সিগারেটের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে সিগারেটে অগ্নিসংযোগ করে স্মোকারদের প্রতিবাদ

১৫৬ পঠিত ... ২১:০৭, মে ১৩, ২০১৯

[সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: ধূমপান মৃত্যু ঘটায়! eআরকি একটি স্যাটায়ার ওয়েবসাইট। eআরকি ধূমপানকে প্রাণঘাতী একটি নেশা হিসেবেই দেখে।]


২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটকে সামনে রেখে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে দেওয়া এক চিঠিতে সিগারেটের দাম বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সুপারিশ করেছে সিগারেটের সর্বনিম্ন দাম ৯ টাকা ধার্য করার। পাশপাশি ১২ টাকার বেনসন ও ৮ টাকার গোল্ডলিফ এবং এদের সমপর্যায়ের সব সিগারেটের দাম বাড়িয়ে যথাক্রমে ২০ ও ১৬ টাকা করার। খবর: যুগান্তর।

এই প্রস্তাবের সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া না গেলেও অনলাইনে খবরটি সিগারেটের ধোঁয়ার মতো হুসহুস করে ছড়িয়ে পড়েছে চারদিকে। সিগারেটখোর জনতার মাঝে খুব স্বাভাবিকভাবেই এই খবরে সৃষ্টি হয়েছে চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রতিবাদে মুখর হয়ে ওঠেন ধূমপায়ীরা। নানান রকম প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যায় ফেসবুকে।

অর্থাৎ স্মোকারদের মনে স্বাভাবিকভাবেই দুশ্চিন্তার ঘনঘটা। অনলাইএর প্রতিবাদকে আরও গতিশীল ও বাস্তব করে ফুটিয়ে তোলার লক্ষ্যে এক মানববন্ধনের ডাক দেয় স্মোকারদের অধিকার নিয়ে কাজ করা নবগঠিত একটি সংগঠন। আজ ইফতারের পরে ঢাকা প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এই মানবন্ধনে যোগ দেন নানা পেশা ও বয়সের স্মোকাররা। রাস্তায় একত্রিত হয়ে সকলে নিজ নিজ সিগারেটে অগ্নিসংযোগ করে দাম বৃদ্ধির প্রস্তাবের প্রতিবাদ জানান।

এই সময়ে প্রেসক্লাব থেকে শাহবাগ পর্যন্ত এই পুরো অঞ্চল তীব্র ধোঁয়ার কুন্ডুলিতে ছেয়ে যায়। অন্ধকার নেমে আসে ঢাকার আকাশে বাতাসে। অনেক দূর থেকে এই ধোঁয়ার মেঘ দেখা গেছে বলে নিশ্চিত করেছেন eআরকির বিভিন্ন এলাকার প্রতিনিধিরা। এমনকি অনেকে অগ্নিকাণ্ড ভেবে ফায়ার ব্রিগেডে ফোন করে ফেলেছেন বলেও খবর পাওয়া গেছে।

সিগারেটের দাম বৃদ্ধি প্রস্তাবের তীব্র সমালোচনায় মেতে উঠেছিলেন মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা। সামনের দিনগুলোর কথা ভেবে এক ধূমপায়ী বলেন, ‘আমি ভাবছি সিগারেট ছেড়েই দিব। এভাবে আর চলবে না। এতো টাকা খরচ করার কোন মানেই হয় না।’ এই বলে তিনি হাতে থাকা জ্বলন্ত সিগারেটে এক লম্বা টান দিলে, পাশ থেকে আরেকজন ‘ফার্স্ট কল’ বলে চেঁচিয়ে ওঠেন। তখন তিনি আরও বলেন, ‘দেখলেন অবস্থাটা! এখনই শেয়ার করে সিগারেট খাওয়ার অভ্যাস শুরু করে দিচ্ছে সবাই। সামনের দিনগুলোতে যে কী হবে?’

সিগারেটের দাম বাড়ার আশঙ্কায় নিজ উদ্যোগে তামাক চাষ করার কথাও ভাবছেন অনেকে। এক স্মোকার বলেন, ‘পুঁজিবাদী বুর্জোয়াদের পকেটে অনেক টাকা ঢেলেছি। এখন নিজেকেই হতে হবে স্বাবলম্বী। স্কুলে পড়া কৃষিশিক্ষার জ্ঞান কাজে লাগিয়ে বারান্দাতেই তামাক চাষ শুরু করব বলে ভাবছি।’ এ কথায় সায় দেন আরও অনেকেই।

পরে মানববন্ধন শেষে অংশগ্রহণকারীদের একটা অংশ বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে টিএসসিতে এসে পৌঁছে আবারও এক দফা সিগারেটে আগুন ধরিয়ে প্রতিবাদ করেন। এরপর সবাই যার যার সিগারেটের ফিল্টার দেয়ালে স্মারক হিসেবে গেঁথে দেন উপস্থিত স্মোকাররা।

১৫৬ পঠিত ... ২১:০৭, মে ১৩, ২০১৯

Top