আর্জেন্টিনার কোচ হতে চান গতিদানব খালেদ মাহমুদ সুজন

১২৯৭০পঠিত ...১৮:৩০, জুলাই ১১, ২০১৮

বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার বেশ আগেই শেষ হয়ে গেছে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ। সমর্থকরাও সেই কষ্ট প্রায় মেনেই নিয়েছে। সমর্থকদের মধ্যে যারা এখনো সেই কষ্ট মেনে নিতে পারেননি, তাদের জন্য আশার বাণী শোনাচ্ছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ডিসকাউন্ট কোচ এবং বল হাতের গতির ঝড় তোলা গতিদানব খালেদ মাহমুদ সুজন। বাংলাদেশ দলের কোচ হতে না পারলেও আর্জেন্টিনা দলের কোচ হতে চান তিনি।

বাইক চালানোর সময় অত্যন্ত গতিতে থাকার সময়ই তিনি জানান এই ইচ্ছার কথা। প্রচন্ড গতিতে তিনি বলেন, 'আমি ম্যারাডোনার ভক্ত। কৈশোরে আমি ফুটবলার হতে চেয়েছিলাম। পরে ম্যারাডোনার হাত দিয়ে গোল দিতে দেখেই আমি বল হাতে তুলে নিই। আমার ক্রিকেটের আদর্শ ম্যারাডোনার দলকে এভাবে খোঁড়াতে দেখে খারাপ লেগেছে। কিন্তু মনে রাখবেন, আমি ফাইটার। আমি চাই মেসিরাও ফাইটার হয়ে উঠুক।'

নেক্সট বিশ্বকাপ চাঁদে হলে চাঁদে গিয়েও তিনি আর্জেন্টিনা দলের সাথে থাকবেন বলে জানিয়েছেন এই বহু প্রতিভা ও পদধারী ক্রিকেটার। বাংলাদেশ ক্রিকেট বিশ্বকাপ জেতার আগেই আর্জেন্টিনাকে কাপ পাইয়ে দেবে বলে ঘোষণা দেন তিনি।

খাতা কলমে কিঞ্চিত আঁকিবুঁকি করে এই লিটল মাস্টার জানান, এ বিষয়ে তিনি এরই মধ্যে ছক কষতে শুরু করেছেন। আর্জেন্টিনার ডিফেন্সের প্রাণভোমরা হিসেবে জাভেদ ওমর বেলিম গুল্লুর নাম তিনি প্রস্তাব করেছেন। তিনি চান ডিফেন্সে একজন অভিজ্ঞ এবং মাটি কামড়ে পড়ে থাকা খেলোয়াড় থাকুক। জাভের ওমর বেলিমকে 'ডিফেন্সের শার্ক' উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'গুল্লু শুধু মাটি না, ঘাস কামড়েও পড়ে থাকতে পারে। তবে বল টেম্পারিং ইস্যু হতে পারে দেখে জাস্ট বল কামড়াতে পারবে না।'

এদিকে মেসির জুটি হিসেবে সুজন তৈরি করছেন লিটন দাসকে। তিনি বলেন, ধ্বংসস্তূপের মাঝেও লিটন একা দলে লড়ে যায়, মেসিও তাই। এই দুই এককে এক করে এগারো করতে হবে। এরাই হবে আমার ট্রাম্প কার্ড। তিনি আরো জানান, আশা জাগিয়ে হেরে গেলেও হৃদয় জিততে এই দলের কোনো সমস্যা হবে না। মাঠে আবেগে কাইন্দা বুক ভাসায় ফেলার জন্য আর্জেন্টিনার প্রস্তাবিত গোলকিপার মুশফিকের সাহায্য নেয়া হবে। তিনি পেনাল্টি না ঠেকাতে পারলে কান্নাকাটি করে হৃদয় জিতবেন, ঠেকাতে পারলে সাপের অঙ্গভঙ্গী করে ব্রাজিল সাপোর্টারদের চটিয়ে দেবেন!

এছাড়াও শাহাদাত হোসেন রাজীবকেও সেন্টার ফরোয়ার্ড হিসেবে রাখতে চান সুজন, যেন আগামী বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা নেইমারের অভিনয়কেও পেছনে ফেলতে পারে।

দলের মধ্যমণি হিসেবে এই বহু পদধারী জাদুকর বলেন, 'সাকিব ছাড়া এখানে upay (উপায়) নাই।' সাকিব মাঠে Upay এর মাধ্যমে মেসিকে বল পাঠাবেন বলে জানান তিনি।

স্ট্যাটেজির কথা জানতে চাইলে তিনি তার খাতা খুলে দেখান। ১-১-১-১-১-১-১-১-১-১-০ নামের এই ফর্মেশন ফুটবলে একেবারেই অভিনব বলে তিনি জানান, টোটাল এবং ইন্ডিভিজুয়াল ফুটবল দুটোকেই তিনি একসাথে মিলিয়ে এই ফর্মেশন আবিষ্কার করেছেন। তবে দলের মূল শক্তি জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, 'স্পন্সর হিসেবে থাকবে গ্রামীণফোন। আমার বিশ্বাস, গ্রামীণফোন থাকলে আর্জেন্টিনা বহুদূর যেতে পারবেই!'

১২৯৭০পঠিত ...১৮:৩০, জুলাই ১১, ২০১৮

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
    আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

    আইডিয়া

    গল্প

    রম্য

    সাক্ষাৎকারকি

    স্যাটায়ার

    
    Top