বিসিএস বাদ দিয়ে আসবাবপত্র ফ্ল্যাটে তোলার পেশার দিকে ঝুঁকছেন তরুণেরা

২৭৩৯ পঠিত ... ২১:০৩, মে ১৬, ২০১৯

দেশের ক্রমবর্ধমান বেকারত্ব দূর করতে ফ্ল্যাটে ফার্নিচার তোলার পেশায় ঝুকছে তরুণরা। সম্প্রতি রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কর্মকর্তাদের বাসায় ফার্নিচার তোলার খরচের পরিমাণ দেখে এটাকেই পেশা হিসাবে নেয়ার কথা ভাবছেন অনেকেই। অন্য যেকোনো পেশা থেকে বাসাবাড়িতে ফার্নিচার তোলা অধিক লাভজনক হবে বলে জব বিশেষজ্ঞদেরও ধারণা।

রূপপুরের উল্লেখিত প্রকল্পে বাসায় ফার্নিচার তোলার কাজে নিয়োজিত এক যুবক eআরকিকে জানায়, 'মাত্র দশটা ওয়াশিং মেশিন তোলার টাকা দিয়েই গুলশানে ফ্লাট কিনেছি। কিন্তু ফ্ল্যাট কিনতেই টাকা শেষ৷ এখন আর ফ্ল্যাটে আসবাবপত্র তুলতে পারতেছি না। ফ্ল্যাটে ফার্নিচার তুলতে যে খরচ, বাবাহ!'

নতুন ফ্ল্যাটটিতে আসবাবপত্র তোলার জন্য গ্রাম থেকে জমি বিক্রি করে টাকা আনার পরিকল্পনা করেছেন বলে এই যুবক আমাদেরকে জানান।

এদিকে কিছু বাবা-মায়েরা তাদের সন্তানের ভবিষ্যতের কথা ভেবে স্কুল কলেজে ভর্তি না করে জিমে ভর্তি করছেন বলেও জানা গেছে। ধানমন্ডির এক জিমের সামনে বসে থাকা দুই মা জানায়, 'অনেক স্বপ্ন আমার ছেলেদের নিয়ে। আমরা চাকরি-বাকরি করে বেতনের টাকা দিয়ে টেনেটুনে সংসার চালাচ্ছি। আশা করছি আমাদের সন্তান বড় হয়ে ফ্ল্যাটবাড়িতে ফার্নিচার তোলার কাজ করর সাবলম্বী হবে। সুখ আর সচ্ছলতার মুখ দেখবে।'

হাসান নামের বডিবিল্ডার এক তরুণ জানায়, 'বডি বানিয়েছিলাম ভারোত্তলনে জাতীয় পর্যায়ে সোনা জেতার জন্য। সেই সৌভাগ্য না হলেও বাসাবাড়িতে ফার্নিচার তোলার কাজ পেয়ে গেছি৷ এখন আমি চাইলেই এরকম সোনার মেডেল প্রতিদিন কিনতে পারি দোকান থেকে।' শুধু ভারোত্তলকরা নন, নতুন এই পেশায় আগ্রহী হয়েছেন পর্বতারোহীরাও। জানালেন এমনই একজন, 'গত ১০ বছর ধরে এভারেস্টে ওঠার লক্ষ্য নিয়ে মাউন্টিনিয়ারিং করছি। দেশের সবগুলো পাহাড়ে ওঠা শেষ। তবু এভারেস্ট যাত্রার জন্য যথেষ্ট টাকা জমাতে পারিনি। এখন ফার্নিচার নিয়ে ফ্ল্যাটে ফ্ল্যাটে উঠব ভাবছি। দশ বারোটা বালিশ একটা ওভেন নিয়ে কয়েক খ্যাপ মারলেই টাকা উঠে যাওয়ার কথা। আই এম এক্সাইটেড!'

স্বাধীন এই পেশায় তরুণরা ঝুকলে দেশ আগামী পাঁচ বছরের মধ্যেই দেশ মধ্যম আয় থেকে উচ্চ আয়ের দেশে পরিণত হবে, এমনটাই দাবি বিশেষজ্ঞদের। বুয়েট থেকে সদ্য পাশ করা এক তরুণ eআরকিকে বলেন, 'আমার সামনে দুইটা অপশন ছিলো। এক, ভালো কোনো কোম্পানিতে লাখ টাকা বেতনে জব করা। আর দুই, ফ্ল্যাটে ফার্নিচার তোলার কাজ করে কোটিপতি হওয়া৷ আমি দ্বিতীয়টাই বেছে নিয়েছি।'

২৭৩৯ পঠিত ... ২১:০৩, মে ১৬, ২০১৯

Top