৮৭ শতাংশ ফেসবুকারদের মত, গেম অফ থ্রোনসের চেয়ে আলিফ লায়লাই ভালো

৭৪ পঠিত ... ২১:০৪, মে ২৩, ২০১৯

‘মুড়ি মাখানোয় জিলাপি দেওয়া ঠিক কি না?’ নির্বাচনের সাফল্যের ধারাবাহিকতায় eআরকি আয়োজন করেছিল আরেকটি তুলনামূলক গণভোট ‘আলিফ লায়লা নাকি গেম অফ থ্রোনস’? বিপুল ব্যবধানে গেম অফ থ্রোনসকে হারিয়ে জয়ী হয়েছে আলিফ লায়লা। প্রায় ৮৭ শতাংশ ভোট নিয়ে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে নব্বইয়ের দশকে বিটিভিতে দেখানো এই আধ্যাত্মিক টিভি সিরিজটি।

 

গত ১৯ মে রাত ১১টার দিকে eআরকির প্রধান নির্বাচন কমিশনার পোলটি খুলে দেন সবার উদ্দেশে। ব্যালটের প্রশ্ন ছিল ‘আলিফ লায়লা নাকি গেম অফ থ্রোনস? কাহিনীর দিক থেকে আপনার মতে সেরা টিভি সিরিজ কোনটি?’ ভোটের অপশন ছিল দুটি, ‘আলিফ লায়লার উপ্রে কিছু নাই!’ এবং ‘সমাজ মেনে নেবা না বলে দেখি!’ চারদিনের গণভোটে ভোট প্রদান করেন প্রায় ১০ হাজার ভোটার। সাড়ে আট হাজারেরও বেশি ভোটার রায় দিয়েছেন আলিফ লায়লার উপর কিছু নেই বলে।

গত গণভোটের মত এই নির্বাচনে এতো অংশগ্রহণ লক্ষ্য করা যায়নি। দুই পক্ষের প্রচার প্রচারণাও ছিল চোখে পড়ার মতো কম। তবে আলিফ লায়লার ভক্তরাই প্রচার ও প্রচারণায় একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছিলেন। কেউ কেউ তাদের শৈশব-কৈশোরের কথা স্মরণ করে আবেগি হয়ে পড়েন। আলিফ লায়লার পক্ষে ভাষণ দিতে গিয়ে বেশ অনেককেই কান্নাকাটি করতেও দেখা গেছে বলে জানা যায়। আলিফ লায়লার মাহাত্ম বর্ণনা করতে গিয়ে আবির আহমেদ সাইফ বলেন, ‘গট আলিফ লায়লার ধারে কাছেও নাই। আমি আমার বাপে সাথে আমার দাদাও একসাথে আলিফ লায়লা দেখতাম। আর গট? এইটার যেই সিনারি ১৫০টাকা দামের হেডফোন লাগায়া দেখতেও ভয় হয়। যদি আওয়াজ বাহিরে আসে, বাপের সম্পত্তির ভাগ আর পাওয়া লাগব না। সাথে সাথেই তেজ্যপুত্র হমু।’ আবার মুকিতুল ইসলাম বলেন, ‘এই পৃথিবীর সব সিরিজই আলিফ লায়লার নিচে!’

আবার অন্যদিকে ছোট পরিসরে হলেও গেম অফ থ্রোনস ভক্তরাও প্রচারণা চালিয়েছেন। এই যেমন তৌকির আহমেদ হৃদয় খালিসির বড় ছেলে দ্রোগনের ভয় দেখিয়ে সবাইকে গেম অফ থ্রোনসের পক্ষে ভোট দিতে বলেন। তবুও হাল জামানার সর্বাধিক টিভি সিরিজ গেম অফ থ্রোনস কেন বাংলাদেশে এসে হেরে যেতে গেল এক নব্বইয়ের ভারতীয় টিভি সিরিয়ালের কাছে? এর কারণ ব্যাখ্যা করতে এক নির্বাচন পর্যবেক্ষক বলেন, ‘এমন এক সময়ে এই নির্বাচন হয়েছে, যখন দেশে বিদেশে গট সমালোচিত হচ্ছে তার শেষ সিজনের জন্য। অনেক ভক্তই শেষ সিজনে এমন মনঃক্ষুণ্ণ হওয়ার ঝাঁজ মিটিয়েছেন আলিফ লায়লার হয়ে ভোট দিয়ে। আবার অনেকেই ভোট দিতেই যাননি।’

eআরকির পর্যবেক্ষণেও প্রমাণিত হয়েছে, অনেক গট ভক্ত নিশ্চিত পরাজয়ের কথা ভেবে ভোট দিতে যাননি। অবশ্য তাদের অংশগ্রহণেও ভোটের ফলাফলে তেমন কোন প্রভাব পড়ত না বলেই অভিমত দিয়েছেন eআরকির নির্বাচন পর্যবেক্ষক দল। তবে বিভিন্ন মহল থেকে এই নির্বাচনকে পক্ষপাতদুষ্ট বলে অভিহিত করা হয়েছে। এক আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষেক ইউরোপ থেকে আমাদের জানান, ‘এই নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড ছিল না। অসম গ্রাউন্ডে সুকৌশলে ইলেকশন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মাধ্যমে গেম অফ থ্রোনসকে পরাজিত করা হয়েছে।’ অনেকেই এই আলিফ লায়লার সাথে গেম অফ থ্রোনসের তুলনাকে হাস্যকর বলে অভিহিত করেছেন।

৭৪ পঠিত ... ২১:০৪, মে ২৩, ২০১৯

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

কৌতুক

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top