আরও চার বিএনপি নেতা সংসদে যোগ দেওয়ায় শোকে মুহ্যমান মির্জা ফখরুল

২২৫ পঠিত ... ১৯:৫৭, এপ্রিল ২৯, ২০১৯

দলীয় সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে সাংসদ হিসেবে শপথ নিয়েছেন বিএনপি থেকে নির্বাচিত আরও চারজন। ২৯ এপ্রিল (সোমবার) ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উকিল আব্দুস সাত্তার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের হারুনুর রশীদ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের আমিনুল ইসলাম ও বগুড়া-৪ আসনের মোশাররফ হোসেন শপথ নেন। খবর: বিডিনিউজটুয়েন্টিফোর।

এই খবরে মুষড়ে পড়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। একাদশ জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি থেকে বিজয়ী ৬ প্রার্থীর মাঝে একমাত্র তিনিই রয়ে গেলেন সংসদ সদস্য না হয়ে। এর আগে গত ২৫ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন জাহিদুর রহমান জাহিদ। এরপরই তাকে বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয়।

এই নিঃসঙ্গ জীবনে স্বভাবতই ভেঙে পড়েছেন বিএনপির মহাসচিব। রাজধানীর পল্টন অঞ্চলে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, ফখরুল ইসলাম আলমগীরের শোকে অফিসটির ইট-পাথরও শোকাহত। এ নিয়ে জানতে চাইলে আবেগঘন কণ্ঠে ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘কতো ভেবেছিলাম, আমরা সবাই একসাথে থাকব। ঐ জাহিদটাকে দল থেকে বের করে দিয়ে ভেবেছিলাম, একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করা গেল! কিন্তু এখন দেখি বাকিরাও আমাকে একলা রেখে চলে গেল।’

নির্বাচনে জয়ী হয়ে সংসদে যাওয়ার মতো একটি স্বাভাবিক কাজে এতো মুষড়ে পড়েছেন কেন, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সংসদে কখনো কারেন্ট যায় না। ওরা একলা একলা আমাকে রেখে এই গরমে আরাম করে এসির বাতাস খাবে? তারা এটা কী করে পারল! আমি তো জানি, সংসদ ভবনের এসি কতো ঠাণ্ডা বাতাস দেয়!’

তিনি কেন সাংসদ হিসেবে যোগ দিলেন না, এমন প্রশ্নের কোন সরাসরি জবাব দেননি ফখরুল ইসলাম। তবে সামনেই রোজা এবং তারপরের ঈদের কথা ইঙ্গিত করে আফসোসের সুরে তিনি বলেন, ‘আর কয়টা দিন অপেক্ষা করে ঈদের পরে সংসদে যেতে পারত তারা।’ তবে এই ঈদটিও বিএনপির আন্দোলনের জন্য প্রতীক্ষিত ঈদটির মতো কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।  

তবে এই ঘটনায় বিচলিত বিএনপি নেতাকর্মীদের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। কেউ খুশি, নেতাদের সংসদ গমনে, আবার কেউ দলের ‘ঐক্য’ নষ্ট হয়ে যাওয়া নিয়ে চিন্তিত। নির্বাচনের আগে ‘জেলের ভেতর মাকে আর থাকতে দেব না’ গানটি গেয়ে জনপ্রিয় হয়ে যাওয়া সেই গায়ককে পাওয়া যায় নতুন রূপে। ছড়াকার পরিচয়ে আত্মপ্রকাশ করে তিনি এখন ক্রমাগত বলে চলেছেন, ‘ হারাধনের ছয়টি ছেলে, সবটি ধরে ভেক; পাঁচটা গেল সাংসদ হতে, রইল বাকি এক।’

২২৫ পঠিত ... ১৯:৫৭, এপ্রিল ২৯, ২০১৯

Top