পদবীতে খালিসিকে পেছনে ফেলে দিলেন মাহফুজুর রহমান

১২৪৬ পঠিত ... ২১:৩১, ফেব্রুয়ারি ০৬, ২০১৯

গত ৪ ফেব্রুয়ারি ‘সময় ও অসময়ের গল্প’ সিরিজের নাটকের সংবাদ সম্মেলনে মাহফুজুর রহমান বক্তব্য রাখার সময় আমরা জানতে পারি তার নানাবিধ পরিচয়ের কথা। সেখানে তিনি নায়িকা পপিকে মেকআপ করে দেয়ার ছবি ভাইরাল হওয়ার প্রসঙ্গে কথা বলার আগে তিনি বিশদভাবে বর্ণনা করেন সংগীত জগতে প্রোডিউসিং, ডিরেকশন, এমনকি মাস্টারিং করায় তার অবদান। এছাড়া ক্যামেরা হাতে ভিডিও শুটিং, অভিনেতাদের ডিরেকশন দেয়া, প্রয়োজনে মেকআপ এক্সপার্ট হিসেবেও তিনি সরবে অংশগ্রহণ করেন, সে কথাও আমরা তার মুখ থেকে জানতে পারি।

 

সোশ্যাল মিডিয়াতে পপি তাকে তার নিজস্ব মেকআপ ম্যান হিসেবে সেই মেকআপ করার সময়ের ছবি ভাইরাল করেছে বলে তিনি ক্ষুব্ধ হয়েছেন। অথচ তিনি হচ্ছেন বিজনেস ম্যাগনেট, চেয়ারম্যান অফ এটিএন, শুটার অফ ভিডিও, দ্য বিউটি এক্সপার্ট, ডিরেক্টর অফ ফটোগ্রাফি, রাইটার অফ লিটারেচার এবং সর্বোপরি প্রোডিউসার, ডিরেক্টর, মিক্সার, মাস্টার ও ফাদার অফ মিউজিক মাহফুজুর রহমান। তার মতো একজন মানুষকে কেবলমাত্র ‘মেকআপম্যান’ পরিচয়ে পরিচিত করার চক্রান্তে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি পপিকে ‘হারামজাদী’ সম্বোধন করে বলেন যে, কাজটি জঘন্যতম হয়েছে এবং পপিকে তার পা ধরে মাফ চেয়ে সেই ছবি ফেসবুকে দিতে হবে এমন মন্তব্যও করেন।

কিন্তু তার এই হারামজাদী সংক্রান্ত আলাপে নয়, অন্য একটি কারণে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে গেম অফ থ্রোনস জগতে। হুট করে মুষড়ে পড়েছেন আয়রন থ্রোনের অন্যতম দাবিদার ডেনেরিস স্টর্মবোর্ন টারগারিয়ান ওরফে কুইন অফ আন্দালস অ্যান্ড দ্যা ফার্স্ট মেন, খালিসি অফ দ্যা গ্রেট গ্রাস সি, ব্রেকার অফ চেইন্স অ্যান্ড মাদার অফ ড্রাগনস। মাহফুজুর রহমানের সংবাদ সম্মেলনের ফলে তার কেন এত বিষাদ আর যাতনা? জানার উদ্দেশ্যে সেভেন কিংডমের দিকে রওনা দেয় eআরকির পদবী বিষয়ক বিশেষ অনুসন্ধানী দল।

এসোসের বিশাল প্রান্তর আর ন্যারো সি পাড়ি দিয়ে eআরকি দল পৌঁছায় সেভেন কিংডমের ড্রাগনস্টোন অঞ্চলে। সিজন এইটের আগে এখানেই বিশ্রামে আছেন মাদার অফ ড্রাগনস। eআরকি থেকে এসেছি শুনে তিনি খুশিমনেই আমাদের অভ্যর্থনা জানান। খানিকটা কুশলাদি বিনিময়ের পর তিনি তার মনের গহীনে লুকিয়ে থাকা দুঃখের ঝুলি মেলে ধরেন eআরকির সামনে।

ডেনেরিস টারগারিয়ান জানান যে, দীর্ঘদিন ধরে বহু ত্যাগ তিতিক্ষার পর অর্জন করতে পেরেছিলেন নামের সাথে বহুবিধ বাহারি পদবী। এর জন্য কত প্রাণ গেছে তার কোন ইয়ত্তা নেই। এত প্রাণের বিনিময়ে যে পদবী তাই নাকি আজ হুমকির মুখে। পুরো ব্যাপারটি বুঝিয়ে বলতে বললে খালিসি বলেন ‘কয়েকদিন আগে জনের সৎ ভাই ব্রন তার তৃতীয় চক্ষু দিয়ে দেখল এক বিচিত্র সম্মেলনের দৃশ্য। বিশেষ ব্লুটুথ কানেকশন দিয়ে আমি তার চোখ দিয়ে দেখতে পাই, সেখানে মাহফুজুর রহমান নামের কোন এক লোক তার বৃত্তান্ত বর্ণনা করছিলেন। শুনতে শুনতে তো আমি হতবাক হয়ে গেলাম। এই লোকের পদবীর তো কোন সীমা পরিসীমা নাই। তাহলে কী লাভ হলো আমার এত নাম কুড়ানোর? না পেলাম আয়রন থ্রোন, না পেলাম সবচেয়ে বড় নাম!’ হাপুস নয়নে কাঁদতে কাঁদতে খালিসি এসব কথা বলছিলেন।

এ সময় জন স্নো ওরফে অ্যাগন টারগারিয়েন একটি পিরিচে কিছু ড্রাগন ফ্রুট পরিবেশন করেন। আবেগী হয়ে খালিসি আরো বলেন, ‘পপির উপর ক্ষিপ্ত হওয়াটাই স্বাভাবিক। আমি তো বুঝি! শুধু মেকআপম্যান বলে ডাকার মতো এত বড় অপমান! আমাকে যদি জন পুরো নামে না ডাকে, তবে তাকে তো আমি সেদিন আমার ঘরেই ঢুকতে দেই না। তার মত এত মহান পদবীর মানুষের কাছে পপির অতি শীঘ্রই ক্ষমা প্রার্থনা করা উচিৎ।’

তিনি কথা দেন, আয়রন থ্রোনে আরোহণ করেই তিনি সেভেন কিংডমের পক্ষ থেকে পপিকে তিরস্কার করে একটি বিবৃতি দিয়ে র‍্যাভেন পাঠাবেন। তিনি আশা করছেন এটিএন বাংলার সাথে সাথে এইচবিওতেও এই বিবৃতি প্রকাশিত হবে।

এছাড়াও তিনি কথা বলেন সেভেন কিংডমের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে। সিংহাসনে বসলে সেভেন কিংডমের সব সমস্যা দূর হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। কথায় কথায় আরও অনেক কিছু জানা গিয়েছিল, কিন্তু সেসব প্রকাশ করা যাচ্ছে না। তার জীবিত দুই ড্রাগন দিয়েই তিনি eআরকি কার্যালয় গুড়িয়ে দেবার এক প্রকারের প্রচ্ছন্ন হুমকি দিয়ে রাখেন।

১২৪৬ পঠিত ... ২১:৩১, ফেব্রুয়ারি ০৬, ২০১৯

Top