লোকটি রাস্তার মাঝখানে এই খাম্বার সঙ্গে কী করছে? জেনে নিন ১০টি সম্ভাব্য ঘটনা

১৯৩৪ পঠিত ... ০৬:২০, এপ্রিল ০৯, ২০১৯

ফেসবুকে খুঁজে পাওয়া উপরের দুটি ছবিটিতে ভদ্রলোক আসলে কী করছেন? খাম্বাটির সঙ্গেই বা তার সম্পর্ক কী? এমন দুর্গম দেয়াল ভেদ করে তিনি নিশ্চয়ই রাস্তা পার হচ্ছেন না... তাহলে ওখানে তার কী কাজ? ছবিটি দেখে এমন নানান প্রশ্ন আমাদের মনের খাম্বায় আটকে যায়। লোকটি ওখানে কী করছেন, এই প্রশ্নের কিছু সম্ভাব্য উত্তর খুঁজে বের করার চেষ্টা করেছিল আমাদের খাম্বা গবেষক দল।

 

১# লোকটি আসলে খাম্বাটিকে রাস্তা পার করিয়ে দিচ্ছেন। ওভারব্রিজে উঠতে অপারগ অসহায় খাম্বাটিকে রাস্তার পাশে মাঝখানে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে তিনি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন।

২# তিনি আসলে জীবন্ত ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা হিসেবে কাজ করছেন। মানব সিসিক্যাম হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্যই লোকটি খাম্বা জড়িয়ে ধরে সতর্ক নজর রাখছেন চারপাশে।

৩# বাংলাদেশে পোল ড্যান্স খুব একটা কোথাও দেখা যায় না। পোল ড্যান্স দেখতে বিদেশি সিনেমা বা ইন্টারনেটই ভরসা। ব্যস্ত এই নগরে পথচারীদের মাঝে খানিকটা বিনোদনের ছোঁয়া দেওয়ার জন্যই তিনি মাঝরাস্তায় পোল ড্যান্স করছেন।

৪# পোল ভল্ট খেলাটি বাংলাদেশে একেবারেই জনপ্রিয় না। অলিম্পিক আসলেই কেবল ইয়েলিনা ইসিনবায়েভার নাম শুনি আমরা। কিন্তু এই ভদ্রলোক নিজের মাঝে দেখেছেন কিংবদন্তী সার্গেই বুবকা বা ইসিনবায়েভার ছায়া। সামনের অলিম্পিকে বাংলাদেশের হয়ে পোল ভল্টে সফলতা অর্জনের লক্ষ্যেই তিনি সচেষ্ট। আর তাই মাঝরাস্তায় কড়া রোদে প্র্যাকটিস করছেন পোল ভল্টের।

৫# ভদ্রলোক সম্ভবত বানরের তৈলাক্ত বাঁশ বেয়ে ওঠার কঠিন অংকটি নিয়ে সংকটে আছেন। আর একজন বিজ্ঞানমনস্ক মানুষের মতো করে তিনিও খাতা কলমের সমস্যা সমাধানে বেছে নিয়েছেন হাতে-কলমে পরীক্ষা করে দেখা। ঢাকা শহরে অত লম্বা খাড়া বাঁশ পাওয়াটা কঠিনই বটে। আর তাই তিনি খাম্বাকেই বেছে নিয়েছেন প্র্যাক্টিকাল করার জন্য।

৬# ‘গ্রিন মাইল’ সিনেমায় আমরা দেখেছি বিশালদেহী কৃষ্ণাঙ্গ জন কফিকে। জন কফি একজন আধ্যাত্মিক মানুষ, যিনি অলৌকিক ক্ষমতার বলে অন্যের রোগকে নিজের দেহে নিয়ে আসতে পারতেন। এই খাম্বাটিও এমন একটি জাদুকরী খাম্বা, যা কিনা সবার রোগ-শোক শুষে নিতে পারে। আর তাই শরীর আর মনের সব রোগ দূর করতে তিনি পরম নির্ভরতায় জড়িয়ে ধরে আছেন।

৭# এক সময় ভারতীয় চিউইংগাম ‘হ্যাপিডেন্ট’-এর বিজ্ঞাপনে আমরা দেখেছি হ্যাপিডেন্ট চিবিয়ে দাঁতকে সাদা এবং আলোকিত করে তুলতে। পরে এই আলোকিত দাঁত দিয়ে আলোকিত করা হয়েছে ঘর-বাড়ি, পথ-ঘাট। সম্ভবত এই খাম্বার স্ট্রিট ল্যাম্প যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে নষ্ট। আর তাই ঐ বিজ্ঞাপন থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই হয়ত এই ভদ্রলোক রাস্তাকে আলোকিত করার কঠিন মিশনে নেমেছেন হ্যাপিডেন্ট চিবিয়ে।

হ্যাপিডেন্টের সেই বিজ্ঞাপন...

৮# খাম্বাটি ছোটবেলায় লোকটির স্কুলের ক্লাসমেট ছিল। অনেকদিন পর রাস্তা পার হওয়ার সময় দুজনের দেখা হয়ে যায়! এতদিন পর বন্ধুকে দেখে একে অপরকে আলিঙ্গন করবেন, কিছু সময় একসঙ্গে কাটাবেন, তাই তো স্বাভাবিক!

৯# তিনি শীঘ্রই এভারেস্টে উঠতে যাচ্ছেন। রাস্তায় হাঁটার সময় খাম্বাটি দেখে ভাবলেন, চটপট একটু প্র্যাকটিস করে ফেলা যাক…

১০# তবে অভিনেতা ও উ[পস্থাপক শাহরিয়ার নাজিম জয় যদি তার টকশোতে লোকটিকে জিজ্ঞেস করতেন আপনি খাম্বা ধরে কী করছেন, তাহলে হয়তো কারণটা জানা যেত এমন- ‘তারেক জিয়া খাম্বা নিয়া দুর্নীতি করছিল, তাই আমি খাম্বা ধরে দাঁড়ায়ে সেটার প্রতিবাদ করতেছি…’

১৯৩৪ পঠিত ... ০৬:২০, এপ্রিল ০৯, ২০১৯

Top