ঢাবিতে পুনরায় প্রশ্ন পেয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিতে যে ১০টি সতর্কতা অবলম্বন করবেন

১৩১১ পঠিত ... ১৩:৪৭, অক্টোবর ৩০, ২০১৮

প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগের সত্যতা প্রমাণ হওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল বাতিল করা হয়েছে, শীঘ্রই নেয়া হবে পুনঃপরীক্ষা। প্রশ্ন ফাঁসকারীদের জন্য এ এক সুখবর বটে। একই পরীক্ষার প্রশ্ন দুবার ফাঁসের সুবর্ণ সুযোগ তাদের সামনে। তবে পরীক্ষার্থীদের মধ্যে যারা আবারও পরীক্ষা দেবেন প্রশ্ন পেয়ে, তাদের এবার একটু সতর্ক থাকা জরুরি। একটু অসতর্ক হলেই পরীক্ষা আবারও বাতিল হয়ে যেতে পারে। তাই যদি একই বছর ঘ ইউনিটে তৃতীয়বার পরীক্ষা দিতে না চান, প্রশ্ন পেয়ে পরীক্ষা দেয়ার ক্ষেত্রে অনুসরণ করুন নিচের এই সতর্কতাগুলো-

১# যদি নিজের ইউনিটে ফেল করে থাকেন, তাহলে কোনোভাবেই সিরিয়ালে ৫০০র মধ্যে আসা যাবে না। এজন্য কত নম্বর পেতে হবে তা ঠিকঠাক হিসাব করে ততগুলো প্রশ্নই কিনবেন। পুরো প্রশ্নপত্রটি না কিনে সেক্ষেত্রে পাইকারি দরে ৫০টি বা ৬০টি প্রশ্ন কিনতে পারেন।

২# কোনো সাবজেক্টে ভুল করেও যেন ফুল মার্কের এ্যান্সার করতে যাবেন না। কিন্তু সব প্রশ্নের উত্তর জানা থাকলে যদি ভুলে সব সঠিক উত্তর দিয়ে ফেলেন? সেক্ষেত্রে প্রতি বিষয়ে ২০টি প্রশ্ন এবং উত্তর পড়ে যাওয়াই নিরাপদ।

৩# কোনো তারকা ভাই বা দুলাভাই থাকলে আবারো চান্স পাওয়ার পর ফেসবুকে তার সাথে ছবি দেবেন না যেন!

 

৪# দুই-একটা এ্যান্সারে কাটাকাটি করবেন, যেন অভিনয়টা একেবারে নিখুত হয়।

৫# প্রশ্ন পাওয়ার পর মুরব্বীদের কাছে দোয়া চাইবেন না। দেখা গেলো, ৫০ তম হওয়ার মত উত্তর করে এসেছেন। কিন্তু মুরব্বীদের দোয়ায় আবারো আপনার প্রথম স্থান হয়েছে। তাই সর্বোচ্চ সতর্ক থাকাই শ্রেয়।

৬#  যেহেতু কয়েকটি ভুল উত্তর না দিলে আবারো ফার্স্ট হওয়ার ভয় থাকে, তাই বাসায় বসে ভুল উত্তর দেয়া অনুশীলন করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের মাধ্যমে নিজেই উত্তর পত্র বানিয়ে নিন। এবার হিসাব মত ভুল উত্তর পূরণ করুন।

৭# পরীক্ষার হলে ঢুকে পড়ার সাথে সাথে ভুলে যাবেন যে আপনি প্রশ্ন আগেই পেয়েছিলেন। প্রতিটা প্রশ্নের উত্তর দেয়ার আগে অনেক ভাবুন। খুব ভাবছেন এমন ভান করতে থাকুন। এতে করে আশে পাশের কেউও সন্দেহ করবে না। প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে এমন গুজবও ছড়াবে না।

 

৮# চান্স পাওয়ার পর খবরদার ইউসিসি বা অন্য কোনো কোচিং এর দেয়া মিষ্টি খাবেন না। তাদের দেয়া ল্যাপটপও নেবেন না।

৯# ফেসবুকে 'আলহামদুলিল্লাহ 'ঘ' ইউনিট, পজিশন- এত' লিখে স্ট্যাটাস দিবেন না। বিশেষ করে নিজের মেরিট পজিশনের স্ক্রিনশট পোস্ট করা থেকে বিরত থাকুন। এটাই অভিশাপ হয়ে দেখা দিতে পারে।

১০. তবে যেহেতু 'ভার্সিটিতে উঠলে আর পড়াশোনা নাই' তাই প্রশ্ন পাওয়ার পরও পড়াশোনা করেই পরীক্ষাটা দিন। প্রশ্ন পেতে পেতে যদি একেবারেই পড়াশোনার অভ্যাসটা চলে গিয়ে থাকে, তাহলে বাকিটা নিজেই টের পাবেন!

১৩১১ পঠিত ... ১৩:৪৭, অক্টোবর ৩০, ২০১৮

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

কৌতুক

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top