অন্তত রবিবারে হাসুন: ১০টি মজার কৌতুক

১৪৫৪ পঠিত ... ১৭:৩০, এপ্রিল ২০, ২০১৯

১# 

: আমার স্বামী আমাকে ধর্মের পথে ঠেলে দিয়েছে।
: সে তো খুব সুখের কথা, কিন্তু কীভাবে কাজটা করলেন উনি?
: ওর ব্যবহার দিয়ে। ওকে বিয়ে করার আগ পর্যন্ত দোজখে বিশ্বাস করতাম না।

 

২#
নাইটগার্ড হিসেবে নিয়োগ প্রত্যাশী একজন প্রার্থীর সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন চাকরিদাতা।
: নাইটগার্ড হিসেবে আপনার বিশেষ যোগ্যতা কী?
: আমি স্যার অল্প গোলমালেই ঘুম থেকে জেগে উঠতে পারি। 

 

৩#
: আপনি কি অভিনয় জানেন?
: অভিনয় জানি কি না জানতে চাইছেন? একবার স্টেজে আমার মৃত্যুর দৃশ্যটি এতই বাস্তব  ছিলো যে একজন অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিল।
: কে সে?
: আমার ইন্সুরেন্স এজেন্ট।

 

৪#

: পৃথিবীর ক্ষুধার্ত মানুষ কোথায় থাকে?
: হাঙ্গেরিতে।


৫#
পাড়ার সবচে কৃপণ লোকটির সঙ্গে দেখা করতে গেলো সমাজসেবকদের একটি দল। দলের নেতা বললো, আমাদের রেকর্ড থেকে দেখা যাচ্ছে আপনার প্রচুর সহায়সম্পত্তি থাকা সত্ত্বেও আপনি কখনো আমাদের তহবিলে একটা টাকাও দান করেন নি।

: আপনাদের রেকর্ডে কি লেখা আছে আমার একজন কপর্দকহীন অসহায় ফুপু আছেন? আপনাদের রেকর্ডে কি আছে, আমার এক পঙ্গু ভাই আছে, যে একটি পয়সা আয় করে না? আপনাদের রেকর্ডে কি আছে, আমার এক বিধবা বোন আছে, যার স্বামী মারা যাওয়ার সময় চারটি সন্তান ছাড়া আর কিছুই রেখে যেতে পারে নি?

: না স্যার, আমাদের রেকর্ডে- এ-সব কিছুই নেই। লজ্জিত হয়ে বললো, দলনেতা।

: তা হলে শুনুন, ওদের কাউকেই আমি একটি টাকাও দিই না। আপনাদের কেন দেবো?

 

৬#

বিয়ের ৫০ বছর পূর্তি নিয়ে স্বামী স্ত্রী কথা বলছে।

: তোমার মনে আছে বিয়ের প্রথম দিনে তুমি কী করেছিলে?
: কামড় দিয়েছিলাম।
: সে দিন কি আর ফিরে পাবো!
: কেন নয়? দাঁড়াও বাথরুম থেকে দাঁতটা লাগিয়ে নিয়ে আসি।

 

৭#
: কোন ড্রেস পৃথিবীর সবার আছে কিন্তু কেউ গায়ে পরে না?
: এ্যাড্রেস।

 

৮#
ডাক্তার আপনার এপেনডিসাইটিসের সমস্যা হয়েছিলো কখনো?
হ্যা ছোটবেলায় স্কুলে থাকতে বানান করতে গিয়ে।

 

৯#
নেকড়ে, খরগোশ আর কচ্ছপ বসে আছে একসঙ্গে। মদ্যপানের ইচ্ছা হলো তাদের। কে যাবে বোতল কিনতে। নেকড়ে আর খরগোশ জানাল, তারা  যেতে পারবে না। শেষপর্যন্ত যেতে হলো কচ্ছপকে। পার হয়ে গেলো অনেকক্ষণ। কচ্ছপের ফিরে আসার কোনো নাম নেই।

নেকড়ে বললো, আমি হলে কত আগে নিয়ে আসতাম! 
খরগোশ বললো, এত ঢিমে তালে হলে কি চলে?
এ সময় দরজা খুলে গলা বের করে কচ্ছপ বললো, অতো সমালোচনা করলে কিন্তু আমি বোতল আনতে যেতে পারবো না।

 

১০#  
এক লোক মারাত্মক আহত হয়েছে। হাতে লম্বা সেলাই লাগবে। অপারেশন টেবিলে শুয়ে সে কাতর চোখে ডাক্তারকে বললো,
: ডাক্তার সাহেব একটা কথা...
: কী কথা বুঝতে পেরেছি আর বলতে হবে না। সেলাইয়ের সময় ব্যাথা না দেই এই তো?
: না, না, তা নয় ডাক্তার সাহেব, সেলাই তো করবেনই লগে আমার শার্টের হাতার বোতামটাও একটু সেলাইয়া দিয়েন, ছুইটা গেছে।

 

১৪৫৪ পঠিত ... ১৭:৩০, এপ্রিল ২০, ২০১৯

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top