শুক্রবার সকালে হাসুন : ঝটপট পড়ে ফেলুন ১০টি মজার কৌতুক

৪০৫ পঠিত ... ১৫:৫৯, মে ০৮, ২০১৯

 ১# 

: কী ব্যাপার আগের সরকারের আমলে তো খুব কলমবাজি করলে। এখন চুপচাপ, বিষয় কী? নাকি ডিগবাজি দেয়ার চিন্তাভাবনা করছো?
: ডিগবাজি আমরা দেব না আফটার অল আমরা বুদ্ধিজীবী। ডিগবাজি দেবে আমাদের কলম।

  

২#
ডেন্টিস্ট: অতো চেঁচাবেন না, আমি আপনার দাঁতে এখনো হাতই দেই নি।
রোগী: কিন্তু আপনি আমার পায়ের উপর দাঁড়িয়ে আছেন।

 

৩#
গণক: আপনি কমসে কম আশি বৎসর বাঁচবেন। এ বাচা আপনার কেউ ঠেকাতে পারবে না।
ব্যক্তি: যদি না বাঁচি?
গণক: তা হলে এসে আমার দুই গালে দুটো চড় মেরে যাবেন। 

 

৪#
প্রফেসর ক্লাস টেস্টে অংশগ্রহণ না করার কারণ জানতে চাইলেন দুই ছাত্রের কাছে। তারা বললো, রাস্তায় গাড়ির চাকা পাংচার হয়ে গিয়েছিলো তাই সময়মতো আসতে পারিনি স্যার। প্রফেসর বললেন, আগামী পরশু তোমাদের পরীক্ষা নেয়া হবে।

দুই বন্ধু খুব ভালো প্রস্তুতি নিলো পরীক্ষার জন্য। পরীক্ষার সময় প্রফেসর দুজনকে দুই রুমে বসিয়ে দিলেন প্রশ্নপত্র দিয়ে। প্রশ্ন খুলে তারা দেখলো দু’টি প্রশ্নের উত্তর দিতে বলা হয়েছে। প্রথম প্রশ্নটির নম্বর মাত্র পাঁচ। প্রশ্নটি হলো- অক্সিজেন এবং হাইড্রোজেন মিলে কি হয়? দ্বিতীয় প্রশ্নটির নম্বর ৯৫। প্রশ্নটি হলো, কোন চাকা পাংচার হয়ে গিয়েছিলো?

 

৫#
বুলগেরিয়ার গাবরোভা শহরের লোকজন নাকি খুব কৃপণ। তো সেই শহরে এক বিদেশীর দুর্ঘটনা ঘটল। সিরিয়াস ইনজুরি রক্ত দরকার। রক্ত দিতে এক বুলগেরিয়ান রাজি হলো কিন্ত সে আগে টাকা চায়। সবাই বললো, লোকটা মারা যাচ্ছে- জলদি রক্ত দিন আপনার টাকা তো পাবেনই।
কৃপন বুলগেরিয়ানের উত্তর, না আগে টাকা দিতে হবে। আমার রক্ত ওর শরীরে একবার ঢুকলে ও আর টাকা দেবে না।

 

৬#
ঈদের সিজনে ছেলে বাবাকে বলছে, বাবা চাঁদ কি পৃথিবী থেকে অনেক দূরে?
ঈদ মার্কেটিং করতে করতে ক্লান্ত বাবা উত্তর দিলেন, হ্যা তবে আরেকটু দূরে হলে আরও ভালো হতো।


৭#
বৃদ্ধ রোগীর হার্ট পরীক্ষা করে ডাক্তার বললেন-
: আপনি নিশ্চিন্ত থাকুন। যতদিন বাঁচবেন আপনার হার্ট একদম ঠিকঠাক কাজ করে যাবে।


৮#
: তুমি বলছো। তোমার প্যান্টে কোনো ফুটো নাই।
: না, একটাও না।
: তা হলে প্যান্টে পা ঢুকাও কীভাবে?


৯#
: গত বছর থেকেই আমি লেখালেখি শুরু করেছি। দুটো উপন্যাস ইতোমধ্যে লিখে শেষ করেছি।
: কিছু কি বিক্রি হচ্ছে?
: হ্যা ঘরের ফ্রিজ, টিভি সবই বিক্রি করেছি।


১০#
দুই মাতালকে পুলিশ আটকিয়েছ।
প্রথম মাতালকে পুলিশ জিজ্ঞেস করলো, তোমার ঠিকানা বলো।
: আমার কোনো নির্দিষ্ট ঠিকানা নেই।
আর তোমার?- দ্বিতীয় জনের দিকে ফিরলো পুলিশ।
: আমি ওর ফ্ল্যাটের ঠিক ওপরের ফ্ল্যাটটায় থাকি। 

৪০৫ পঠিত ... ১৫:৫৯, মে ০৮, ২০১৯

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top