যুগে যুগে হৈচৈ ফেলে দিয়েছিল নারীদের যেসব কাজ!

২৩২৯পঠিত ...২২:০৮, মার্চ ০৮, ২০১৮

আমাদের দেশে এখনো নারীদের উপর আরোপ করা হয় অসংখ্য বাধা বিপত্তি। শৈশব থেকে সবকিছুতেই শুনতে হয় ‘না’। যদিও উন্নত বিশ্বের নারীরা একবিংশ শতাব্দীতে এসে স্বাধীনতার প্রশ্নে বাংলাদেশের নারীদের চেয়ে এগিয়ে আছেন হাজার মাইল, কিন্তু গত শতাব্দীর শুরুর অর্ধেকটা জুড়ে কিন্তু চিত্রটা এমন ছিল না। বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে ইউরোপ আমেরিকার নারীদেরকেও সংগ্রাম করতে হয়েছে হাজার নিষেধাজ্ঞা আর বিপত্তির বিরুদ্ধে। ইতিহাসের পাতা থেকে নারী অধিকার আদায়ে সংগ্রামী নারীদের তেমনই কিছু হৈচৈ ফেলে দেয়া ঘটনা থাকছে eআরকি পাঠকদের জন্য।

১#

ক্যাথরিন সুইজার ১৯৬৭ সালে বোস্টন ম্যারাথনে দৌড়ান। তিনি ছিলেন প্রথম নারী যিনি কোন ম্যারাথনে অংশ নিয়েছিলেন, এবং এটা ম্যারাথনে নারীদের আনুষ্ঠানিকভাবে অংশগ্রহণ করারও ৫ বছর আগের ঘটনা। ছবিতে, আয়োজকরা তাকে দৌড়াতে বাঁধা দিচ্ছেন।

 

২#

মাউদ ওয়েগনার ছিলেন প্রথম কোন নারী ট্যাটু শিল্পী, যিনি নিজের শরীরও ট্যাটু দিয়ে ঢেকে দিয়েছিলেন।

 

৩#

১৯৩৭ সালে টরেন্টোর ঘটনা এটি। ঐ শহরে প্রথমবারের মতো দুই নারী পা উন্মুক্ত রেখে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

 

৪#

ভোটাধিকারের আন্দোলনে দুই ব্রিটিশ নারী। ১৯০৬ সালের ঘটনা।

 

৫#

১৯৬৬ সালে ফরাসী ফ্যাশন ডিজাইনার, ইয়েভস সেন্ট লঁরা তার এক নারী মডেলকে প্রথম টাক্স্যেডো পরান। যেটা তৎকালীন সময়ে কোন নারীর পক্ষে সর্বোচ্চ পুরুষালী পোষাক হিসেবে বিবেচিত হতো।

 

৬#

১৯০৭ সালে অ্যানেট কেলারম্যানকে, যিনি কিনা একাধারে একজন পেশাদার সাঁতারু, অভিনেত্রী এবং লেখিকা, সুইমস্যুট পরে ছবি তোলার ‘অপরাধে’ গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে অশোভন আচরণের অভিযোগ আনা হয়েছিল।

 

৭#

. এই নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল পা অনাবৃত থাকে এমন সুইমস্যুট পরার ‘অপরাধে’। ১৯২২ এর শিকাগো।

 

৮#

১৯৫৭ সালে আমেরিকার সুপ্রীম কোর্ট কতৃক বৈধ করার আগ পর্যন্ত, এলিজাবেথ একফোর্ড ছিলেন একমাত্র আফ্রো-আমেরিকান নারী যিনি কোন স্কুলে পড়াশোনা করেছেন। এজন্যে তখন তাকে প্রায় একঘরে করে রাখা হয়েছিল।

 

৯#

৬টি উইম্বলডন সহ ১২টি গ্র্যান্ডস্লাম জয়ী বিলি জিন কিং ছিলেন লন টেনিসে নারী-পুরুষের বৈষম্য দূর করা করে সমতা প্রতিষ্ঠা করার একজন অগ্রপথিক।

 

১০#

মারিয়া তেরেসা দে ফিলিপ্পিস ছিলেন একজন ইতালীয় রেসিং ড্রাইভার। যিনি প্রথম নারী হিসেবে ফর্মুলা ওয়ানে নেমেছিলেন।

 

১১#

সেন্ডা বেরেন্সন ছিলেন একজন আমেরিকান নারী ক্রীড়াবিদ। তার হাত ধরে নারী বাস্কেটবলের সূচনা হয় এবং তিনি পুরুষদের বাস্কেটবল খেলার কিছু নিয়মেও পরিবর্তন এনেছিলেন।

 

১২#

আমাদের মধ্যে একটা প্রথাগত চিন্তা কাজ করে যে, সুন্দরী নারীরা কখনোই বিজ্ঞান বিষয়ক কোন বিষয়ে ভালো হন না। কিন্ত হেডি লামার যিনি একদিকে যেমন ছিলেন অনিন্দ্যসুন্দর এক অভিনেত্রী, তেমনি অপরদিকে একজন বিজ্ঞানী। হেডি লামার সেলুলার কম্যুনিকেশনের আবিষ্কারক।

 

১৩#

ম্যারি কান্ট হচ্ছেন প্রথম ডিজাইনার যিনি মেয়েদের জন্যে মিনিস্কার্ট ডিজাইন করে বিপ্লব ঘটিয়ে দিয়েছিলেন।

 

১৪#

১৯৫৬ সালে আলাবামায়,  বাসের পিছনের দিকে যেতে অসম্মতি জানালে রোজা পার্কস নামের এই ভদ্রমহিলাকে গ্রেফতার করা হয়। ছবিতে গ্রেফতারের পর তার আঙুলের ছাপ নিতে দেখা যাচ্ছে।

২৩২৯পঠিত ...২২:০৮, মার্চ ০৮, ২০১৮

পাঠকের মন্তব্য

 

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
    আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

    আইডিয়া

    গল্প

    রম্য

    সঙবাদ

    সাক্ষাৎকারকি

    স্যাটায়ার

    
    Top