'না বোধক' নামকে বেশি সিরিয়াসলি নিয়েই চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বিদায় নিয়েছে বার্সেলোনা

৫২৬ পঠিত ... ১৯:২৫, মে ০৮, ২০১৯

৭ মার্চ দিবাগত রাতে চ্যাম্পিয়নস লিগে লিভারপুলের কাছে ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়ে সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নেয় স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা। প্রথম লেগে ৩-০ গোলের জয় পেয়েও দ্বিতীয় লেগে এক হালি গোলে হেরে এমন অপ্রত্যাশিত বিদায়ে বার্সেলোনা সমর্থকদের মাঝে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। পাশাপাশি শোকের পাল্লা ভারী হয়েছে আর্জেন্টিনা সমর্থকদেরও।

দীর্ঘদিন ধরেই আর্জেন্টিনা সমর্থকদের ক্লাব শাখা হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছে বার্সেলোনা। বিশেষত এই ক্যাটালান ক্লাবটিতে আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় হয়ে উঠতে থাকলে আর্জেন্টাইন সমর্থকদের কাছেও ক্লাবটি গুরুত্ব পেতে থাকে। তার উপর দীর্ঘদিন ধরে শিরোপাশূন্য থাকা আর্জেন্টিনার সমর্থকরা শিরোপার স্বাদ ঘোচাতেও দুর্দান্ত ফর্মে থাকা বার্সেলোনাকেই বেছে নেন ত্রাতা হিসেবে।

আর্জেন্টিনা সমর্থকদের বাড়তি চাপ গত প্রায় দেড় যুগ ধরে খুব ভালো মতোই সামলে আসছে বার্সেলোনা। ২০১৫ সালের পর আর চ্যাম্পিয়নস লিগ না জিতলেও লা লিগা এবং কোপা দেল রে’র মাধ্যমে শিরোপার স্বাদ পেয়েই আসছিল আর্জেন্টিনা-বার্সা ঐক্যজোটের। এছাড়াও এই জোটের ইংলিশ শাখা ম্যানচেস্টার সিটিও শিরোপাবঞ্চিত আর্জেন্টাইন ক্ষতে প্রলেপ দিয়েছে কখনো কখনো। তবে পরপর দুই চ্যাম্পিয়নস লিগের নকআউট পর্বে প্রথম লেগে তিন গোলে এগিয়ে থেকেও পরের লেগে বিধ্বস্ত হয়ে বিদায় নেওয়ার ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছেন আর্জেন্টিনা-বার্সা সমর্থকরা। এক অদৃশ্য জুজুর ভয়ে ভীত হয়ে পড়ছেন তারা।

নতুন মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা এই শঙ্কা হচ্ছে বার্সেলোনার নাম। আর্জেন্টিনা সমর্থকদের ধারণা, নামের শেষে ‘না’ থাকার কারণেই যুগের পর যুগ ধরে বিশ্বকাপকে ‘না’ বলে আসছে দলটি। অনেকে তো আর্জেন্টিনাকে আদর করে 'আর-জেতে-না'ও বলে থাকেন! বার্সেলোনার নামের শেষেও ঠিক এমনই একটি ‘না’ আছে। কিন্তু এতদিন তো এই ‘না’ নিয়েই বার্সা জিতে গেল একের পর এক শিরোপা। এমনকি এই মৌসুমেও লিগসহ দুটো শিরোপা জিতেছে ক্যাটালানরা। তাই হঠাৎ করে এখন কেন এমন ভয় করছেন, এমন প্রশ্নের জবাবে এক যুগপৎ আর্জেন্টিনা-বার্সা সমর্থক বলেন ‘ভয় তো আমরা করতে চাই নাই। কিন্তু এমনে কইরা বারবার চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বাদ পইড়া গেলে তো ভয় হয়। আমরা চাই না আর্জেন্টিনার মতো কোন আছরে পড়ে যাক আমাদের অন্ধের যষ্টি বার্সা।’

আবার আর্জেন্টিনা কীভাবে ‘না’ নিয়েও ৮৬-র বিশ্বকাপ জিতেছিল তার একটা যুতসই ব্যাখ্যা দিয়ে এক বিশ্লেষক বলেন, ‘৮৬ বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার প্রধান খেলোয়াড় ছিলেন ম্যারাডোনা। তার নামেও ছিল ‘না’। ফলে মাইনাসে মাইনাসে হয়ে যায় প্লাস! এজন্যই দেখুন, বিরোধী দলগুলো কেবলই ম্যারাডোনাকেই আক্রমণ করত। তারা জানত, তাকে মাঠ থেকে বের করে দিলেই দলের এই আধ্যাত্মিক ভারসাম্য হারিয়ে যাবে।’ তাই এখন দলে ভারসাম্য ফিরিয়ে আনতে খোদ লিভারপুলের দিকেই হাত বাড়ানোর পরামর্শ দিলেন এই বিশেষজ্ঞ, ‘তারা অ্যাডাম লালানাকে নিয়ে আসুক লিভারপুল থেকে। সুয়ারেজ আর কৌতিনহোর চাইতেও লালানা নিঃসন্দেহে ভালো ডিল হবে। লালানার ‘না’ আর বার্সেলোনার ‘না’ মিলে একটা সাম্যাবস্থা সৃষ্টি হতে পারে। তখনই দেখবেন বার্সা আবার ইউরোপের বিশ্বকাপ অর্থাৎ ইউসিএল জয়লাভ করবে।’

অফ দ্য রেকর্ডে তিনি মেসির নাম পরিবর্তন করে 'লিওনেল মেসিনা' রাখারও পরামর্শ দেন! 

৫২৬ পঠিত ... ১৯:২৫, মে ০৮, ২০১৯

Top