জাতীয় পার্টির অভিনব আবিষ্কার 'যেমন খুশি তেমন লেখো' কার্ড

২৪০ পঠিত ... ১৪:৫১, মে ২৬, ২০১৯

গত ২৫ মে এটিএন বাংলার সাংবাদিক জ ই মামুন নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে একটি দাওয়াতের কার্ডের ছবি পোস্ট করেন। জাতীয় পার্টির তরফ থেকে পাঠানো খামের ভেতরে থাকা কার্ডে লেখা ছিল না কিছুই। ধারণা করা হচ্ছে, এটি ‘যেমন খুশি তেমন লেখো’ গোত্রের একটি ইনভাইটেশন কার্ড।

কার্ডের ছবি শেয়ার করতে জ ই মামুন লেখেন, ‘জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান, সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা এবং সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের দপ্তর থেকে অফিসে আমার নামে একটি কার্ড এসেছে। ভাবলাম ঈদ কার্ড বা ইফতারির দাওয়াত কার্ড। খাম খুলে দেখি জাতীয় পার্টির মনোগ্রাম ছাড়া কার্ডের এপিঠে ওপিঠে আর কিছু লেখা নেই!’ এরপর তিনি জানতে চান যে, এই কার্ডটি কি তার বাধিয়ে রাখা উচিত কি না। অবশ্য খুব দ্রুতই অনেকে কার্ডটির অর্থোদ্ধারের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের কথা বলতে থাকেন। কেউ কেউ দাবি করেন, কার্ডে লেবুর রস, ভিনেগার কিংবা অদৃশ্য কালি দিয়ে সবকিছু লেখা আছে পানিতে ভিজিয়ে নিলে কিংবা আগুনে তাপ দিলেই সব স্পষ্ট হয়ে যাবে।

আবার কেউ কেউ ধারণা করেন, এটি একটি বিশেষ কোন ইঙ্গিত। পুরো সাদা পাতার কার্ডটি নিশ্চয়ই কোন গূঢ় অর্থ বহন করে! অনেকে বিশ্বযুদ্ধ এবং নানান সংকটময় পরিস্থিতির কথা মনে করিয়ে দিয়েছেন, যখন অদৃশ্য কালিতে স্পর্শকাতর বার্তা প্রেরণ করত। তবে এসব কথায় বিভ্রান্ত না হয়ে একেবারে সত্যিটা জানতে eআরকি চলে গিয়েছিল জাতীয় পার্টির অফিসে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাতীয় পার্টির এক নেতা জানান, তাদের পার্টির থিমের সাথে মিল রেখেই এই ইনভাইটেশন কার্ড ছাপানো হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আপনারা তো জানেনই যে, আমাদের নেতার অনেক বেশি মুড সুইং হয়। দাওয়াতের সময় ঠিক করলাম একটা, হুট করে পরে দেখা যাবে সেইটা বদলে দিছেন তিনি। এমন হইলে তো অনেক ঝামেলা। তাই কোন রিস্ক নেই নাই। নিজের মতো করে দাওয়াত লিখে নিলেই চলবে। সবাই খুশি, আমরাও নিশ্চিন্ত।’

তবে ইনভাইটেশন কার্ডে গোপন কোন বার্তা বা কোন সংকেত আছে, এমন অভিযোগ উড়িয়ে দেন এই নেতা। তিনি eআরকিকে বলেন, ‘কিছু মানুষ আছে, যারা সাদা মনের মানুষদের মধ্যেও অন্ধকার দিক খোঁজে। এরাই এসব কথা বলছে। ইনভাইটেশন কার্ড ও আমাদের রাজনৈতিক অর্জনের মতো আমাদের মনও একেবারে সাদা।

২৪০ পঠিত ... ১৪:৫১, মে ২৬, ২০১৯

Top