ওয়াসার পানির শরবত খেতে একদম ট্যাস না, জানালেন আত্মগোপনে থাকা এমডি

৯৫৮ পঠিত ... ১৮:২২, এপ্রিল ২৩, ২০১৯

[eআরকি একটি স্যাটায়ার ওয়েবসাইট। এখানে প্রকাশিত যেকোনো খবর বিশ্বাস করা তো দূরের কথা, অবিশ্বাসও করবেন না!]

 

ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান গত ২১ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়। তার এমন বক্তব্যের পর আজ জুরাইনের কয়েকজন বাসিন্দা ওয়াসার পানি দিয়ে শরবত তৈরি করে এমডিকে খাওয়ানোর জন্য ওয়াসা কার্যালয়ে নিয়ে আসলে এমডি তাসকিম খানকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেছেন, 'আমি তো কারো পানিতেই.. কারোই তো খাব না। আমি তো খাব আমার পানি। আমি কোনটা খাব না খাব; সেটা তো আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার।' 

তবে গোপন সূত্রের খবর অনুযায়ী, ওয়াসার পানির শরবতাতঙ্কে আত্মগোপন করেছেন তিনি। সেই সাথে ওয়াসা ভবনে পাওয়া যাচ্ছে না কোনো উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাকেও। ধারণা করা যাচ্ছে, এমডি স্যারের দেখাদেখি তারাও নিজেদের অফলাইন আইডি ডিএক্টিভেট করেছেন। এ বিষয়ে ফেসবুকে মেসেজ দিয়ে জানতে চাওয়া হলে ওয়াসা এমডি তাসকিম খান এক ফেক আইডির মাধ্যমে আমাদেরকে জানান, 'ওয়াসার পানির শরবত খেতে মোটেও ট্যাস না। এজন্যই সাময়িক আত্মগোপনে আছি। জুরাইনের লোকজন শরবত নিয়ে বাসায় ফিরে গেলেই তবে লোকালয়ে বের হবো'।

তবে কেন ওয়াসার পানিকে শতভাগ সুপেয় বলেছিলেন, এমন প্রশ্ন করা হলে এমডির ফেক আইডি মিনারেল ওয়াটার দিয়ে একটু কুলকুচি করে eআরকিকে বলেন, 'ওয়াসার পানি অবশ্যই সুপেয়। তবে শরবতে তো শুধু পানিই থাকে না, চিনি থাকে, লেবু থাকে, সেগুলোতে কোনো সমস্যা থাকতে পারে। যে গ্লাস কিংবা জগে বানানো, যে চামচ দিয়ে চিনি গুলানো সেগুলোও নোংরা থাকতে পারে। আমার ধারণা, এসব কারণেই ওয়াসার খুব ট্যাস সুপেয় পানি শরবত বানালে "ট্যাস-না"য় পরিণত হয়।'

এ পর্যায়ে তিনি একটি বিখ্যাত মারফতি গানের প্যারোডি গুনগুন করে গাইতে থাকেন, 'দয়াল বাবা শরবত খাবা, নিজে বানায়া খাও... অন্যের বানানো শরবতে ক্যান ফ্যালাফালাইয়া চাও...'

ঠিক কেমন শরবত পছন্দ করেন, এ প্রসঙ্গে তিনি হাসিমুখে বলেন, 'রুহ আফজা ছাড়া আমার চলেই না!'

এদিকে শরবত বানিয়ে নিয়ে আসা জনৈক জুরাইনবাসী জানান, 'এই গরমে এত ভালোবেসে শরবত বানায় আনলাম, যেন এমডি সাহেবের মাথাডা ঠান্ডা হয়, তিনি যেন গরমের চোটে এলোমেলো কথা না বলেন। সেই শরবত না খাইয়ে চলে যাবো, এটা কেমন আচানক কথা?' এ সময় নিরাপত্তাকর্মীরা তাকে বাঁধা দিতে আসলে তিনি তাদের দিকে শরবত ছুড়ে মারলে এক উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তবে ধস্তাধস্তির সময় ছলকে পড়া ওয়াসার পানির শরবত দুর্ঘটনাবশত একজনের মুখে চলে যাওয়ায় সে চিরদিনের জন্য জিহ্বার স্বাদ হারিয়ে ফেলেছে বলেও এক গুজবের মাধ্যমে জানা গেছে।

 

আরও পড়ুন-

৯৫৮ পঠিত ... ১৮:২২, এপ্রিল ২৩, ২০১৯

Top