সালমান এফ রহমানের দারিদ্র্যের গল্পটি ছবি তুলে বলতে চান সিএমবি বাতাস

৩৯৫৯ পঠিত ... ১৭:৪৪, ডিসেম্বর ০২, ২০১৮

সম্প্রতি বাংলাদেশের খ্যাতনামা ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমান, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থীর হলফনামায় নিজের কোনো বাড়ি নেই বলে দাবী করছেন। শুধু তাই নয় নিজের, স্ত্রীর বা নির্ভরশীলদের কারোরই বাড়ি-আসবাবপত্র নেই। এমনকি ব্যক্তিগত গাড়িও নেই কারো। নিজের নামে যানবাহন থাকার কথা বললেও স্ত্রী কিংবা নির্ভরশীলদের কোনো যানবাহন নেই। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের হয়ে নৌকা প্রতীকের সম্ভাব্য এ প্রার্থী হলফনামায় তিনি এ কথা উল্লেখ করেন।

খবরটি প্রকাশের পরপরই সাড়া পরে গেছে দেশজুড়ে, সোশ্যাল মিডিয়াতেও আলোচনার শীর্ষে চলে এসেছে। দেশের এমন এক স্বনামধন্য ব্যবসায়ীর দুর্দশার খবরে শুধু দেশে না, আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। সর্বশেষ জানা যায়, আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন পোট্রেট ফটোগ্রাফার সিএমবি বাতাস, সালমান এফ রহমানের ছবি তুলতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। তিনি সাধারণত গরীব এবং হতদরিদ্র মানুষদের পোট্রেট ছবি তুলে তাদের সংগ্রামের গল্পটি বলে থাকেন।

এ ব্যাপারে সবিস্তারে জানার জন্যে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘দেখেন, যারা আমার ফেসবুক পেজ এবং নানান এক্সিবিশনে আমার ছবি দেখেছেন, তারা জানেন, দেশ-বিদেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীই আমার ফটোগ্রাফির মূল সাবজেক্ট। ছবির মাধ্যমে আমি দারিদ্র্যের সঙ্গে তাদের সংগ্রামের গল্পগুলো তুলে ধরার চেষ্টা করি। সালমান এফ রহমানের দারিদ্র্যের গল্পটি আমাকে প্রচন্ড নাড়া দিয়েছে। বিশ্বের একজন শীর্ষ ধনী, অথচ তার নেই বাসাবাড়ি, নেই গাড়ি, নেই ঘরের ফার্নিচার। আমি এখানে একটা ভীষণ সংগ্রামের আভাস পেয়েছি। তাই শিল্পী হিসেবে তার এই ব্যতিক্রমী সংগ্রামের গল্পটা আমি আমার লেন্সে তুলে ধরতে চাই।

বাতাসে ইংরেজিতে জানালেন এই ফটোসেশন নিয়ে তার আরো কিছু ভাবনা, ‘ছবিতে ফুটে উঠতে হবে তার দারিদ্র্য, তার অভাবের চিত্র। ঘর-বাড়ি-গাড়িহীন একজন ধনী মানুষ, তার সংগ্রামটি নিশ্চয়ই অন্য দরিদ্র্য মানুষদের চেয়ে অনেক আলাদা। তাই একটি-দুটি ছবি নয়, তাকে নিয়ে করতে চাই পুরো একটি ফটোসেশন।'

কৃতজ্ঞতা: কালা কাউয়া

এই ফটোসেশনটি বেক্সিমকো কোম্পানি স্পন্সর করবে কিনা তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি প্রস্তাব দিয়েছিলাম। ওরা জানিয়েছে, নির্বাচনের আগ পর্যন্ত তাদের কাছে কোনো টাকা নেই। তারাও অভাবে আছে। ভাবছি, ওদেরও একটা ফটোসেশন করবো।’

এ পর্যায়ে তিনি আমাদের জানান, ছবিগুলো ফেসবুকে পোস্ট দেয়ার পর যে ক্যাপশন দেবেন, তা তিনি অলরেডি লিখতে শুরু করেছেন। তিনি আমাদের কয়েক লাইন পড়ে শোনান- From That day when I decided to stand in the election, I have no house, no furniture and nothing. It was hard to be a rich man who has nothing. But I somehow managed. I dont know how I became rich though having nothing. But it’s life, which is stranger than share market. And this election, very important election. So, despite having no wealth, I am happy if I win the election. This is my spirit of being happy.’

এ ব্যাপারে আমরা সালমান এফ রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও, উনার কোনো মোবাইল ফোন না থাকায় সেটি সম্ভব হয়নি।

 

সালমান এফ রহমান সংক্রান্ত আরও পড়ুন:

৩৯৫৯ পঠিত ... ১৭:৪৪, ডিসেম্বর ০২, ২০১৮

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

আইডিয়া

গল্প

রম্য

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top