ছুটির দিনে অন্তত হাসুন : ২০টি মজার কৌতুক

৭৩২৮পঠিত ...০০:৫৫, জুন ০১, ২০১৮

ছুটির দিন মানেই আনন্দ। সেই আনন্দের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা হাসির ডোজ পড়লে নিশ্চয়ই সোনায় সোহাগা! দেখুন তো, এই জোকগুলো পড়ে হাসতে পারেন কিনা!

১#

২#

ডাক্তার : আপনার অ্যাপেনডিসাইটিসের সমস্যা হয়েছিলো কখনো?

রোগী : হ্যাঁ ছোটবেলায় স্কুলে থাকতে, বানান করতে গিয়ে...

৩#

আপনার ছেলে আমার ঘরের জানালার কাঁচ ভেঙে ফেলেছে। দয়া করে ওকে বকে দেবেন।

পরদিন তিনি আবার এলেন।

: আপনার ছেলে এবার আমার শো-কেসের কাঁচ ঢিল মেরে ভেঙে দিয়েছে।

: দেখুন ছোট মানুষ, আচ্ছা আমি আচ্ছামতো বকে দেবো।

পরদিন আবার সেই ভদ্রলোক ছুটে এলেন রেগেমেগে—

: বলি পেয়েছেনটা কী! আপনার ছেলে তো এবার আমার টিভি স্ক্রিন ভেঙে ফেলেছে।

: দেখুন ছোট মানুষের পাগলামি!

: পাগলামি! কী বলছেন আপনি, তাহলে আপনারটা ভাঙলো না কেন?

: অত পাগল এখনো হয়নি যে আমারটা ভাঙবে।

৪#

: একজন অ্যাডমিরালেরও ওপরে কে বল তো?

: কেন, তার টুপি!

৫#

: তুই সবুজ লিপস্টিক মাখিস কেন?

: আমার স্বামী যে ট্যাক্সি চালায়! লাল দেখলেই থেমে পড়ে...

৬#

৭#

স্বামী : কী রান্না করেছো, গোবরের মতো স্বাদ?

স্ত্রী : তুমি গোবরও খেয়ে দেখেছ?

৮# 

নার্স : আমি কি আপনার পালসটা দেখতে পারি?

রোগী : কেন নিজেরটার সমস্যা কী?

৯#

চাকর হন্তদন্ত হয়ে জানালো, ‘স্যার, ডাক্তার এসেছেন।’

-বলে দাও আজ আমি অসুস্থ... দেখা হবে না!

১০#

স্ত্রী : গত এক মাসে তুমি আমাকে একটা চুমুও খাওনি।

আত্মভোলা স্বামী : সে কী! তা হলে এতদিন কাকে চুমু খেলাম!

১১#

একটি ইলেকট্রিক কোম্পানির বিক্রয় নির্বাহী কথা বলছেন অপর এক ক্রেতা কোম্পানির ব্যবস্থাপকের সঙ্গে।

বিক্রয় নির্বাহী একটি বড় বিক্রয় চুক্তির সম্ভাবনা দেখে ক্রেতা কোম্পানির ব্যবস্থাপককে বললেন, ‘স্যার, যদি এ চুক্তি হয় তা হলে আপনাকে আমরা একটা নতুন মডেলের মার্সিডিজ উপহার দেবো।’

প্রস্তাব শুনে ক্রেতা ব্যবস্থাপক রেগে গেলেন। বললেন, ‘কী! আপনি আমাকে ঘুষ দিতে চান! আপনি আমাকে সস্তা রাজনীতিবিদ ভেবেছেন নাকি! দুঃখিত, আপনার এ প্রস্তাব আমি গ্রহণ করতে পারলাম না।’

বিক্রয় নির্বাহী বললেন, ‘ঠিক আছে স্যার, আপনি যদি উপহার নিতে না চান তা হলে একটি মার্সিডিজ আমরা আপনার কাছে একশডলারে বিক্রি করবো।’

ক্রেতা ব্যবস্থাপক বললেন, ‘ঠিক আছে, তাহলে অবশ্যই আমি দুইশ ডলারে দুটো গাড়ি কিনব।’

১২#

১৩#

স্বামী : জানো, কাল রাতে ক্লাবে মদ খাওয়ার প্রতিযোগিতা হয়েছিলো...

স্ত্রী : সে তো তোমাকে দেখেই বুঝতে পারছি। কিন্তু দ্বিতীয় কে হয়েছে?

১৪#

খদ্দের : তোমাদের মতো মেয়েদের কখনো বাচ্চা হয়?

পতিতা : তা না হলে তুমি কোন জাহান্নাম থেকে এলে?

১৫#

মা : তুমি ক্লাসের পেছন বেঞ্চে বসো শুনে খুবই চিন্তিত হয়েছি!

ছেলে : ও নিয়ে ভেবো না। আমাদের সবারই একই বই।

১৬#

: দু’টো অদ্ভুত ঘটনা বলো তো যা একইসঙ্গে ঘটেছে?

: কেন, আমার আর মলির বিয়ে!

১৭#

: আমি পাঁচ বছর ধরে পিয়ানো বাজাচ্ছি।

: কিন্তু বাথরুমে যাবার জন্যও কি একবার থামোনি?

১৮#

 

১৯#

: দরজা খুলুন, আপনার স্বামী স্টিম-রোলারের নিচে পড়ে মারা গেছে।

: ঠিক আছে, দরজার নিচ দিয়ে ঠেলে দিন...

২০#

এক সর্দারজী সন্ধ্যায় ছোট এক হোটেলে উঠলেন। রুমে ঢুকে দেখলেন এক মৌলভী সাহেব পাশের সিটে বসে আছেন। একটিমাত্র আলনার এক দিকে তার কাপড়চোপড় রাখা। সর্দারজী অন্য পাশে তার কাপড়চোপড় রাখলেন। শোয়ার আগে হোটেল বয়কে বললেন, ‘কাল ভোরে অন্ধকার থাকতেই আমাকে ডেকে দিবি। আমি ট্রেন ধরবো।’

ভোরে হোটেল বয় ডেকে দিল। সর্দারজী অন্ধকারে দিক ঠিক করতে না পেরে মৌলভী সাহেবের কাপড়চোপড় পরে ফেললেন।

ট্রেনে উঠে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে সর্দারজী বললেন, ‘ছোকরাটাকে বারবার বললাম, ভোরে আমাকে ডেকে দিবি। এখন দেখি ছোকরাটা আমাকে না ডেকে মৌলভী সাহেবকে ডেকে দিয়েছে।’

৭৩২৮পঠিত ...০০:৫৫, জুন ০১, ২০১৮

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
    আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

    আইডিয়া

    গল্প

    রম্য

    সঙবাদ

    সাক্ষাৎকারকি

    স্যাটায়ার

    
    Top