আপনার প্রিয় তারকার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার আগে করণীয়

৮০ পঠিত ... ১৫:৩৫, মে ১২, ২০১৯

আপনার প্রিয় কোনো তারকার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে ফেসবুকে পোস্ট দিতে চাইলে আগে একটু ধৈর্য ধরুন, অপেক্ষা করুন, তার মৃত্যুর খবরটা যাচাই করুন। যাচাইয়ের প্রথম পদক্ষেপ হিশেবে টেলিভিশন চালু করুন। স্ক্রলে মৃত্যুসংবাদ দেখালেই তা বিশ্বাস করবেন না, বাংলাদেশের কোনো টিভি চ্যানেলকে নিরঙ্কুশভাবে বিশ্বাস করার অবকাশ নেই। স্ক্রলে মৃত্যুর ভুয়া খবর প্রচার করার পর সে ব্যাপারে দুঃখ প্রকাশ না করেই তা সরিয়ে ফেলার ভূরি-ভূরি নজির বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলোর আছে। নেহায়েত বাটে না পড়লে বাংলাদেশের গণমাধ্যম কখনও কারো কাছে ক্ষমা চায় না। এমনকি একাধিক চ্যানেলের স্ক্রলে মৃত্যুখবর দেখালে তাও বিশ্বাস করবেন না। গলা উঁচিয়ে আরেকটু ধৈর্য ধরে দেখুন হাসপাতালে বা ঐ তারকার বাসস্থানে দাঁড়িয়ে জীবিত তারকারা মৃত তারকাটিকে নিয়ে ফোলা-ফোলা চোখে 'আমাদের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেল' কিংবা 'আমরা অভিভাবকহীন হয়ে গেলাম' গোছের সাশ্রু বক্তব্য দিচ্ছেন কি না, কিংবা তারকটিকে নিয়ে সংক্ষিপ্ত প্রামাণ্যচিত্র প্রচারিত হচ্ছে কি না। হলে বুঝবেন মৃত্যুসংবাদটি সত্য।

নাগালের মধ্য টিভি না থাকলে ফেসবুকে প্রথম আলো বা ডেইলি স্টারের ভেরিফাইড পেজ দুটো খুঁজে দেখুন মৃত্যুর ব্যাপারে কোনো খবরাদি আছে কি না। অন্যান্য পত্রিকার পেজ কিংবা রেডিও বা টিভি চ্যানেলগুলোর পেজের ওপর ভরসা রাখার সুযোগ কম। মূলধারার বলে দাবি করা ভুলধারার পত্রিকাগুলো 'সবার আগে সর্বশেষ খবর' দিতে গিয়ে অনেক জীবিত তারকাকেই ইতোমধ্যে মেরে ফেলেছে, যারা পরবর্তীতে ফেসবুকে আপলোড করে জানিয়েছেন, 'আমি মরিনি। মরার আগেই আমাকে মারবেন না।' প্রথম আলো বা ডেইলি স্টার থেকে মৃত্যুসংবাদ নিশ্চিত হলে তবেই প্রিয় তারকার মৃত্যু নিয়ে দু-কথা লিখতে পারেন।

তারকার মৃত্যুর ব্যাপারে ফেসবুকের কারো পোস্টই বিশ্বাস করবেন না; এমনকি ঐ অঙ্গনের অন্যান্য মহাতারকার পোস্টও না, লক্ষ-লক্ষ ফলোয়ার থাকা ফেসবুক-নক্ষত্রের পোস্টও না। মনে রাখবেন— স্ব-স্ব ক্ষেত্রে সমুজ্জ্বল হলেও ফেসবুক-কর্মকাণ্ডে অধিকাংশ মহাতারকাই গর্দভ শ্রেণির; এদের অধিকাংশের টাইমলাইনই ছয় ঠ্যাংওয়ালা গরু, চার চোখওয়ালা সাপ, তিন বিচিওয়ালা আমের ছবি আর যাবতীয় উদ্ভট গুজবে ভরপুর। তারকার পরিবারের কোনো সদস্য বা তার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ কারো পোস্ট পড়ে তবেই নিশ্চিত হয়ে নিন তারকাটি মারা গিয়েছেন কি না।

মনে রাখবেন— আপনার আরআইপি, ওপারে ভালো থাকবেন, ভালো থাকবেন না-ফেরার দেশে, এভাবে চলে যেতে নেই, ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন কিংবা দিব্যাং লোকাং স্ব গচ্ছাতু শীর্ষক পোস্টের ওপর ঐ তারকার জীবন-মরণ কিংবা স্বর্গ বা নরক-গমন নির্ভর করছে না। এই পোস্টগুলো মৃত্যুসংবাদ নিশ্চিত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পরেও দেওয়া যাবে। জীবিত থাকাকালেই আরআইপি আর ইন্নালিল্লাহ দিয়ে ফেসবুক সয়লাব করা এবং নিজের নিক্ষিপ্ত থুতু পুনর্বার চেটে খাওয়ার মধ্যে সবিশেষ পার্থক্য নেই।

 

প্রিয় তারকার মৃত্যুতে আপনি কিছু একটা যদি লিখতেই চান কিংবা কোনো এককালে তার শার্ট বা শাড়ির কোণা ধরে তোলা ছবিটি যদি পোস্টই করতে চান; তা হলে তিনি লাইফ সাপোর্টে যাওয়ার পরপরই ছবিটি খুঁজে বের করে এডিটপূর্বক যুগোপযোগী করে ঘণ্টা কয়েক ফ্রিজে রেখে দিন এবং তাকে নিয়ে রচিত লেখাটি কোথাও সেভ করে রাখুন। পূর্বে উল্লিখিত প্রক্রিয়ায় মৃত্যুসংবাদ নিশ্চিত হলে তবেই তা পোস্ট করুন। দেরিতে পোস্ট দেওয়ার দরুন লাইক কিছু কম পড়লে তাতে আপনার সবিশেষ ক্ষতি হবে না। লেখাটি লিখে ফেলার পরে যদি দেখেন যে, তারকাটি মরেনি; তা হলে দু-হাত তুলে সংশ্লিষ্ট সৃষ্টিকর্তার কাছে দোয়া করতে থাকুন, যাতে তিনি তাড়াতাড়ি মরে গিয়ে আপনার লেখাটি পোস্ট করার পথ সুগম করে দেন। মনে রাখবেন—— শকুনের দোয়ায় গরু না মরলেও আপনার দোয়ায় তারকা মরবেই; কারণ শকুন সৃষ্টিজগতের নিকৃষ্ট জীব, আপনি উৎকৃষ্ট জীব, আপনি আশরাফুল মাখলুকাত।

মোদ্দা কথা— প্রিয় তারকার মৃত্যু উপলক্ষে ফেসবুকে শোক প্রকাশ করার আগে আপনার মাথা ও *ছা ঠান্ডা রাখুন।

 

৮০ পঠিত ... ১৫:৩৫, মে ১২, ২০১৯

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

কৌতুক

রম্য

সঙবাদ

স্যাটায়ার


Top