প্রস্তাবিত বাজেটে চাটার্ড বিমান ও হেলিকপ্টারের ভাড়া বাড়ানোতে জনমনে উদ্বিগ্নতা

১১৫ পঠিত ... ২২:০১, জুন ১৩, ২০১৯

১৩ জুন (বৃহস্পতিবার) জাতীয় সংসদে পেশ করা হয়েছে ২০১৯-২০ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেট। কর ও শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাবে দাম বাড়তে পারে চিনি, গুঁড়ো দুধ, আইসক্রিম, স্মার্টফোন, মোটর সাইকেল, মোবাইল কলরেট থেকে শুরু করে ঘটকালি ও জ্যোতিষ ব্যবসাতেও। এর পাশাপাশি সম্পূরক শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে চার্টার্ড বিমান ও হেলকপ্টারে। খবর: প্রথম আলো।  

চার্টার্ড হেলকপ্টার অর্থাৎ হেলিকপ্টার ভাড়া নেওয়ার খরচ বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেওয়ায় দুশ্চিন্তা নেমে এসেছে রাজধানী ঢাকার বাসিন্দাদের মাঝে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হেলিকপ্টার ভাড়া বেড়ে যাওয়ার কথা শুনে অনেককেই শঙ্কা প্রকাশ করতে দেখা গেছে। হেলিকপ্টার ভাড়া বেড়ে যাওয়ায় ঢাকাবাসীর এমন চিন্তাগ্রস্থ অবস্থা দেখে বিস্মিত eআরকি অর্থনীতি বিশেষজ্ঞ দল অনুসন্ধানে নেমে পড়ে মাঠে। যোগাযোগ করা হয় বিভিন্ন স্তরের মানুষের সাথে।

প্রস্তাবিত বাজেট শুনে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এক তরুণ বলেন, ‘প্রতিদিন এতো জ্যাম ঠেইলা ঘুরতে আর ভালো লাগে না। ভাবছিলাম একটা বাইক কিনব! কিন্তু বাইকের দাম নাকি বাড়বে। বাইক কেনার তো কোন উপায় দেখতেছি না। তাই ভাবলাম, হেলিকপ্টারেই ঘুরাঘুরি করব। ওমা, এখন শুনি হেলিকপ্টারের ভাড়াও নাকি বাড়বে। আমরা কই যাই বলেন!’

এই কথার প্রতিধ্বনি পাওয়া যায় অন্য এক ব্যক্তির কথাতেও, তিনি eআরকিকে বলেন, ‘মানুষের বাসা হয় মিরপুর আর অফিস মতিঝিল। আমার বাসাই মতিঝিলে। প্রতিদিন সাত সিগন্যাল তেরো জ্যাম পার হয়ে যাইতে হয় মিরপুরের অফিসে। মেট্রোরেলের কাজ শুরু হবার পর থেকেই ভাবতেছিলাম, কিছু একটা করতে হবে। গত বছর ভাবলাম, হেলিকপ্টার দিয়েই নিয়মিত অফিস করব! আর ভালো লাগলে সামনে একটা হেলিকপ্টার কিনেই ফেলব। কিন্তু এখন শুনি ভাড়া নাকি বাড়ছে। অফিসে প্রতিদিন বসে ঝাড়ি খাইতে হয়। আমাদের মতন মধ্যবিত্তের জীবনে আর শান্তি নাই।’

অন্য এক ব্যক্তি eআরকিকে বলেন, ‘আরে ভাই, চিটিং সার্ভিসের ভাড়া নাহয় বাড়ে। তাই বইলা হেলিকপ্টারের ভাড়াও বাড়াইতে হইব! এইটা হাইস্যকর… হাইস্যকর! একদম হাইস্যকর।’

পাশাপাশি ক্ষোভ জানাতে দেখা গেছে ঘটকালি ও জ্যোতিষ ব্যবসায় কর বাড়ানোর প্রস্তাব নিয়েও। এই সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়ায় জ্যোতিষ ব্যবসা ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন নব্য জ্যোতিষরাজ ব্র্যান্ডন ম্যাককালামও। তবে ঘটকালিতে কর বাড়ানো বিষয়ে পাওয়া গেছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। ক্রমাগত প্রেমে ব্যর্থ হয়ে আসা বিয়ের জন্য উদগ্রীব তরুণ-তরুণীরা মুষড়ে পড়েছেন এই সিদ্ধান্তে। অন্যদিকে প্রেমে সফল অথচ এখনো বিয়ে করতে না পারা তরুণেরা দেখেছেন কিছুটা আশার আলো। তাদের ধারণা, ঘটকালির খরচ বেড়ে যাওয়ায় তাদের পরিবার এখন আর ঘটক দিয়ে পাত্র-পাত্রী খোঁজার চেষ্টা করবে না।

 

১১৫ পঠিত ... ২২:০১, জুন ১৩, ২০১৯

Top