মঙ্গল শোভাযাত্রায় কি ভদ্রতার মুখোশ পরেও অংশ নেয়া যাবে না?

৭৭৫ পঠিত ... ১৮:৩১, এপ্রিল ০৪, ২০১৯

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ৩ এপ্রিল (বুধবার) বলেছেন, পহেলা বৈশাখ ১৪২৬-এর মঙ্গল শোভাযাত্রায় কেউ মুখোশ পরতে পারবেন না, তবে মুখোশ হাতে রাখা যাবে। নিরাপত্তা নিশ্চিত করতেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। খবর: প্রথম আলো।

বাংলা নববর্ষের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা অনুষদের আয়োজন করা মঙ্গল শোভাযাত্রা। আর মঙ্গল শোভাযাত্রার অন্যতম অনুষঙ্গ হচ্ছে রঙ বেরঙের মুখোশ। তবে এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রায় মুখোশ পরায় নিষেধাজ্ঞার খবরে হতাশা নেমে এসেছে নগরের নানান স্তরের নানান বয়সের মানুষের মনে। মঙ্গল শোভাযাত্রায় উপস্থিত থাকতে পারবেন কি না, তা নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন বিরাট অংশের জনগণ।

মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ নিয়ে দুশ্চিন্তার কারণ জিজ্ঞেস করলে এক প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা eআরকিকে বলেন, ‘আমার ভালোমানুষি মুখোশটার এখন কী হবে? পহেলা বৈশাখে আমি সবচেয়ে ভালো মুখোশটা পরে বের হই। সেইটা না পরতে পারলে তো মানুষজনের সামনে যাওয়া যায় না।’ অন্যদিকে এক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক মারকুটে ‘অসাধারণ’ শিক্ষার্থী বলেন, ‘ক্যাম্পাসে খুব বেশি মানুষ আমাকে ভদ্রতার মুখোশ ছাড়া দেখেনি। মঙ্গল শোভাযাত্রায় পরে যেতে চেয়েছিলাম সবচেয়ে বেশি ভদ্রতার মুখোশটা! মুখোশ না পরে গেলে তো, কেউ আমাকে চিনবেই না। গত এক যুগ ধরে আমি ভার্সিটিতে আছি। এমন বিপদে আগে কখনো পড়তে হয় নাই।’

এদিকে ব্যবসায়ী মহলেও নেমে এসেছে দুশ্চিন্তার কালো মেঘ। সারা বছর সততার মুখোশ পড়ে থাকা অনেক ব্যবসায়ী এই সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেছেন। এক ব্যবসায়ী নেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন ‘বছরের প্রথম দিনের জন্য আমি মেরিকা থেকে অর্ডার করে মুখোশ আনাই। এ বছরের জন্য অর্ডার করে ফেলেছি। পেমেন্টও। এখন আমাকে ক্ষতিপূরণ দিবে কে?’ এছাড়াও মঙ্গল শোভাযাত্রায় আসতে ইচ্ছুক অনেক তরুণ-তরুণীর মনের কোণেও জমেছে মেঘ। ভালোবাসার মুখোশ খুলে প্রেমিক/প্রেমিকা নিয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রার মত আনন্দমুখর দিনে কী করে আসবেন তা নিয়ে দ্বিধায় ভুগছেন অনেকে। জানা গেছে, অনেক যুগল তাদের মঙ্গল শোভাযাত্রার প্ল্যান বাতিল করে নতুন প্ল্যান করার চেষ্টা করছেন।

অন্যদিকে অনেকেই আশা প্রকাশ করছেন, মঙ্গল শোভাযাত্রায় মুখোশের উপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় যৌন নিপীড়কদের কম দেখা যাবে। কিন্তু ইভটিজারদের সংগঠন ‘উত্যক্তকারী সোনার ছেলের দল’-এর পক্ষ থেকে এসব ধারণাকে উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এক বিবৃতিতে এই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, ‘আমাদের মুখোশ লাগে না। ২০১৫ সালেও তো পহেলা বৈশাখ আমরা কতো কিছু করছি। সিসিটিভিতেও নাকি ফুটেজ ছিল আমাদের চেহারার! কই, আমাদের তো কিছু হয় নাই! আমাদের কখনোই কিছু হয় না!’

মূল আইডিয়া: দিপু জামান

৭৭৫ পঠিত ... ১৮:৩১, এপ্রিল ০৪, ২০১৯

Top