ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা পহেলা বৈশাখের দিন যে ৮টি কাজ করতে পারেন

৯৭৩ পঠিত ... ১৯:০৯, এপ্রিল ১৩, ২০১৯

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার অপ্রকাশিত 'বৈশাখী' গল্পে লিখেছিলেন, 'কন্যার বাপ সবুর করিতে পারিলেও ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় সবুর করিতে চাহিলো না!' ১৪ এপ্রিলের এক সপ্তাহ আগেই ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে পহেলা বৈশাখ উদযাপন নিয়েই যে এই কাল্পনিক লাইন, নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন। গত ৭ এপ্রিল (রবিবার) রাজধানী ঢাকার স্বনামধন্য ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় সাত দিন আগেই উদযাপন করে ফেলে নববর্ষ।

জানা যায়, পহেলা বৈশাখের পরপই পরীক্ষা থাকায় এমন তড়িঘড়ি করে পহেলা বৈশাখ পালন করে ফেলেছিলেন শিক্ষার্থীরা। সে যাই হোক, ননবর্ষ যেহেতু উদযাপন করে ফেলেছেন আগেই, তাহলে পহেলা বৈশাখে শিক্ষার্থীরা কী করবেন? পরীক্ষার প্রস্তুতি তো নেবেনই, তাই বলে কি তাদের জীবনে আসল বৈশাখ একেবারেই আসবে না? eআরকির 'পহেলা বৈশাখে কোনো কাজ না থাকা' আইডিয়াবাজদের দল নিজেরা ১৪ তারিখ কী করবেন তা ভাবতে ভাবতে তাই ব্র্যাকের শিক্ষার্থীরা সেদিন কীভাবে পহেলা বৈশাখ পালন করতে পারেন, সেটিও ভেবে ফেলেছেন! আপনি যদি ব্র্যাকে পড়েন তাহলে লেখাটি আপনার জন্যই, যদি আপনার কোনো বন্ধু ব্র্যাকে পড়ে তাহলে লেখাটি তার জন্য, সুতরাং দ্রুত তার ওয়ালে শেয়ার করে আসুন... ক্যাপশনে লিখুন এসো হে বৈশাখ...

 

১# দেশবাসীকে নববর্ষের স্পয়লার দিতে পারেন

টিভি সিরিজ আর মুভির এই জমানায় স্পয়লার এক মূর্তিমান আতংকের নাম। আর অবসর সময়ে একদল মানুষের শখের কাজ হচ্ছে যা নিয়েই জনতার আগ্রহ তাতেই স্পয়লারের পানি ঢেলে দেওয়া। নববর্ষ নিয়েও মানুষের মাঝে প্রচণ্ড আগ্রহ বিরাজমান। তাই এক সপ্তাহ আগে পহেলা বৈশাখের আনন্দ উদযাপন করা ব্র্যাকের শিক্ষার্থীরা নববর্ষের স্পয়লার দিয়ে দিতে পারেন।

 

২# ট্রাফিক সামলাতে পারেন

বৈশাখ উপলক্ষে বিশেষ কিছু রাস্তা বন্ধ তো থাকেই, পাশাপাশি রমনা এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশেপাশের এলাকায় থাকে প্রচন্ড ভিড়। গাড়িঘোড়া নিয়ে এদিকে এলে তাই স্থবির হয়ে রাস্তায় বসে থাকেন অনেকেই। তাই এক সপ্তাহ আগে পহেলা বৈশাখ উৎযাপন সেরে ফ্রি থাকার সুবাদে তারা নেমে পড়তে পারেন রাজপথে। বৈশাখ উপলক্ষে নামা এই বিপুল ট্রাফিকের চাপ সামলাতে ভলান্টিয়ার হিসেবে তারা এগিয়ে আসতে পারেন।

 

৩# একদিনের জন্য রেস্টুরেন্টে চাকরি নিতে পারেন

বৈশাখে মেইনস্ট্রিম স্থানগুলোতে যেতে না চাওয়া মানুষেরা এই দিনে ভিড় জমান বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে। এসব রেস্টুরেন্টে চুক্তিভিত্তিক ওয়েটার হিসেবে সার্ভিস দিতে পারেন ব্র্যাকের শিক্ষার্থীরা।

 

৪# ফুলের মুকুট বিক্রি করতে পারেন

বাংলাদেশে উৎসবের সাজের একটি অন্যতম অনুষঙ্গ হয়ে উঠেছে ফুলের মুকুট (অনেকে যদিও এটাকে সাম্প্রতিক সময়ে 'রাউটার'ও বলে থাকেন!)। পহেলা বসন্ত, পহেলা বৈশাখের মতো দিনগুলোতে নারীদের মাথার শোভাবর্ধন করতে দেখা যায় এইসব রঙবেরঙের মুকুটকে। স্বাভাবিকভাবেই এই দিনগুলোতে এর চাহিদাও থাকে প্রচুর। ব্র্যাকের শিক্ষার্থীরা তাই বৈশাখের দিনে ফুলের মুকুট বানিয়ে বিক্রি করার কাজ নিতে পারেন। এক্সট্রা উপার্জনের পাশাপাশি তারা পহেলা বৈশাখের দিনেই একটু বৈশাখের ছোঁয়া পেতে পারেন।

 

৫# গেম অফ থ্রোনস দেখার প্রস্তুতি নিতে পারেন

প্রায় দুই বছরের অপেক্ষা শেষ করে অবশেষে মুক্তি পেতে যাচ্ছে গেম অফ থ্রোনসের সর্বশেষ সিজন। আমেরিকায় ১৪ এপ্রিল রাতে যখন প্রথম পর্ব মুক্তি পাবে তখন বাংলাদেশে ১৫ তারিখ সকাল। কে বাঁচবে, কে মরবে আর কেইবা বসবে সেই কাঁটার সিংহাসনে, এই নিয়ে এতদিনের অপেক্ষার পালা অবশেষে শেষ হতে যাচ্ছে। এতো এতো থ্রিল, খুনোখুনি, যুদ্ধ, প্রেম-ভালোবাসা একসাথে দেখতেও তো কিছুটা মানসিক প্রস্তুতির দরকার পড়ে। তার উপর পুরনো সিজনগুলো একটু রিভাইজ দিয়ে নিয়ে নতুন সিজনের কাহিনীতে হারিয়ে যেতে হবে না। তাই, পহেলা বৈশাখের দিনে আরাম আয়েস করে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা গেম অফ থ্রোনসের প্রস্তুতি নিতে পারেন।



৬# নববর্ষের পাঞ্জাবি/শাড়ি ভাড়া দিয়ে হালকা উপার্জন করতে পারেন

নববর্ষ উপলক্ষে কেনাকাটা করা এখন অনেকটা ঈদ-পূজার শপিংয়ের মতোই হয়ে গেছে। তবুও সবাই যে নিজ পছন্দমতো শাড়ি-পাঞ্জাবি কিনতে পারেন, তেমনটাও কিন্তু না। তার উপর অনেকেই চান, সকালের মঙ্গল শোভাযাত্রায় এক পোশাকে আর বিকালের প্রোগ্রামে অন্য কোন পোশাকে যাওয়ার। কিন্তু সাধ আর সাধ্যের মেলবন্ধন তো সবসময় হয় না। এই সুযোগটাকেই কাজে লাগাতে পারেন ব্র্যাকের শিক্ষার্থীরা। যেহেতু একবার নববর্ষ পালন করেই ফেলেছেন, শাড়ি-পাঞ্জাবি তো আর কাজে লাগছে না। তাই স্বল্প টাকায় নিজেদের শাড়ি/পাঞ্জাবি ভাড়া দিতে পারেন বন্ধুদের। বাড়তি কিছু আয় কখনোই মন্দ না।

 

 

৭# পান্তা হোম ডেলিভারি সার্ভিস দিতে পারেন

অনেকেই আছেন যারা জ্যাম এবং গরমের ভয়ে (নাকি বৃষ্টি?) পহেলা বৈশাখে বের হন না। কিন্তু তাদেরও তো আছে পান্তা খাওয়ার অধিকার! সুতরাং ঘরে বসে পরীক্ষার প্রস্তুতির পাশাপাশি ব্র্যাকের শিক্ষার্থীরা প্রস্তুত করতে পারেন পান্তা। এরপর বিভিন্ন ফুড ডেলিভারি সার্ভিসের সহযোগিতা নিয়ে সেগুলো ঘরে ঘরে পাঠিয়ে পরীক্ষা পরবর্তী সুন্দর একটা ট্যুরের জন্য টাকাও জমিয়ে ফেলতে পারেন!

 

৮# eআরকিতে লিখতে পারেন

পহেলা বৈশাখে eআরকি লেখকরা বৈশাখ পালনে (অর্থাৎ ঘুমে) ব্যস্ত থাকবে। তাই সেদিন গেটিস দিতে তারা eআরকিতে বিভিন্ন উদ্ভট ফিচার লিখে দিন পার করতে পারেন।

৯৭৩ পঠিত ... ১৯:০৯, এপ্রিল ১৩, ২০১৯

Top