রিয়েল লাইফ সিনেমা বন্ধের দাবিতে সিনেমা হল বন্ধ করার হুমকি দিলেন হল মালিকেরা

৩৯৪ পঠিত ... ২০:৪২, মার্চ ১৩, ২০১৯

আজ ১৩ মার্চ একটি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতি আগামী ১২ই এপ্রিল থেকে দেশের ১৭৪টি প্রেক্ষাগৃহ বন্ধের ঘোষণা দিয়েছেন। তাদের দাবি, যথেষ্ট সংখ্যক দেশীয় সিনেমা নির্মিত না হওয়ায় এবং উপমহাদেশীয় সিনেমা আমদানি সংক্রান্ত নানা জটিলতার কারণে সিনেমা হলে দর্শকের আগমন কমে যাচ্ছে। ফলে পড়ে যাচ্ছে সিনেমা হলের ব্যবসা।

কিন্তু বাংলাদেশের মানুষের আউটডোর একটিভিটি অত্যন্ত সীমিত। সেগুলোর মধ্যে সিনেমা দেখা অন্যতম। সত্যিই কি বিদেশি সিনেমার জটিলতার কারণে সিনেমা হলে এই সঙ্কট, নাকি এতে লুকিয়ে আছে অন্য কোন কারণ? এই রহস্যের সমাধানে মাঠে নামে eআরকি সিনেমা হল বিশেষজ্ঞরা।

এই ব্যাপারে চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কাল্পনিক কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি আমাদের কাছে প্রকাশ করেন এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। তিনি আমাদের বলেন, ‘আগে সিনেমা দেখা যেত সিনেমা হলে, নাহলে দেখতো টিভি বা কম্পিউটারে। তাও সেটা তারা নিজের ইচ্ছাতেই দেখতো। কিন্তু এখন তো কেউ না চাইলেও তাকে বাধ্য হয়ে সিনেমা দেখতেই হবে।’ আরেকটু খোলসা করে জানতে চাইলে তিনি খানিকটা বিরক্ত হয়ে আমাদের বলেন, ‘আপনারা দেখি কিছুই জানেন না। আরে দুইদিন আগে দেখলেন না, ডাকসু নামে কী চমৎকার এক সিনেমা হইলো ঢাবি ক্যাম্পাসে? আপনাদের সাইটেই তো ওইটার রিভিউ দেখলাম। আহারে, কি দারুণ প্লট, কি দারুণ সিনেমাটোগ্রাফি! সাসপেন্স আর টুইস্টের কথা তো বাদই দিলাম। এমন টুইস্ট তো নোলানের সিনেমাতেও দেখা যায় না। আমাদের সিনেমা হলে একটা সিনেমা সর্বোচ্চ দুই থেকে আড়াই ঘন্টার হয়। কিন্তু এই সিনেমা চললো পাক্কা দুইদিন ধরে।’

সম্প্রতি মুক্তি পাওয়া এই রিয়েল লাইফ সিনেমাটি জনপ্রিয় হওয়ার কারণেই মুষড়ে পড়েছেন হল মালিকেরা

এরপর তিনি আরো বলেন, ‘এরকম সিনেমা তো প্রায়ই হচ্ছে। গত বছরের শেষের দিকেও প্রায় একই কাহিনীর প্লটে নির্মিত হয়েছিল এমন একটি সিনেমা। গত ফেব্রুয়ারিতেও ঢাকার উত্তরে এক্সক্লুসিভভাবে এই রকম সিনেমা হয়েছিল। সামনে এমন সিনেমা আরো আসবে, তা বোঝাই যাচ্ছে। তো এখন দেশবাসীর সামনে এমন সিনেমা নিয়মিত তুলে ধরলে তারা আর সিনেমা দেখার প্রতি কোন আগ্রহই পোষণ করবেন না। আর সিনেমাগুলাও তো একদম ফার্স্টক্লাস হচ্ছে। এরকম করলে কে আর সিনেমা হলে আসবে?’

নেটফ্লিক্স, টরেন্ট ও ইউটউবসহ ডিজিটাল মিডিয়ার দৌরাত্মে এমনিতেই সংকটপূর্ণ সময় কাটাচ্ছেন হল মালিকেরা। এর মধ্যে আবার একের পর এক রিয়াল লাইফ সিনেমা মুক্তি পাওয়ায় তারা একেবারেই মুষড়ে পড়েছেন। নিউজ চ্যানেলের সামনে ডাকসু নির্বাচন সিনেমার কিছু দৃশ্য দেখতে দেখতে ফ্রাস্টেটেড এক হল মালিক বলেন, 'ভাই রে, সিনেমা দেখতে হয় সিনেমা হলে গিয়ে। ভার্সিটির হলে সিনেমা দেখাইলে কেমনে কি! তাও আবার এমন নাটকীয় রোমাঞ্চকর পলিটিকাল সোশ্যাল ড্রামা ককটেল! এগুলো যদি চলতেই থাকে, হল বন্ধ করে দেয়া ছাড়া আমাদের আর উপায় থাকবে না।'

তবে হল মালিকদের এই আক্রোশকে ভিত্তিহীন দাবি করে একজন রিয়াল লাইফ সিনেমা বিশেষজ্ঞ আমাদের জানান, 'সামনে খুব গুরুত্বপূর্ণ কোনো নির্বাচন নেই। সুতরাং নিকট ভবিষ্যতে আমরা এমন রিয়াল লাইফ সিনেমা নাও দেখতে পারি। হল মালিকরা আপাতত নিজেদের কাজে মন দিতে পারেন।'

৩৯৪ পঠিত ... ২০:৪২, মার্চ ১৩, ২০১৯

Top