তিনদিন ধরে আবহাওয়া অধিদপ্তর যেই বৃষ্টির কথা বলছে, কোথায় সেই বৃষ্টি?

১৩২ পঠিত ... ১৭:০৩, এপ্রিল ৩০, ২০১৯

সারাদেশে চলমান দাবদাহ কমবে বলে জানিয়েছিল আবহাওয়া অধিদপ্তর। এছাড়া ২৭ এপ্রিল (শনিবার) বিকেলে হালকা ও মাঝারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাসও দেওয়া হয়েছিল। খবর: সময়নিউজ (২৭ এপ্রিল)।

মার্চ মাস শেষ হয়েছিল ঝড় বৃষ্টি দিয়ে। এপ্রিল মাসের শুরুতেও কিছুটা ঝড়-বৃষ্টি দেখেছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ। তবে এপ্রিল মাস যত এগিয়ে যেতে থাকে দেশব্যাপী উষ্ণতা বাড়তেই থাকে। তবে এপ্রিলের শেষ দিকে এসে ভারত মহাসাগরে একটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হলে উৎফুল্ল হয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তর বৃষ্টির পূর্বাভাস জানায়।

শুধু বৃষ্টিই নয়, ২৭ এপ্রিল দেশের বিভিন্ন স্থানে কালবৈশাখী এমনকি শিলাবৃষ্টির পূর্বাভাস দেয় আবহাওয়া অধিদপ্তর। খবর: ডেইলি স্টার। অথচ সিলেট বাদে দেশের আর কোথাও বৃষ্টির কোন খবর পাওয়া যায়নি। এই তীব্র গরমেও এমনসব পূর্বাভাসে অনেকেই প্রতারণার অভিযোগ এনেছেন আবহাওয়া অধিদপ্তরের নামে। ক্ষোভ প্রকাশ করে এক উষ্ণার্ত বলেন, ‘আমি শনিবার পূর্বাভাস দেখে রেইনকোট নিয়ে বের হইছিলাম। বৃষ্টি তো হইলই না, মাঝখান দিয়ে আমার রেইনকোট হারাইয়া গেছে। আমার রেইনকোট এখন কে ফিরিয়ে দিবে?’

এই পর্যায়ে মনের দুঃখে তিন নিজের অজান্তেই গুনগুন করে গেয়ে ওঠেন, ‘বন্ধু তিনদিন তোর রিপোর্ট পড়লাম বৃষ্টি হইলো না… বন্ধু তিনদিন…’।

এদিকে কালবৈশাখীর এই ভুল স্পয়লারে প্রচুর মানুষ নানা রকম বিভ্রান্তির শিকার হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। এক ভুক্তভোগী মিরপুরবাসী eআরকিকে বলেন, ‘আমি সাঁতার পারি না ঠিকমতন। তাই ঝড়-বৃষ্টির কথা শুনে তাড়াতাড়ি বাসায় ফিরে গেছি। কিন্তু কোথায় ঝড়?’ আবার অনেকেই বাড়তি ইনকামের আশায় রাস্তা পারাপারের জন্য নৌকা নিয়ে প্রস্তুত ছিলেন। তাদেরকেও হতাশ হতে হয়েছে বৃষ্টি না হওয়ায়। বৃষ্টির সময় পার্টটাইম জেলে হিসেবে চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন স্থানে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করা এক ব্যক্তি eআরকিকে বলেন, ‘আমি নৌকা আর জাল ভাড়া নিছিলাম। এখন এই জাল দিয়ে আমি কী করব?’

তবে অন্য চিত্রও আছে। পুরনো ফর্মে ফিরে যাওয়ায় অনেকেই অভিনন্দন জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিদপ্তরকে। এ ব্যাপারে এক সমাজবিজ্ঞানী বলেন, ‘মাঝে কিছুদিন আবহাওয়া অধিদপ্তর আধুনিক হবার চেষ্টা করলেও আবার যে তারা পুরনো রূপে ফিরে এসেছে, তাকে আমরা স্বাগত জানাই। পুরনো ঐতিহ্যকে ধরে রাখা আমাদের সবার দায়িত্ব।’ সাধারণ মানুষেরা খুশি আগেকার দিনের মতো পূর্বাভাস দেখেই আবহাওয়া সম্পর্কে নিশ্চিন্তে বিপরীত সিদ্ধান্তে চলে যেতে পারবেন বলে।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা এসব অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ‘গেম অফ থ্রোনস সেই ফার্স্ট সিজন থেকে ‘উইন্টার ইজ কামিং’ বলতেছে। অথচ সেই শীত আসছে ৮ বছর পর। তাইলে আমরা আজকে বৃষ্টির কথা বলছি দেখে ভুল কী হইল? অন্তত তিনটা সিজন তো দেখেন। এত তাড়াহুড়া করলে কি চলে?’

১৩২ পঠিত ... ১৭:০৩, এপ্রিল ৩০, ২০১৯

Top