উত্তর ঢাকার ভোটারদের ফিরিয়ে দেয়ার আকুতি জানালেন শাফিন আহমেদ

২৩০১ পঠিত ... ১৬:০৮, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৯

আজ ২৮ ফেব্রুয়ারি উত্তর ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। নির্বাচন বাংলাদেশে এক রকমের উৎসব হিসেবে পরিচিত থাকলেও, এই নির্বাচন নিয়ে রহস্যজনকভাবে ভোটারদের এক ধরনের নির্লিপ্ততা কাজ করছে। অনেকে আবার জানেনই না, আজ মেয়র নির্বাচনের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন চলছে। কেন্দ্রগুলোতেও এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে দেখা যাচ্ছে প্রকট ভোটার সঙ্কট। দুটি কেন্দ্রে ভোট শুরুর আড়াই ঘন্টা পরেও কোন ভোট পড়ে নি বলেও জানা গেছে (বাংলা ট্রিবিউন)।

এবারের মেয়র প্রার্থীদের মধ্যে আলোচনার সবচেয়ে শীর্ষে আছেন মাইলস ব্যান্ড খ্যাত শাফিন আহমেদ। জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী হয়ে এবারের মেয়র পদের প্রার্থী হয়েছেন তিনি। তিনি সকাল থেকেই কেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করে কোন প্রার্থীর দেখা পান নি বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন গণমাধ্যমকে।

কেন এই ভোটার খরা? ভোটাররা সব কোথায় গেলো? শাফিন আহমেদের কাছে এসব প্রশ্নের উত্তর জানতে নেমে পড়ে eআরকির ভোটার সন্ধানী দল।

মাইলসের পর মাইলস পথ পাড়ি দিয়ে শাফিন আহমেদের সাথে সাক্ষাৎ করার সুযোগ পায় eআরকিকরা। একটি ভোটকেন্দ্রের সামনে তাকে খুঁজে পায় তারা। সেখানে তাকে ‘আর কতকাল খুঁজবো তোমায়’ গানের কলিটি গুনগুন করে ভাঁজতে শোনা যায়। সম্ভবত ভোটারদের উদ্দেশ করেই তিনি এই গানটি গাইছিলেন। তার সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি প্রথমে ‘হায় জ্বালা জ্বালা জ্বালা এই ভোট জুড়ে’ জাতীয় শব্দ দিয়ে তার বিরক্তি প্রকাশ করেন, কিন্তু পরে আমাদের সাথে বসতে রাজি হন।

নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র এমন খালি কেন- জানতে চাইলে বলেন, ‘দুঃখের কথা আর কী বলবো, এই নির্বাচনের শিডিউল আমাকে একদম নিঃস্ব করে দিয়েছে। এমন এক ডেটে নির্বাচন ফেলেছে, এটা নিঠুর ছলনা ছাড়া কিছুই না। এত ভালো নির্বাচনী প্রচারণা চালালাম, ভেবেছিলাম সব ভোটার পেয়েই গিয়েছি। কিন্তু আজ ভোটকেন্দ্রে ঢুকে টের পেলাম পেয়ে হারানোর বেদনা। বৃহস্পতিবারে নির্বাচন ফেলে এমন এক অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, সবাই এটাকে লম্বা ছুটি ভেবে চলে গিয়েছে দূরে, ছুটি কাটাতে। যারা আছেন, তারাও এত সুন্দর আবহাওয়ায় ঘুমিয়ে নিচ্ছেন আরামসে। এগুলো সবই ষড়যন্ত্র। তাই আমার একটাই দাবি, ফিরিয়ে দাও, আমারই ভোটার, তোমরা ফিরিয়ে দাও।’ 

ভোটাররা এত নিষ্ঠুর কী করে হতে পারে, তা নিয়ে খানিকটা আবেগী হয়ে পড়লেও তিনি নিজেকে আবার সামলে নেন। তিনি এরপর আমাদের আরো বলেন, ‘শুনলাম আরেকজন প্রার্থী আতিকুল ইসলাম ইসলাম নাকি বলেছেন ভোটারদের বৃষ্টির দিনে খিচুড়ি আর চা খেয়ে ভোট দিতে আসতে। এই কথা শুনে ভোটাররা গণহারে চুলায় খিচুরি আর চা বসানোতে চুলায় গ্যাসের চাপ গেছে কমে। ফলে সেখানে ধিকি ধিকি আগুন জ্বলছে। এর ফলে কারো খিচুরি চা রান্না হচ্ছে না, ভোটও দিতে আসছে না।’

এক পর্যায়ে তিনি আমাদের হঠাৎ নীলা বলে সম্বোধন করা শুরু করে তিনি বলতে শুরু করেন, ‘নীলা তুমি কি জানো না আমার কেন্দ্র কোথায়? উত্তর ঢাকার উন্নতির মাইলের পর মাইল পথ পাড়ি দিতে তো আমাকেই ভোট দিতে হবে। তাই আমার পিয়াসী মন ভোটারদের ভোট চাইছে।’

এর মধ্যে ভোটকেন্দ্রে কিছু ভোটারের আনাগোনা শুরু হলে তিনি আবার তৎপর হয়ে পড়েন। সে কোন দরদিয়া ভোটার ভোট দিতে এসেছে, তার খোঁজ নিতে তিনি আমাদের বিদায় জানিয়ে উঠে পড়েন।

২৩০১ পঠিত ... ১৬:০৮, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৯

Top