মহাকাশ থেকে ছবি পাঠালেন প্রথম বাংলাদেশি মহাকাশচারী

৯২৯১ পঠিত ... ১৯:৩২, জানুয়ারি ২৮, ২০১৯

উপরের ছবিটা দেখুন ভালোভাবে। কী ভাবছেন? হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছেন। চাঁদ ও মঙ্গলের পর প্রথমবারের মত বিশ্বের কোনো দেশ জয় করলো শনি গ্রহ। আর সেই দেশটির নাম বাংলাদেশ। শনির উদ্দেশ্যে গত শনিবার রওয়ানা দেয়া মহাকাশযান- 'মায়ের দোয়া নভোচারী পারাপার' থেকে এই ছবিটি ফেসবুকে আপলোড করেন একজন মহাকাশচারী। পরে ছবিটা ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গেলে বিশ্ববাসী জানতে পারে বাংলাদেশের শনি বিজয়ের খবর। এ সময় আমেরিকা ও রাশিয়ার নভোচারীদের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়।

নাসার একজন কর্মকর্তা eআরকিকে বলেন, 'জানালা দিয়ে আশেপাশের দৃশ্য দেখতে দেখতে যাওয়া যায় এরকম মহাকাশযান আমরা এখনো কল্পনাও করতে পারিনি, কিন্তু বাংলাদেশ ইতোমধ্যে তৈরি করে ফেলেছে। বিষয়টি নিঃসন্দেহে অনেক বড় এক বিপ্লব।' তবে মহাকাশচারীর দেহে কোনো স্পেশাল স্যুট ও মাথায় হেলমেট না থাকায় তার সেফটি নিয়ে তিনি কিঞ্চিৎ আশংকা জ্ঞাপন করেন।

তবে এত গ্রহ থাকতে কেন শনি গ্রহ? এই বিষয়টা নিয়ে আমাদের মনে সন্দেহ দেখা যায়। অন্যান্য দেশ যখন মঙ্গলের পেছনে ঘুরছে, তখন বাংলাদেশের আচানক এই শনি গ্রহে অভিযান অবশ্যই কৌতুহল সৃষ্টি করে। তবে সন্দেহ দূর হয় ছবির এই মহাকাশচারীর কথায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রচারবিমুখ এই ব্যক্তি বলেন, 'আসলে আমি একটা সরকারি অফিসে চাকরি করি। সপ্তাহে অন্যান্যদিন অফিস থাকে, শনিবার ছুটি। এজন্যই শনি গ্রহকে বেছে নেয়া।'

কিন্তু ছুটি তো শুক্রবারেও ছিলো তাহলে শুক্র গ্রহ কেন নয়?

এই প্রশ্নের জবাবে ঐ ব্যক্তি বলেন, 'ঐ দিন টাইম পাওয়া যায় না। সারা সপ্তাহের বাজার করতে হয়, জুম্মার নামাজ আছে, তাছাড়া ফ্যামিলিকেও টাইম দিতে হয়।'

আমাদের আরো একটি প্রশ্ন ছিলো মহাকাশযানের ডিজাইন নিয়ে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, 'মূলত মহাকাশযানে বসে বিড়ি টেনে ধোয়া বাইরে ছাড়ার জন্যই এই খোলা জানালার ব্যবস্থা করা হয়েছে।'

তবে এই গৌরবের মুহুর্তেও কিছু নিন্দুক এটাকে ভুয়া নিউজ দাবি করে বলছে, এই ছবি কোনো মহাকাশযানের না। এটা এক ভাঙাচোরা লোকাল বাসের পেছনের সিটের ছবি। যদিও নাসার বাংলাদেশ শাখা কর্তৃপক্ষ এই দাবিকে ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছে।

৯২৯১ পঠিত ... ১৯:৩২, জানুয়ারি ২৮, ২০১৯

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top