চাই। যদিও হয়ত পারব না, উনার মত কখনও পারব না! আর দেখি, ট্রাম্প সাহেবকে আমার যদিও বিশেষ পছন্দ না! তবু প্রেসিডেন্ট মানুষ, ভাবীও... ইয়ে, (লাজুক ভঙ্গিতে হেসে) যাই হোক, উনার পাশে উপদেষ্টা হয়ে বসার ইচ্ছা আছে। মোট কথা, আমি সব ব্যাপারেই সালমান ভাইকে ফলো করতে চাই!

টেবিলে চলে আসলো চা কফির পেয়ালা। চায়ে ভিজিয়ে খাওয়ার জন্য বিশ পঁচিশটা সোনার বিস্কুট! আমাদের ও জিনিস খেয়ে অভ্যেস নেই, তাই ওদিকে হাত বাড়ালাম না! কফিতে চুমুক দিতে দিতে বিল গেটস জানালেন দেশ ও জাতির প্রতি তার কিছু লুকোনো আক্ষেপের কথা, 'একটা কষ্টের কথা জানেন, আপনারা শুধু আমার ইনকামটাই দেখলেন, খরচটা দেখলেন না! এই যে আমার নাম বিল, এই নাম বাপ মা দেয় নাই ভাই! মানুষের গেটে গেটে ঘুরতে ঘুরতে আর বিল দিতে দিতে আমার নামই একদিন বিল গেটস হয়ে গেছে।'

ক্যারিয়ারের বাইরে আর কোনো চূড়ান্ত ব্যক্তিগত ইচ্ছা আছে কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি কিঞ্চিৎ আক্ষেপ নিয়ে বলেন, 'পহেলা বৈশাখ সিজনে টাটকা ইলিশ কিনে খাওয়ার বড় শখ ছিল। ভাই রে, দামে কুলাইতে পারি না। আর আমি নাকি বড়লোক? হা হা হা! আপনার আমার জন্য দোয়া করবেন।'

দুপুর গড়িয়ে ততক্ষণে বিকেল। আমরা সাক্ষাৎকার নেয়া শেষে পৃথিবীর শীর্ষ ধনীর সঙ্গে হাত মিলিয়ে বেরিয়ে আসছি বাইরে। জানালা দিয়ে উঁকি মেরে তাকিয়ে ভেতরে দেখলাম, বিল গেটস শ্রদ্ধায় অবনত হয়ে মাথা ঝুঁকিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন সালমান ভাইয়ের ছবির সামনে! যেন ধ্যান করছেন, আত্মস্থ করার চেষ্টা করছেন ভাইয়ের আদর্শ! মানুষ তো এভাবেই বড় হয়, এজন্যই কবি বলেছেন, 'ধনী যদি হতে চাও, ঋনখেলাপি হও আগে!' 

৬৫২২০ পঠিত ... ১৬:৫৯, মার্চ ১১, ২০১৭

আরও

পাঠকের মন্তব্য ( ১ )

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top