খুকিকে বলবেন, এখন আমি শুধু বাতাবি লেবু খাই : একান্ত সাক্ষাৎকারে নজরুলের কবিতার কাঠবিড়ালী

৫৭৭পঠিত ...১২:৪৩, আগস্ট ০৭, ২০১৮

বিটিভি মারফত আমরা জেনেছি, দিনাজপুর ফুলে ফেঁপে উঠেছে বাতাবী লেবুর ফলনে। কৃষকদের মুখে হাসি, বাতাবি লেবু চাষীদের ঘরে ঘরে আনন্দ। বাতাবি লেবুর স্নিগ্ধ মোহময় ঘ্রাণের মতোই সমগ্র দেশে ছড়িয়ে পড়েছে বাতাবি লেবুর বাম্পার ফলনের আনন্দ। সেই আনন্দে শামিল হতে আমাদের eআরকি প্রতিবেদক ছুটে যান বাতাবি লেবুর স্বর্ণভূমি দিনাজপুরে। চাষীদের আনন্দের জোয়ার সামলে বাতাবি লেবুর বাগানের দিকে এগোতেই দেখা যায়, মন ভরে বাতাবি লেবু খাচ্ছে এক কাঠবিড়ালী। আমাদের প্রতিবেদক সেদিকে এগোতেই সে কিঞ্চিৎ বিরক্ত হয়। তার সঙ্গে ভাব করার জন্য প্রতিবেদক আওড়ান নজরুলের কবিতা- 'কাঠবেড়ালি, কাঠবেড়ালি, পেয়ারা তুমি খাও?' সঙ্গে সঙ্গে জনাব কাঠবিড়ালী তীব্র বিরক্ত হয়ে বলে- 'ওই মিয়া, দেখেন না বাতাবি লেবু খাই?'

শুরুটা বিরক্তি দিয়ে হলেও কাঠবিড়ালীর সঙ্গে আমাদের প্রতিবেদক মেতে ওঠেন আড্ডায়। সেই আড্ডার চুম্বক অংশ রইলো আমাদের পাঠকদের জন্য-

eআরকি: আপনার কি খুকির কথা মনে পড়ে? ওই যে খুব আদর করে পেয়ারা, গুড়-মুড়ি, বাতাবি লেবু সাধলো যে খুকি...
কাঠবিড়ালী: হ্যাঁ, নজরুলের কথাও মনে আছে। সে-ই তো আমার আর খুকির কনভারসেশনের স্ক্রিনশটটা ফাঁস করলো!
: সেদিন তো আপনি বাতাবি লেবু খেতে চাননি। এখন দেখছি ধুমায়ে খাচ্ছেন...
: দেখেন (বাতাবি লেবু চিবোতে চিবোতে), তখনকার পরিস্থিতি ছিল অন্য। তখন দেশ এখনকার মতো বাতাবি লেবুতে সমৃদ্ধ ছিল না। বাতাবি লেবু তখন ছিল রেয়ার জিনিস। আমরা মাঝেমধ্যে খাইতাম, কোনো পার্টি বা ঈদে-চান্দে, বিশেষ দিবসে। এখনকার কথা আলাদা, দেশে এখন উন্নয়নের জোয়ার। যেদিকে চোখ যায় শুধু বাতাবি লেবু। (এই পর্যায়ে একটা শেষ করে আরেকটা খাওয়া শুরু করলো)
: দেশের উন্নয়নের সূচক কি তাহলে বাতাবি লেবু?
: অবশ্যই। একটা স্বাধীন দেশে আমরা এক সময় স্বাধীনভাবে বাতাবি লেবু খাইতে পারতাম না। এখন দেখেন, যেদিকে চোখ যায় শুধু বাতাবি লেবু। দিনাজপুরের ক্ষেত থেকে বাতাবি লেবু বিটিভির নিউজ পর্যন্ত চলে গেছে। দেশে যত ফুটবল আছে, তার চেয়ে এখন বাতাবি লেবু বেশি, এমনকি যত ফুটবলার আছে তার চাইতেও বাতাবি লেবু বেশি। বাতাবি লেবু এখন এই মুহূর্তে আমাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু, আমাদের সবচেয়ে বড় সম্পদ।

: এই বাতাবি লেবুর বাংলাদেশের স্বপ্নই কি তবে দেখতেন?
: আমরা দিনের পর দিন মাঠে-ক্ষেতে 'নিরাপদ বাতাবি লেবু চাই' আন্দোলন করার কারণেই তো আজ এই বাম্পার ফলনের নতুন সূর্য উদিত হয়েছে। শুধু আমরা কেন, দেশের বড় বড় স্বাপ্নিক মানুষরাও তাই দেখতেন। কবিতা পড়েন নাই, 'বাতাবি লেবুর গন্ধে ঘুম আসে না, একলা জেগে রই...'। বাতাবি লেবুর গন্ধেই জাগবে বাংলাদেশ।
: দেশের ভবিষ্যৎ উন্নয়নে বাতাবি লেবু কী ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করছেন?
: আমার তো মনে হয়, টাকার বদলে বাতাবি লেবুই এখন নতুন কারেন্সি হওয়া উচিত। আমরা দিনরাত বাতাবি লেবু খাবো, বাতাবি লেবুর খোল দিয়ে হেলমেট বানিয়ে আমাদের দুর্বৃত্তরা এখন ইট-পাথরের বদলে বাতাবি লেবু ছুড়বে। আমরা বাতাবি লেবুর বিছানায় ঘুমাবো, বাতাবি লেবু পানিতে গোসল করবো, বাতাবি লেবুর গন্ধে সুরভিত হবে আমাদের বাংলাদেশ। এমনকি বাংলাদেশ রপ্তানি করে বাতাবি লেবু একটি উন্নত দেশে পরিণত হবে...
: মানে বাতাবি লেবু রপ্তানি করে বাংলাদেশ...
: হ্যাঁ হ্যাঁ ওইটাই বলতে চেয়েছি... (এই পর্যায়ে সে আরও একটি বাতাবি লেবু খেতে শুরু করে)

'বাতাবি লেবু আড্ডা'র শেষ পর্যায়ে আমাদের প্রতিবেদক উঠে যাওয়ার সময় কাঠবিড়ালী নিজেই তার হাতে একটি বাতাবি লেবু তুলে দিয়ে বলে, 'খুকির জন্য দিলাম। উনারে দিয়েন। আর খুকিরে বইলেন, এখন আমি শুধু বাতাবি লেবুই খাই। আইসা খাইয়া যাইতে।'

আমাদের প্রতিবেদক চলে যাওয়ার সময়ও দেখতে পান, আরও একটি বাতাবি লেবু নিয়ে চিবোতে শুরু করেছে কাঠবিড়ালী, চোখেমুখে শত বছরের বাতাবি লেবুর অপেক্ষা শেষ হওয়ার প্রশান্তি। প্রতিটি কামড়েই যেন সে পাচ্ছে দেশের উন্নয়ন আর অগ্রগতির স্বাদ।

৫৭৭পঠিত ...১২:৪৩, আগস্ট ০৭, ২০১৮

আরও

পাঠকের মন্তব্য

 

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
    আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

    আইডিয়া

    গল্প

    সঙবাদ

    স্যাটায়ার

    
    Top