ঢাকার সেলিব্রেটি গ্যালারিতে মৃণাল হক যে ভাস্কর্যগুলো বানিয়েছেন, ওরা কারা?

২১৪৬৯ পঠিত ... ১৯:৩৭, জানুয়ারি ৩০, ২০১৯

বিশ্বখ্যাত সব মানুষের প্রতিকৃতির জন্য লন্ডনের মাদাম তুসো জাদুঘরের খ্যাতি বিশ্বজুড়ে। শুধু লন্ডনেই না, পৃথিবীর আরও বড় অনেক শহরে মাদাম তুসো জাদুঘরের শাখা আছে। এ জাদুঘরের বিশেষত্ব হচ্ছে, এখানে খ্যাতিমানদের প্রতিকৃতি তৈরি হয় মোম দিয়ে। ইউরোপ আমেরিকার বড় বড় শহরে এমন জাদুঘর তো আছেই, পাশের দেশ ভারতেই একাধিক শহরে এমন জাদুঘর আছে। অথচ মেগাসিটি ঢাকায় ছিল না এমন কোনো জাদুর ঘর! ঢাকাবাসীর কথা ভেবেই ‘জনপ্রিয়’ ভাস্কর মৃণাল হক তার জাদুকরি ভাস্কর্য-প্রতিভায় শুরু করেছেন ‘সেলিব্রেটি গ্যালারি’। ২০১৮ সালের ৭ ডিসেম্বর ঢাকার গুলশানে উদ্বোধন করা হয় মাদাম তুসো মিউজিয়ামের অনুকরণে নির্মিত এই গ্যালারি। এখানে দেশ বিদেশের ৩২ জন বিখ্যাত ব্যক্তিত্বের প্রতিকৃতি আছে বলে ‘দাবি’ করা হয়, কিন্তু তাদের অনেককেই ঠিক করে চিনতে পারছেন না দর্শনার্থীরা। এরই মাঝে ফেসবুকে সুমিত বড়ুয়া নামের একজনের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে কয়েকটি প্রতিকৃতির ছবি পোস্ট করা হয়। সেখানে মৃসি, মৃরুখ খান, মৃয়ানা এমন নামের কয়েকজন অচেনা সেলিব্রেটির ছবি দেখতে পাই। 

এসব জেনে শুনে ঢাকার বুকে এই অভিনব জাদুঘর দেখতে গুলশানের পানে ছুটে যায় একটি বিশেষ eআরকি প্রতিনিধি দল। সেলিব্রেটি গ্যালারিতে ঢুকেই খানিকটা মুষড়ে পড়ে eআরকি দল। দোরগোড়ায় কাব্যচর্চারত রবি ঠাকুরকে চিনে ফেলা যায়। চেনা যায় তার পাশে দাঁড়ানো ভারতের প্রধানমন্ত্রীকেও। সবাইকেই তো চেনা যাচ্ছে। এটা নিশ্চয়ই কোন সুযোগসন্ধানীর প্র্যাংক। তারা নিশ্চয়ই পাশে কোথাও ক্যামেরা নিয়ে ভিডিও করছে। আশেপাশে ক্যামেরা খুঁজতে গিয়েই আমাদের চোখে পড়ে আরও অনেক প্রতিকৃতির। মূর্তি হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা এসব সেলিব্রেটিদের আমরা চিনতে পারছি না কেন? আমাদের কি তবে স্মৃতি হারিয়ে গেল?

ফুটবল পায়ে আর্জেন্টিনার জার্সি পরে যিনি দাঁড়িয়ে আছেন, কে তিনি? আর্জেন্টিনা দলে এমন কেউ কখনো খেলেছিলেন বলে তো মনে পড়ে না। ইনি কি তবে অন্য কোন রিয়েলিটিতে দুর্দান্ত আর্জেন্টাইন ফুটবলার? কাছেই দেখতে পাই শুভ্র বসনে লম্বা চুলের এক সুদর্শন পুরুষ দাঁড়িয়ে আছেন গ্রিল ধরে। ঠিক করে দেখে বোঝা যায় এটি কারাগারের গারদ। আর ওপারে যে দাঁড়িয়ে আছেন, তাকে কিছুতেই চিনতে পারছিলাম না আমরা। এটি কি সদ্যপ্রয়াত সঙ্গীতজ্ঞ আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের প্রতিকৃতি? নাকি প্রয়াত নায়ক জাফর ইকবাল? বলিউডি ব্যাকগ্রাউন্ড পিছনে রেখে দাঁড়িয়ে ছিলেন এলোমেলো চুলের এক লোক। তাকেও চিনতে পারছিলাম না আমরা।

হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়ে আমরা দর্শনার্থীদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করি। কথিত বলিউডি হিরোর মূর্তির সামনে বজ্রাহত হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা এক দর্শনার্থীকে ‘আপনার অনুভূতি কী?’ জিজ্ঞেস করলে তিনি কিছুক্ষণ কোন কথা বলতে পারেননি। এরপর সম্বিৎ ফিরে পেয়ে তিনি ফিসফিস করে আওড়াতে থাকেন, ‘আমার কিছু মনে পড়ছে না কেন? আমি কাউকে চিনতে পারছি না কেন?’ বোঝা যায়, তিনি মানসিক আঘাত পেয়ে স্মৃতি হারিয়ে ফেলেছেন। তাকে রেখে আরেক দর্শনার্থীর সাথে কথা বলি। প্রচণ্ড মানসিক ক্ষমতার অধিকারী হবার কারণে তিনি তখনো স্মৃতি হারিয়ে যেতে দেননি। তিনি আমাদের বলেন ‘শহরের মাঝে এমন উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। দেশি বিদেশি বিখ্যাত মানুষদের সাথে পৃথিবীর বাইরের বিভিন্ন বিখ্যাত মানুষ, এমনকি অন্য বাস্তবতার বিখ্যাত মানুষদের একসাথে দেখার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য মৃণাল হককে ধন্যবাদ।’

সেলিব্রেটি গ্যালারি ঘুরে আমরা দেখতে পাই অ্যান্ড্রোমিডা গ্যালাক্সির বিখ্যাত পপস্টার মৃইকেল জ্যাকসন, ঐ গ্যালাক্সিরই অন্য একটি সোলার সিস্টেমের অনিন্দ্যসুন্দরী প্রিন্সেস মৃয়ানা, অষ্টম মাত্রা জগতের বিপ্লবী সেনাপতি মৃ গেভারাকে। ভাস্কর মৃণাল হকের সাথে কথা বলে চতুর্থ মাত্রা জগতের ফুটবলার মৃসি এবং ঐ একই বাস্তবতার হার্টথ্রব নায়ক মৃরুখ খানের পরিচয়ও জানতে পারি। আমাদের পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয় মিল্কিওয়ের একটি দূরতম গ্রহের শ্রেষ্ঠ কমেডিয়ান মৃস্টার বিনের সাথে। ভাস্করের সাথে ঘুরেই আমরা একে একে সব দেশি-বিদেশি এবং ইন্টারগ্যালাক্টিক সেলিব্রেটিদের সাথে পরিচিত হই। 

গ্যালারি ঘুরে আমরা বেরিয়ে আসি স্বাভাবিক পৃথিবীতে। সেলিব্রেটি গ্যালারির পরাবাস্তব জগত ঘুরে একটা অদ্ভুত বিষণ্ণতা যেন আমাদের গ্রাস করে ফেলে। মৃসি, মৃরুখ খানের ঘোর কাটতে হয়ত এই জীবন কাটিয়ে দিতে হবে।

 

আরও পড়ুন-

২১৪৬৯ পঠিত ... ১৯:৩৭, জানুয়ারি ৩০, ২০১৯

Top