ইংলিশে তো আমরা আগের থেকেই খারাপ, সেই প্রভাবই কি আজ পড়েছে বিশ্বকাপের মাঠে?

১৩৩ পঠিত ... ১৯:৪৬, জুন ০৮, ২০১৯

বিশ্বায়নের এই একবিংশ শতাব্দীতে এসেও বাংলাদেশের স্কুলে স্কুলে শিক্ষার্থীদের মাঝে এক আতংকের নাম হয়ে আছে ‘ইংলিশ’। স্কুল-কলেজ মিলিয়ে প্রায় এক যুগ ইংরেজি পড়লেও ‘আমরা তো ইংলিশে খারাপ!’ ধারণাটি এখনো রয়ে গেছে আমাদের মাঝে। বাঙালি ইংলিশে খারাপ, সেই সুযোগ নিয়ে লতাপাতা ব্যাঙের ছাতার মতো ছড়িয়ে ছিটিয়ে বেড়ে উঠেছে নানান ইংলিশ কোর্স, ইংলিশ টিউটররাও!

ইংলিশে ভয়ের ঐতিহ্য বজায় রেখে এবারের ক্রিকেট বিশ্বকাপেও বাংলাদেশ ভুগছে ইংলিশ নিয়ে। গত বেশ কয়েক বছর ধরে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলতে থাকা বাংলাদেশের কাছ থেকে এমন পারফরম্যান্সে হতাশ অনেকেই। এ নিয়ে কথা বলতে গেলে এক  স্কুলপড়ুয়া সন্তানের অভিভাবক জানান, ‘আমার ছেলে সারাদিন কতো পড়ালেখা করে। অথচ তবুও ইংলিশে খারাপ করে ফেলে। আর ন্যাশনাল টিমের ক্রিকেটাররা তো সারাজীবন ক্রিকেট নিয়েই পড়ে ছিল। সারাদিন এতো ক্রিকেট খেললে কি ইংলিশে ভালো করা যায়?’

ইংলিশকে কঠিন ‘সাবজেক’ বলে দাবি করে একজন eআরকিকে বলেন, ‘ইংলিশ ইজ হার্ড সাবজেক। রিড ওয়েল, ইউ উইন ইংলিশ। ডোন্ট রিড ইংলিশ, ইউ লস্ট দ্য ম্যাচ।’

তবে কোন কোন ইতিহাসবিদ আমাদের ভিন্ন মন্তব্য জানিয়েছেন। এক বিশেষজ্ঞ eআরকিকে বলেন, ‘পলাশীর যুদ্ধে ইংরেজরা আমাদের হারিয়েছিল। তখন থেকেই আমরা ইংলিশ নিয়ে স্ট্রাগল করে যাচ্ছি। কিন্তু সাতচল্লিশ আসতে আসতে আমরা ইংলিশ বুঝে গিয়েছিলাম। তাতেই ওরা হেরে গেল।’

অথচ এই ইংলিশদের বিরুদ্ধেই তো পরপর দুই বিশ্বকাপে ম্যাচ জিতেছিল বাংলাদেশ। এমনকি দেশের মাটিতে টেস্ট ম্যাচও হারিয়েছিল ইংলিশদের। তাহলে এই ইংলিশ না বোঝার কারণ কী? এমন প্রশ্নের উত্তরে এক ভাষাবিদ বলেন, ‘দেখুন, ১১ বিশ্বকাপে খেলা হয়েছিল চট্টগ্রামে। সেখানকার দুর্বোধ্য স্থানীয় ভাষাকে পুঁজি করেই বাংলাদেশ হারিয়েছিল ইংলিশদের। আর ১৫ বিশ্বকাপে খেলা হয়েছিল অস্ট্রেলিয়ায়। ওদের ইংরেজি তো আমরা তো আমরা ব্রিটিশরাও বোঝে না! কোথায় লড়াই হচ্ছে সেটিই গুরুত্বপূর্ণ। এবার ইংল্যান্ডে খেলা হচ্ছে… বুঝতেই পারছেন!’  

তবে অবিশ্বস্ত একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, গত দুই বিশ্বকাপে ইংলিশে সাফল্য আসার পিছনে রয়েছে সাইফুর্সের অবদান। ফার্মগেটের মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকা এক কোচিং বিশারদ আমাদের এই তথ্য জানান।

১৩৩ পঠিত ... ১৯:৪৬, জুন ০৮, ২০১৯

Top