বাংলাদেশ থেকে চক পাউডার-ময়দা মেশানো দুধ আমদানি করতে চায় নিউজিল্যান্ড

১৪১ পঠিত ... ২০:২০, মে ১১, ২০১৯

গত ৯ মে (বৃহস্পতিবার) কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব পৌর শহরের জগন্নাথপুর দুধবাজারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) নেতৃত্বে অভিযান চালানো হয়। আভাস পেয়ে গোয়ালারা দুধ রেখে দৌড়ে পালিয়ে যান এবং জব্দকৃত তরল দুধ পরীক্ষা করে দেখা যায়, প্রতি লিটারে অল্প পরিমাণ দুধের সাথে ৭০০-৭৫০ গ্রাম পানি, চক পাউডার এবং বিভিন্ন কেমিক্যাল মিশানো। খবর: প্রথম আলো।

এই খবরে দেশের ভিতর বেশ সমালোচনা লক্ষ্য করা গেলেও অভূতপূর্ব সাড়া পাওয়া গেছে এক দূরদেশ থেকে। যে দেশে বারো মাস, গরু খায় সবুজ ঘাস; সেই দুধের দেশ নিউজিল্যান্ডেই সাড়া ফেলে দিয়েছে নতুন ফর্মুলার দুধ। বাংলাদেশ থেকে প্রচুর পরিমাণে দুধ আমদানির আগ্রহ প্রকাশ করেছে দক্ষিণের শান্ত সুনিবিড় দেশটি। আজ এক বিবৃতিতে এই ইচ্ছার কথা জানিয়েছেন কিউই ডেইরি মালিক অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক।

বাংলাদেশে নিউজিল্যান্ডের দুধের চাহিদা বেশ দীর্ঘদিন ধরেই। এক বিভ্রান্তিকর পরিসংখ্যানে জানা যায়, বাংলাদেশে প্রাপ্ত গুড়া দুধের ৯৮ শতাংশ আসে নিউজিল্যান্ড থেকে। ধারণা করা হয়, নিউজিল্যান্ডের সকল গরু সরাসরি গুড়া দুধ দিয়ে থাকে বলে, এই দুধ মান ও পুষ্টিগুণে অনন্য।  সেই নিউজিল্যান্ডই কেন চক-পানি-ময়দা মিশ্রিত দুধ কিনতে চাচ্ছে, এই প্রশ্নের উত্তর জানতে নিউজিল্যান্ডে যোগাযোগ করে eআরকি। এক ডেইরি ব্যবসায়ী বলেন, ‘গরু পাউডার দুধ দিতে পারে, তরল দুধ দিতে পারে। কিন্তু চক-ময়দা মিশানো দুধ দিতে পারে এটা আমাদের জানা ছিল না। এই খবর জেনে আমাদের আগ্রহ হচ্ছে এই দুধ খেয়ে দেখতে। নিশ্চয়ই এই দুধের পুষ্টিগুণ আমাদের দেশের গরুর দুধের চাইতেও ভালো হবে।’

অভিনব দুধের কথা জানতে পেরে আনন্দিত নিউজিল্যান্ডের কৃষি গবেষকরাও। বাংলাদেশের গোয়ালাদের এমন ফর্মুলার কথা জানতে পেরে সে দেশের এক শীর্ষ গবেষক বলেন, ‘বাংলাদেশি গোয়ালাদের প্রতি শ্রদ্ধায় আমার মাথা নত হয়ে আসছে। তারা গরুকে কীভাবে ম্যানিপুলেট করলেন যে, গরু এমন চমৎকার দুধ দিচ্ছে… ভাবা যায় না! চক-ময়দার দুধ খেতে আমার আর তর সইছে না।’ এক পুষ্টিবিজ্ঞানী eআরকিকে বলেন, ‘দুধে সব খণিজ উপাদান পর্যাপ্ত পরিমাণে নাও পেতে পারেন আপনি। কিন্তু চকে আছে প্রচুর ক্যালসিয়াম, যা আপনার দাঁত ও হাড়কে সুগঠিত করবে। এছাড়া ময়দায় আছে প্রচুর কার্ব! ফলে এই দুধ আপনার দেহকে করবে দৃঢ় এবং আপনাকে করবে শক্তিশালী।’

শুধু নিউজিল্যান্ডই নয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশ থেকে দুধ আমদানি করার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছে। চক এবং ময়দার অভাব মেটাতে এই দুধ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করেন এক জাপানি চক নির্মাতা। আবার প্রতি লিটার দুধে ৭৫০ গ্রাম পানি মেশানোর খবরে মরু দেশগুলো থেকেও ব্যাপক সাড়া লক্ষ্য করা গেছে। একটি মরু দেশের এক ডেইরি মালিক আমাদের জানান, ‘এই গরমে পানির প্রচণ্ড সংকট দেখা যায়। কিন্তু বাংলাদেশি দুধ খেলে আলাদা করে আর পানি খেতে হবে না… সাথে চক এবং ময়দার পুষ্টি তো আছেই। তাই এবারের গরমে চাই বাংলাদেশি দুধ!’

১৪১ পঠিত ... ২০:২০, মে ১১, ২০১৯

Top