চট্টগ্রামে মাদক সম্রাট আমির হামজার আগমনে মাদকসেবীদের মাঝে খুশির বন্যা

২২৯৭ পঠিত ... ২১:২৮, মার্চ ০৩, ২০১৯

বেশ কিছুদিন যাবৎ ‘মাদক’ শব্দটির সাথে সাথে চট্টগ্রামের কথা প্রায় একসাথে উঠে আসছে। সম্প্রতি টেকনাফে বেশ আয়োজন করে ১০২ জন মাদক পাচারকারী আত্মসমর্পণ করেছেন। এছাড়াও বিভিন্ন স্থানে মাদক পাচারের সাথে জড়িত অনেককেই আটক করা হচ্ছে। মাদকের অবাধ বিচরণ এতে কমে আসবে ভেবে অনেকে এতে উচ্ছ্বসিত হলেও মাদকসেবীদের মনে বিরাজ করছে বিষাদের ঘনঘটা। তাদের কথা কেউ শুনছে না, কেউ ভাবছে না।

কিন্তু তাদেরও আনন্দিত হওয়ার মতো একটি ঘটনা ঘটেছে কিছুদিন আগে। ফেসবুকে কিছুদিন ধরেই জনৈক মাদক সম্রাট আমির হামজার এলাকায় প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে দেখা গেছে এলাকার মাদকসেবীদের উচ্ছ্বাস। বৃহত্তর চট্টগ্রাম মাদকসেবী ঐক্যজোট নামের একটি সংগঠন থেকে ছাপানো ব্যানারে এই মাদক সম্রাট আমির হামজাকে জানানো হয়েছে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। সেখানে বলা হয়েছে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ও অস্ত্র ব্যবসায়ী এই আমির হামজা দীর্ঘদিন পালিয়ে ছিলেন। তার উপর জারি করা ছিলো ‘ক্রসফায়ারের’ পরোয়ানা। এত রকমের প্রতিকূলতাকে পিছনে ফেলে তিনি আবার ফিরে এসেছেন মাদক ব্যবসার হাল ধরতে।

এতদিন ধরে বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদের ধরপাকড় ও আত্মসমর্পণের সংস্কৃতিতে বেশ কোনঠাসা বোধ করলেও, এই ঘটনায় আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন দেশব্যাপী মাদকসেবীরা। একের পর এক অপারেশনে মাদকের খরায় যখন তারা হিমশিম খাচ্ছিলেন, তখন মাদক ব্যবসায়ীদের ক্ষমতায়ন দেখে তারা আবার ফয়েল পেপার আর সিরিঞ্জ হাতে নেয়ার স্পৃহা ফিরে পাচ্ছেন।

এমনই এক মাদকসেবীর কাছে তার অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি আমাদের বলেন, ‘চারিদিকে যেভাবে এমন সৎ সাচ্চা ব্যবসায়ীদের ধরে নিয়ে হয়রানি করছে, ক্রসফায়ার-আত্মসমর্পণের বেড়াজালে আটকে ফেলছে, তাতে করে আমাদের মতো মাদকসেবীরা নিরুপায় হয়ে যাচ্ছি। জীবনের নানাবিধ প্যারার মাঝে যদি একটু স্কোর করতে না পারার বেদনায় মাঝে মাঝে মাদক ছেড়ে দেয়ার কথাও ভেবেছি। কিন্তু আমির হামজার মতো এমন দুঃসাহসী ব্যবসায়ীদের যখন দেখতে পাই, নানা প্রতিকূলতাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে আবার মাদক ব্যবসার কান্ডারী হয়ে বসে, তখন মনে ভরসা পাই। স্ট্যাশ খালি করে আবার ডিলারকে কল দিতে আর দ্বিধা হয় না।’

তার এই জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে পড়েছে দেশ ছাড়িয়ে বিশ্বব্যাপী। কলাম্বিয়ার কিংবদন্তী মাদক সম্রাট পাবলো এস্কোবারের সাথে এ ব্যপারে কথা বলতে চাইলে তিনি আমাদের বলেন, ‘আমির হামজাকে যেভাবে ওর এলাকার মানুষ সাপোর্ট দিয়েছে, এমন করে আমাকে সাপোর্ট দিলে কলাম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট হওয়ার স্বপ্নপূরণ করতে পারতাম। আমার দূর্ভাগ্য যে কলাম্বিয়াতে জন্মেছি, চট্টগ্রামে আমার মাদক সাম্রাজ্য গড়লে এর চেয়ে অনেক প্রশংসা পেতাম।’

২২৯৭ পঠিত ... ২১:২৮, মার্চ ০৩, ২০১৯

Top