মিয়ানমার সেন্টমার্টিন বাদেও আরো যা কিছু নিজেদের বলে দাবি করতে পারে

১০৬৮ পঠিত ... ১৮:৩৯, অক্টোবর ০৮, ২০১৮

মিয়ানমার ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট ইউনিট (এমআইএমইউ) নামের দেশটির সরকারি একটি ওয়েবসাইটের মানচিত্রে বাংলাদেশের সেন্টমার্টিনকেও মিয়ানমারের মধ্যে চিহ্নিত করা হয়েছে। এমনকি দ্বীপের মানুষজনকেও দাবি করা হয়েছে মায়ানমারের নাগরিক। এ ঘটনায় দেশটির রাষ্ট্রদূতকে তলব করে তীব্র প্রতিবাদ ও অবিলম্বে মায়ানমারের এ ধরনের ভুয়া দাবি উত্থাপনের দ্রুত ব্যাখ্যা দিতে বলা হয় (পরবর্তীতে ম্যাপটি সরিয়ে ফেলা হয়েছে)।

সেন্টমার্টিন ছাড়াও আরো কী পেতে মন চায় মিয়ানমারের? নিশ্চয়ই তাদের রয়েছে আরো নানান চাওয়া-পাওয়া! মিয়ানমার আরো যা কিছু দাবি করতে পারে, মায়ানমারের পক্ষ থেকে তা ভাবার কাজটা সেরে ফেলেছে eআরকিই!

 ডিজাইন: মুবতাসিম আলভী

 

১. স্ট্যাচু অব লিবার্টি
মিয়ানমারে সব আছে অথচ একটা স্ট্যাচু অব লিবার্টি নাই। এইটা কোনো কথা! এইবার মানচিত্রের মেইনপয়েন্টে স্ট্যাচু অব লিবার্টি রাখতে পারে মিয়ানমার।

 

২. নরওয়ে
মিয়ানমায়ার সেনাবাহিনীর দাবি তারা শান্তিপূর্ণ অভিযান করেছে। কোনো গণহত্যা করেনাই। এখন এটার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য দরকার শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার। এই পুরষ্কার যেহেতু দেয় নরওয়ে, তাই তারা নরওয়েকে নিজেদের বলে দাবি করতে পারে।

৩. গ্রেট ওয়াল অব চায়না
রোহিঙ্গা নিয়ে এমনিতেই চিন্তায় আছে মিয়ানমার। কখন না জানি আবার সব রোহিঙ্গা ঢুকে পড়ে! তাই বর্তমানে তাদের একটা ভাল ওয়াল দরকার। এ কারণে মানচিত্রে গ্রেট ওয়াল অব চায়না এ্যাড করে মালিকানা দাবি করতে পারে মিয়ানমার।

 

৪. পিসার হেলানো মিনার
রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে মিয়ানমার যে ধরণের ঘাড়ত্যাড়ামি করেছে এবং করে চলেছে, পৃথিবীর ইতিহাসে এমন ত্যাড়া বস্তু আছে শুধু একটাই- পিসার হেলানো মিনার! যেহেতু সেটাও মিয়ানমারের স্বভাবচরিত্রের মতোই 'ত্যাড়াব্যাকা', মিয়ানমার সেটাকে নিজেদের বলে ফেললে অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না!

৫. বুর্জ খলিফা 
রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে ঢুকিয়ে মিয়ানমার এখন নাকে তেল দিয়ে আয়েশ করে ঝিমাচ্ছে। তাদের এখন দরকার উঁচু একটা টাওয়ার। যার উপর বসে খেয়াল রাখা যায় রোহিঙ্গা আবার ঢুকছে কিনা। এজন্য বুর্জ খলিফার বিকল্প নেই।

 

৬. ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের সেন্টমার্টিন দ্বীপ
ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জেও রয়েছে সেন্টমার্টিন নামক আরেকটি দ্বীপ। এক সেন্টমার্টিন যখন তারা নিজেদের বলেই ফেলেছে, সবকটা সেন্টমার্টিন নিজেদের বলে দাবি করবে না, তা কে জানে!

৭. বাংলাদেশের রাজনীতিবিদ
মিয়ানমারে চলমান সংকটের প্রধান কারন তাদের যোগ্য রাজনীতিবীদ নেই। এমন কেউ নেই যে সকল সমস্যা মুচকি হেসেই উড়িয়ে দিতে পারে। অথবা তাদের 'আল্লার মাল আল্লায় নিছে' টাইপ কথা উৎপাদন করতে পারার মত কেউ নেই। তাই মিয়ানমার আমাদের কিছু বিশিষ্ট রাজনীতিবীদকে নিজেদের বলে দাবি করতে পারে। এতে রোহিঙ্গা সংকটের ব্যাপারটা দিনের পর দিন ঝুলিয়ে রাখা আরো সহজ হবে!

 

৮. সড়ক দুর্ঘটনা
আমাদের আছে সড়ক দুর্ঘটনা আর মিয়ানমারের আছে গণহত্যা। আন্তর্জাতিক চাপের মুখে মিয়ানমার আমাদের সড়ক দুর্ঘটনার স্বত্ত্ব নিজেদের বলে দাবি করতে পারে। এতে করে গণহত্যাকে সড়ক দুর্ঘটনা বলে তারা চালিয়ে নিতে পারবে খুব সহজেই।

৯. ফেসবুক সেলিব্রেটি
মিয়ানমার এখন কোণঠাঁসা। সূচির মত মাত্র একজন সেলিব্রেটি দিয়ে তাদের ঠিক হয়ে উঠছে না। অথচ আমাদের গোলা ভরা ফেসবুক সেলিব্রেটি, পুকুর ভরা 'সেরা ভাই সেরা'। আর তাই এইসকল ফেসবুক সেলিব্রেটিকে মিয়ানমার নিয়ে নিতে চাইতেই পারে।

১০. সহমত ভাই
মিয়ানমার সরকারের এখন সব চেয়ে বেশি যা দরকার তা হল সমর্থন। আর আমাদের আছে 'সহমত ভাই' বলার মতো সহস্র সমর্থক। এই সকল 'সহমত ভাই'-এর মতো কার্যকরী অস্ত্রকে মিয়ানমার নিজেদের আওতায় নিয়ে স্বার্থসিদ্ধি করতে চাইতেই পারে।

১০৬৮ পঠিত ... ১৮:৩৯, অক্টোবর ০৮, ২০১৮

আরও eআরকি

পাঠকের মন্তব্য

 

ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।

কৌতুক

গল্প

রম্য

সঙবাদ

সাক্ষাৎকারকি

স্যাটায়ার


Top