উন্মাদের ৪০ বছর পূর্তিতে পাঁচ দিনব্যাপী কার্টুন প্রদর্শনী ও আরও নানান ফূর্তি

৪২৯পঠিত ...১৫:২৮, জুলাই ১০, ২০১৮

দেখতে দেখতে ৪০ বছর পার করে ফেললো সবার প্রিয় রম্য ও স্যাটায়ার ম্যাগাজিন উন্মাদ। জনপ্রিয় ইংরেজি স্যাটায়ার ম্যাগাজিন ম্যাড-এর আদলে উন্মাদের প্রথম সংখ্যাটি প্রকাশিত হয় ১৯৭৮ সালে। দেশের তরুণ কার্টুনিস্টদের 'বস' খ্যাত আহসান হাবীবের সম্পাদনায় গত চার দশক ধরে প্রকাশিত হতে থাকা উন্মাদ পড়ে পাঠক হেসে ক্লান্ত হলেও, হাসিয়ে ক্লান্ত হয়নি উন্মাদ। উন্মাদের ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে গত ৫ থেকে ৯ জুলাই পর্যন্ত ধানমন্ডির দৃক গ্যালারিতে হয়ে গেলো 'উন্মাদ উৎসব'। কার্টুন প্রদর্শনী, কার্টুন প্রতিযোগিতা ছাড়াও উৎসবের পাঁচ দিন জুড়েই ছিল নানান আয়োজন।

৪০ বছর পূর্তি উৎসব উপলক্ষে দেশব্যাপী কার্টুনিস্টদের কার্টুন পাঠানোর আহ্বান জানানো হয় বেশ আগেই। কার্টুনিস্টদের বিপুল পরিমাণ সাড়া টের পেয়ে কার্টুন পাঠানোর সময়সীমা বাড়ানো হয় ২৫ জুন পর্যন্ত। নানা যাচাই বাছাই শেষে ৮০ জন কার্টুনিস্টের প্রায় ২০০টি কার্টুন নিয়ে শুরু হয় প্রদর্শনী।

'উন্মাদ'দের এই মিলনমেলায় হাজির হয়েছিল যেন গোটা শহর। এসেছিলেন উন্মাদের শুরুর দুই প্রতিষ্ঠাতা ইশতিয়াক হোসেন ও কাজী খালিদ আশরাফসহ উন্মাদের সেই প্রথম দিনগুলো থেকে এখন পর্যন্ত উন্মাদের সঙ্গে থাকা পুরোনো ও নতুন কার্টুনিস্ট-আইডিয়াবাজরা। ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ড. মোহাম্মদ ইব্রাহিম, নজরুল ইসলাম খান, আফজাল হোসেন প্রমুখ গুণীদের পদচারণা ছিল উৎসবজুড়ে।

উন্মাদ উৎসবের নানান উন্মাদীয় পরিবেশনা!

উৎসবে হাজির হয়েছিলেন গায়ক শাহেদ, সৈয়দ নাফিস, মিনার রহমানসহ জনপ্রিয় শিল্পীরা। নাচে গানে তারা মাতিয়ে তোলেন পুরো গ্যালারি। কার্টুনের প্রদর্শনী ছাড়াও ছিল বেশ কয়েকটি সেলফি জোন, সেখানেই ভিড় দেখা গেছে বেশি! ছিল ল্যান্ডফোন দিয়ে সেলফি তোলার চ্যালেঞ্জ, উন্মাদ ফ্রেমে উন্মাদ সেজে ছবি তোলার সুযোগ। প্রদর্শনীর পুরো সময় জুড়েই কার্টুনিস্টরা করেছেন দর্শকদের লাইভ ক্যারিকেচার। এছাড়াও ছিল থ্রিডি ইনস্টলেশন ও পেইন্টিং কার্টুন। 'শান্তিতে' উন্মাদ পড়ার সুবিধার্থে ছিল একটি 'উন্মাদাসন'ও!

প্রদর্শনীর শেষ দিন ঘোষণা করা হয় 'উন্মাদ কার্টুন পুরষ্কার'। প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুরস্কার জেতেন যথাক্রমে মোরশেদ মিশু, সৈয়দ রাশাদ ইমাম তন্ময় ও রীশাম শাহাব তীর্থ।

প্রথম পুরস্কার জয়ী মোরশেদ মিশু একজন খাঁটি উন্মাদের মতোই জানান তার প্রতিক্রিয়া, 'নোবেল কিংবা পুলিৎজার পেলেও এত খুশি লাগতো না, উন্মাদ অ্যাওয়ার্ড পাওয়াতে যে পরিমাণ খুশি লাগছে! জীবনে কখনো কিছুতে ফার্স্ট হইনি... এবারই জীবনে প্রথমবার ফার্স্ট হলাম! জ্বি ধন্যবাদ!'

কার্টুনিস্ট তন্ময় জানান উন্মাদের সঙ্গে এতগুলো বছরের অভিজ্ঞতার কথা, 'উন্মাদে কাজ করতে শুরু করি ১২ বছর আগে। আর পাঠক হিসেবে উন্মাদের সঙ্গে এর আগেও কতদিন আছি তা ঠিকঠাক মনেও নেই। উন্মাদের এই ৪০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানেই মনে পড়লো, আমার প্রথম কার্টুন প্রদর্শনীটা হয়েছিল উন্মাদের ৩০ বছর পূর্তি উৎসবে। উন্মাদ পরিবারে এতগুলো দিন কীভাবে কেটে গেছে টেরও পাইনি। সারাটা জীবন উন্মাদের সঙ্গেই কাটবে।'

তন্ময় উন্মাদের সহযোগী সম্পাদক হিসেবেও কাজ করছেন দীর্ঘদিন হয়। এই উৎসব কার্টুনিস্টদের মধ্যে কেমন সাড়া ফেলেছিল? এমন প্রশ্নে জানালেন তন্ময়, '৪০ বছর পূর্তি উৎসবের প্রদর্শনীতে কার্টুন এসেছে দেশের নানান জায়গা থেকে। মেইলের কথা বাদই দিলাম, উন্মাদ অফিসে ডাকযোগে আসা কার্টুনের ভিড়ে বসার জায়গা নেই এমন অবস্থা। ৪০ বছর পরেও কার্টুনিস্ট, আইডিয়াবাজ ও পাঠকদের এমন ভালোবাসা, এটাই আমাদের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি!'

কার্টুন প্রতিযোগিতায় পুরস্কার পাওয়া সম্পর্কে তন্ময় জানালেন, কার্টুন বা শিল্পের ব্যাপারে তিনি কোনো প্রতিযোগিতায় বিশ্বাসী নন, 'কোন শিল্পটা কোনটার চেয়ে ভালো, এটার আসলে কোনো দাড়িপাল্লাতেই মাপা যায় না। উন্মাদের ৪০ বছর পূর্তিতে পাওয়া এই পুরস্কার আমার কাছে উন্মাদ পরিবারের পক্ষ থেকে একগুচ্ছ ভালোবাসার মতো! দেশ-বিদেশে এর আগে পুরস্কার পেয়েছি অনেক, কিন্তু উন্মাদের কাছ থেকে পাওয়া পুরস্কারের অনুভূতি একেবারেই অন্যরকম। আশা করি এই পুরস্কার তরুণ কার্টুনিস্টদের অনুপ্রাণিত করবে।'

আরেক বিজয়ী তীর্থ জানান, 'ভালো লাগছে, কার্টুন একে পুরস্কার এই প্রথম, তাই ভালো লাগাটাও একটু বেশি।' উন্মাদ সম্পর্কে তীর্থ জানালেন তার অনুভূতি, 'উন্মাদের সাথে পরিচয় আর সম্পর্ক ছেলেবেলা থেকেই। উন্মাদে কখনো কাজ করা হয়নি। তবে বড় হয়েছি বস আহসান হাবীব, তরীকুল ইসলাম শান্তদের মতো কার্টুনিস্টদের কাজ দেখে। মেহেদী হক ভাই অনেক বড় অনুপ্রেরণা।'

unmad 40 years celebration photos earki (5)

বছরের পর বছর ধরে উন্মাদ সম্পাদনা করে যাওয়া চিরতরুণ লেখক ও কার্টুনিস্ট আহসান হাবীব জানিয়েছেন 'উন্মাদ উন্মাদনা'র ৪০ বছর পূর্তিতে তার অনুভূতির কথা, 'উন্মাদ শুধু একটি কার্টুন পত্রিকাই নয়, এটি একটি প্রতিষ্ঠানের মতো যেখানে তরুণ কার্টুনিস্ট ও আইডিয়ানিস্টরা কাজ করে। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন তরুণ-তরুণীরা এখানে কাজ করেছে এবং পরিণত বয়সে বিদায় নিয়েছে। এই প্রক্রিয়া এখনো চলছে।'

উৎসব যারা মিস করেছেন তাদের জন্য প্রদর্শনীর থেকে বাছাই করা ৩৮টি কার্টুন eআরকি পাঠকদের জন্য দেয়া হলো-

 

১# তন্ময়

২# ইশমাম

৩# অসীম

৪# ঐশিক

 

৫# মানিক-রতন

 

৬# রাফিদ

 

৭# শিখা

 

৮# তন্ময়

 

৯# তন্ময়

 

১০# তন্ময়

 

১১#

 

১২#

 

১৩# আলভী

 

১৪# ইশমাম

 

১৫# তন্ময়

 

১৬#

 

১৭# তন্ময়

 

১৮# মেহেদী

 

১৯# মেহেদী

 

২০# রাজীব

 

২১# তন্ময়

 

২২# তন্ময়

 

২৩#

 

২৪# মাহাতাব

 

২৫# সিধু

 

২৬# তন্ময়

 

২৭#

২৮# তীর্থ

২৯# রাহনুমা

 

৩০# তীর্থ

 

৩১# মিতু

 

৩২# মাহাতাব

 

৩৩# তন্ময়

 

৩৪#

 

৩৫# রোমেল

 

৩৬#

 

৩৭# ঐশিক

৩৮# ঐশিক

৪২৯পঠিত ...১৫:২৮, জুলাই ১০, ২০১৮

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
    আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

    আইডিয়া

    গল্প

    রম্য

    সাক্ষাৎকারকি

    স্যাটায়ার

    
    Top