'ওয়ার্ক এট' ফেসবুকারদের চেষ্টায় ফেসবুকে দেখা যাচ্ছে ছবি, হতাশ জিরো ফেসবুক ইউজাররা

১৩১ পঠিত ... ১৮:১৬, জুলাই ০৪, ২০১৯

গতকাল (৩ জুন) রাতে আচমকাই এক অদ্ভুত সংকটে পড়েন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীরা। ইউরোপ-আমেরিকার পাশাপাশি বাংলাদেশের অনলাইন বাসিন্দাদের সবাই পান জিরো ডট ফেসবুকের অভিজ্ঞতা, ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, মেসেঞ্জার এবং ইন্সটাগ্রামে কেউ দেখতে পারছিলেন না কোন ছবি। এমন অবস্থায় যারা নিয়মিত দৈনন্দিন যাপনের সকল ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেন, কিংবা যারা মানুষজনের ছবি দেখতেই ফেসবুক-ইন্সটায় ঢু মারেন, তাদের সকলেই হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েন। তবে ফেসবুকের এই সমস্যা সমাধান হয়ে যাওয়ার পর সাধারণ ফেসবুকাররা যেখানে খুশি, সেখানে এবার হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন জিরো ফেসবুক ইউজাররা।

আমাদের জিরো ফেসবুক ইউজার প্রতিবেদকরা জানান, এক রাতের জন্য সাম্য প্রতিষ্ঠা হওয়াতে তাদের খুশির অন্ত ছিলো না৷ দিনের পর দিন যারা ডাটার অভাবে ছবি ছাড়া ফ্রি ফেসবুক চালিয়ে আসছিলেন, গতকাল রাতটা তাদের জন্য ছিলো বড় আনন্দের। এক রাতের জন্য সারা পৃথিবীতেই যেন চালু হয়ে গিয়েছিলো জিরো ফেসবুক খ্যাত ফেসবুকের ফ্রি ভার্সনটি। যারা সবসময় জিরো ফেসবুক চালায় তারা অবশ্য শুরুতে সার্ভার ডাউনের বিষয়টি জানতেই পারেনি। এ রকমই এক জিরো ইউজার মানিক আমাদেরকে জানায়, 'প্রতিদিনের মত কাল রাতেও আমার কাছে ফেসবুক স্বাভাবিকই ছিলো। ডাটার অভাবে জিরো ফেসবুক চালাচ্ছিলাম। হঠাৎই লিস্টের বড়লোক ওয়াইফাই ইউজার চৌধুরী বংশের একমাত্র উত্তরাধিকার মনির চৌধুরী নামে আমার এক বন্ধুর স্ট্যাটাসে জানতে পারি আজ কোথাও ছবি দেখা যাচ্ছে না। তারপর থেকেই নিজেকে আর দশজনের মত মনে হচ্ছিলো। ভুলেই গেছিলাম আমি গরীব। আমি জিরো ইউজার। মনে হচ্ছিলো দুনিয়ার সবাই আমার মতই।'

তবে আজ সকালে আবার সবাই ছবি দেখতে পারছে এমনটা জানালে মানিক অবাক হয়ে বলে, 'তাই নাকি? আমি তো টেরই পাইনি। অবশ্য বেল পাকলে কাকের আর ফেসবুকের সার্ভার ঠিক হয়ে গেলে জিরো ইউজারের কিছুই যায় আসে না।'

অন্যদিকে যারা সারাদিন ডাটা বা ওয়াইফাই চালায় গতরাতে তারা একটু হলেও জিরো ইউজারদের কষ্ট বুঝতে পেরেছে। মনির চৌধুরি তাই আমাদেরকে বলেন, 'কোনো মিম, ক্রাশের ছবি, ফানি ভিডিও আর eআরকির কন্টেন্ট না দেখে ফেসবুক চালানো যে কত কষ্টের কাল বুঝতে পেরেছি। এতোদিন আমার গরীব জিরো ইউজার বন্ধুরা কত কষ্টই না করেছে। আহারে! এখন থেকে গরীবদের মধ্যে মাঝে মাঝে ডাটা প্যাক বিতরণের চেষ্টা করব।'

তবে এরই মাঝে জানা গেছে এক দারুণ তথ্য! যাদের প্রোফাইলে ওয়ার্ক এট ফেসবুক দেয়া, তাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফলেই সার্ভার ঠিক হয়েছে বলে এক ফেক আইডির মাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন মার্ক জাকারবার্গ। অনলি মি এক স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, 'তখন ছিলো গভীর রাত। ফেসবুক অফিসের কর্মচারীরা অফিস শেষ করে বাসায় চলে গেছিলো। তখন সার্ভার কে ঠিক করবে আমি বুঝতে পারছিলাম না। আমার দরকার ছিলো কিছু পার্ট টাইম কামলা। পরে আমি বাংলাদেশের কিছু ওয়ার্ক এট ফেসবুক প্রোফাইলে দিয়ে রাখা কামলাদের খুজে পাই। তাদের সারারাতের চেষ্টায় আবারো সার্ভার ঠিক হয় ফেসবুকের।'

১৩১ পঠিত ... ১৮:১৬, জুলাই ০৪, ২০১৯

Top