টি-শার্টের উপর আঁকা ওড়না, টি-শার্টের নাম ‘আপু, ওড়না কই?’

১৮১০পঠিত ...২১:৩৫, এপ্রিল ০৮, ২০১৮

রাস্তায় হাঁটতে গিয়ে কাপড় চোপড়ের ব্যাপারে বাজে মন্তব্য শোনেননি এমন নারী এদেশে পাওয়াই যাবে না। আর ওড়না না পরে চলাফেরা করা যেন শালীনতাকেই বাসায় রেখে আসার সমান। এসবেরই উত্তর মজার ছলে অসাধারণ ডিজাইন দিয়ে স্টেলা ইমাম ও ক্যাটেরিনা ডন দিয়েছেন তাদের নতুন 'আপু ওড়না কই' টি-শার্টের মাধ্যমে।

'শিরোস' এর মার্চের ইভেন্টের জন্য টি-শার্ট বানাতে গিয়ে এই টি-শার্টের ডিজাইন মাথায় আসে 'ইমাম এন্ড ডন' কোম্পানির। মার্চের মাত্রাতিরিক্ত রোদে টি-শার্টের ওপর আবার ওড়না পরা এক দুর্বিষহ কাজ। কিন্তু ওইযে, রাস্তাঘাট এমন কি বাসায় গুরুজনেরাও নারীর ওড়না না নেয়াকে ‘বেয়াদবি’ ভাববেন! ওড়নার পরত জড়িয়ে নিলেই যেন সব সমস্যার সমাধান। এই ওড়নাটা যদি টি-শার্টেই জুড়ে দেয়া হয় তাহলে তো কথা বলার সুযোগ নেই, ভদ্রতাও ধারণ হলো আর উত্যক্তকারীও জবাব পেল! টি-শার্টটি ছেলেদেরও কিন্তু বেশ মানাবে!

টি-শার্টে এমন ডিজাইন কেন? কীভাবে এলো এই ভাবনা? জানাচ্ছেন ডিজাইনার স্টেলা, ‘ঢাকার রাস্তায় হাঁটতে যেয়ে আমরা দুজনই খেয়াল করেছি যে, হয়রানিমূলক কথাবার্তা যেন একটা সাধারণ বিষয়। মেয়ে হিসেবে আমাদের ভালো-মন্দ বিচার করা হয় আমরা কী পরেছি আর কী পরিনি। তবে এর মধ্যে ওড়না অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের সমাজে মনে করা হয়, যেকোনো পোশাকের উপর ওড়না দিয়ে নারী শরীরের অংশবিশেষ ঢেকে রাখাটা হচ্ছে শালীনতা। এছাড়াও ওড়নার একটা 'সুপারপাওয়ার' আছে- ওড়না একটা মেয়েকে রক্ষা করতে পারে অযাচিত দৃষ্টি আর নোংরা মন্তব্য থেকে। ঘর থেকে বের হবার সময় অবশ্যই ওড়না নিয়ে বের হতে হবে। আর কোন কারণে ভুলে গেলেও বাড়িতে ফিরে এসে নিয়ে যেতে হবে।'

স্টেলা ইমাম বলেন, ‘আমি আর ক্যাটরিনা দুজনই গুলশান বনানীর রাস্তায় হাঁটাহাঁটি করতে যেয়ে প্রায়ই উত্যক্তকারীদের বাজে মন্তব্যের মুখোমুখি হতে হয়েছে। বয়স্কদের কাছ থেকে প্রায়ই ওড়না পরার উপদেশ পাই। আমার অনেক বন্ধুই এমন ঘটনার সম্মুখীন হয়েছে যে, তাকে কেউ চিৎকার করে জিজ্ঞেস করছে তার ওড়না কোথায়! এ সব ভেবেই মনে হল টি-শার্টের উপর একটা ওড়না এঁকে দিলে বেশ মজা হয়। এতে নতুন করে একটা আলাদা কাপড় পরে গ্রীষ্মের গরমে ঘুরতে হচ্ছে না। আমরা এমনিতে স্কার্ফ পরতে পছন্দ করি, তবে তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রি থাকলেই সেটা ভালো লাগে।’

টি-শার্টটি ডিজাইনের মাধ্যমে যা বলতে চেয়েছেন, সেটি স্টেলা এক লাইনে বললেন এভাবে, ‘হিপোক্রেট আর উত্যক্তকারী, যারা কি না চায় আমরা ঢেকে ঢুকে চলব কিন্তু নিজেরা শালীনতার সংজ্ঞা বদলাবে না, তাদের জন্য একটা মজার উত্তর হচ্ছে আমাদের বানানো টি-শার্ট।’

তাদের বানানো আগের টি-শার্ট ‘লেডিস ইন পাঙ্ক’ ছিল বাঁধা-বিপত্তি পেরিয়ে যে সব নারীরা বক্সের বাইরে চলে এসেছেন তাদের সাহস, উদ্যম ও নারীত্বের প্রতীক।

স্টেলা ইমামের ফেসবুক পেজ পাওয়া যাবে এখানে। তাদের কোম্পানির অন্যান্য কাজ রয়েছে ইন্সটাগ্রামে- https://www.instagram.com/imamndon/ 

১৮১০পঠিত ...২১:৩৫, এপ্রিল ০৮, ২০১৮

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
    আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

    আইডিয়া

    কৌতুক

    রম্য

    সঙবাদ

    স্যাটায়ার

    evolution22
    
    Top